রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ১০:২৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
কুয়াকাটায় অবরোধ চলাকালীন সমুদ্রে মাছ ধরার অপরাধে ১৮ জন জেলেকে  আটক করছে নৌ পুলিশ নৌকা বিরোধী  ষড়যন্ত্রকারীরা কখন আ’লীগের হতে পারে না-তালুকদার মোঃ ইউনুস বরিশালে নির্বাচন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভা স্বাস্থ্য ও সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির দাবীতে বরিশাল মানববন্ধন ও সমাবেশ বেইজিং প্ল্যাটফরম ফর একশন +২৫ পর্যালোচনা এন্ড ফলোআপ কর্মশালা বরিশালে বিষপানে তরুনের আত্নহত্যার চেষ্টা সর্বহারা অধ্যুষিত গৌরনদীর সরিকল ইউনিয়নে কেন্দ্র দখলের পায়তারা আমতলীতে নির্বাচনী সহিংসতা । দু’চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের হামলায় আহত- ১৩ সংসারের ভার আমতলীর শিশু শ্রমিক নুর জামালের কাঁধে ভিজিএফ’র চাল পেল আমতলীর সাড়ে ছয় হাজার জেলে
রিমান্ডে স্ত্রীকে হত্যার স্বীকারোক্তি দিলেও আদালতে অস্বীকৃতি বাবুলের

রিমান্ডে স্ত্রীকে হত্যার স্বীকারোক্তি দিলেও আদালতে অস্বীকৃতি বাবুলের

পাঁচ দিনের রিমান্ডে থাকা অবস্থায় জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতুকে হত্যা করার কথা স্বীকার করেন সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তার বলে দাবি করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

সোমবার (১৭ মে) চট্টগ্রামের আদালতে দেওয়া এক আবেদনে এমনটাই দাবি করেছে তদন্তকারী এই সংস্থা। তবে স্ত্রীকে হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে রাজি হননি পুলিশের সাবেক এই কর্মকর্তা।

এরআগে, গত মঙ্গলবার (১১ মে) পাঁচ বছর আগে চট্টগ্রামে খুন হওয়া মাহমুদা খানম মিতুর মামলার বাদী বাবুল আক্তারকে প্রধান আসামি করে নতুন একটি মামলা করেন মাহমুদার বাবা মোশাররফ হোসেন। সেই মামলায় ১২ মে বাবুল আক্তারকে রিমান্ডে পায় পিবিআই।

পিবিআই আদালতে দেওয়া আবেদনে বলেছে, রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে বাবুল আক্তার স্ত্রীকে হত্যার কথা স্বীকার করেন। বিষয়টি লিখিতভাবে উল্লেখ করে পিবিআই ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি গ্রহণের জন্য আদালতে আবেদন করে। আবেদনের পর মামলার আসামি বাবুল আক্তারকে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার জাহানের খাসকামরায় নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু সেখানে প্রায় তিন ঘণ্টা অবস্থান করেও জবানবন্দি দিতে রাজি হননি বাবুল।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের (সিএমপি) সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) কাজী সাহাব উদ্দীন আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে চট্টগ্রাম নগরীর জিইসি মোড়ে ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় সড়কে খুন হন পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আক্তারের স্ত্রী মিতু। পদোন্নতি পেয়ে পুলিশ সদরদফতরে যোগ দিতে ওই সময় ঢাকায় ছিলেন বাবুল। এর আগে তিনি চট্টগ্রাম মহানগর গোয়েন্দা পুলিশে কর্মরত ছিলেন। হত্যাকাণ্ডের পর নগরীর পাঁচলাইশ থানায় অজ্ঞাত পরিচয় কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করেন বাবুল আক্তার। তবে পুলিশ তদন্তে তার সম্পৃক্ততার গুঞ্জন ছিল আগে থেকেই। এরপর তিনি চাকরি থেকে অব্যাহতি নেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved by barishalobserver.Com
Design & Developed BY Next Tech