পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে ভারত

ডেস্ক রিপোর্ট :
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুপারিশের ভিত্তিতে সীমিত পরিমাণে পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে ভারত। আজ সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দেশটির ইংরেজি দৈনিক ইকোনমিক টাইমসের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশ ছাড়াও আরও কয়েকটি দেশেও সরকারিভাবে পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটি।

পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ভারতীয় এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করে বলেছেন, দ্বিপাক্ষিক উদ্দেশে সীমিত পরিমাণে পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

দেশটির সরকার কী পরিমাণ পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে, সেই বিষয়ে বিস্তারিত কোনও তথ্য ওই কর্মকর্তা জানাননি। বাংলাদেশ ছাড়াও নেপাল, ভুটান, বাহরাইন ও মৌরিশাসে পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে ভারত।

এর আগে, বাংলাদেশ সরকার রমজান মাসে দেশের বাজারে মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে নির্দিষ্ট পরিমাণে পেঁয়াজ ও চিনি রপ্তানি করতে ভারত সরকারের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দিয়েছে।

বিশ্ব বাজারের দ্বিতীয় বৃহত্তম পেঁয়াজ রপ্তানিকারক ভারত। রপ্তানি নিরুৎসাহিত করতে দেশটির সরকার প্রথমে পেঁয়াজের ওপর ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করে। তারপরও আশানুরূপ ফল না মেলায় পেঁয়াজের রপ্তানি পুরোপুরি নিষিদ্ধ করে ভারত।

অপরদিকে রোজার আগেই সরকার ভারত থেকে পেঁয়াজ ও চিনি আমদানি করবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু। গতকাল রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা ইতোমধ্যে ৫০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ ও এক লাখ মেট্রিক টন চিনির চাহিদা দিয়েছি। এরমধ্যে ২০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ ও ৫০ হাজার মেট্রিক টন চিনির প্রতিশ্রুতি পেয়েছি। প্রত্যাশা করছি, চাহিদার পুরোটাই আমরা নিয়ে আসতে পারব।’

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘রোজার আগেই ভারত থেকে পেঁয়াজ ও চিনি আসবে বলে আমরা প্রত্যাশা করি। ভারত সফরে গিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ বিষয়ে আশ্বাস পেয়েছেন।’

বরিশাল অবজারভার / হৃদয়

বাংলাদেশ-ভারত কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করে যাবে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট :
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, নির্বাচনবিরোধী দেশি-বিদেশি নানা ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে ভারত আমাদের পাশে ছিল, পাশে আছে। তিনি বলেন, গত কয়েক দশকে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। একে আরও এগিয়ে নিতে দুই দেশ কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করে যাবে।

আজ বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) ভারতের নয়াদিল্লিতে বিবেকানন্দ ইন্টারন্যাশনাল ফাউন্ডেশন আয়োজিত ‘বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের এক দশক’ শীর্ষক একক বক্তৃতায় মন্ত্রী এ কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ-ভারতের সম্পর্কটি রক্তের বন্ধনের। অন্য যেকোনো দেশের সম্পর্কের সঙ্গে কখনোই বাংলাদেশের সম্পর্ককে এক করা যায় না। মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারত সরকারের অবদান বাংলাদেশ সব সময় কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করবে।

ড. হাছান বলেন, প্রতি বছর প্রায় ১৭ লাখ বাংলাদেশি ভারতীয় ভিসার আবেদন করে। দিন দিন এই সংখ্যা বাড়ছে। এটি দুই দেশের পারস্পরিক সুসম্পর্কের পরিচয়ই বহন করে।

প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে দুদেশের সম্পর্কের সোনালি অধ্যায় চলছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, দুদেশ বাণিজ্য প্রসার, সন্ত্রাসদমন, জনযোগাযোগ বৃদ্ধি, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, শান্তি, নিরাপত্তাসহ গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে একযোগে কাজ করছে। দুদেশের মানুষের সমৃদ্ধি ও উন্নয়নে এই সম্মিলিত প্রয়াস অব্যাহত থাকবে, বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

ফাউন্ডেশনের পরিচালক ড. অরবিন্দ গুপ্তের পরিচালনায় ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো. মুস্তাফিজুর রহমান, বাংলাদেশে ভারতের পূর্বতন হাইকমিশনার ভিনা সিক্রি প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

বরিশাল অবজারভার / হৃদয়

আগামী জাতীয় নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু হবে

ডেস্ক রিপোর্ট :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশে আগামী সাধারণ নির্বাচন গণতন্ত্র ও জনগণের ভোটাধিকার সমুন্নত রেখে অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হবে।

বুধবার দোহার র‌্যাফলস হোটেলে কাতার ইকোনোমিক ফোরামে ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথোপকথন’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের আগামী নির্বাচন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

কিউইএফ-এর হোস্ট এবং এডিটর হাসলিন্দা আমিন অনুষ্ঠানস্থলে জনাকীর্ণ হল রুমে এই অধিবেশন পরিচালনা করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, সুতরাং আমি এখানে এসেছি আমাদের জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে? জনগণই ঠিক করবে কে দেশ চালাবে। এটা জনগণের ক্ষমতা। তাই আমি জনগণের ক্ষমতা নিশ্চিত করতে চাই।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি এখানে ক্ষমতা দখল না করার জন্য এসেছি, বরং আমি জনগণকে তাদের অধিকার দিতে চাই যাতে তারা তাদের সরকার বেছে নিতে পারে।’

কিছু দলের নির্বাচনে অংশ নিতে অনিচ্ছুক হওয়ার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা কীভাবে অংশগ্রহণ করতে পারে কারণ তাদের সময় দেশ অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। আমাদের জনগণ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল এবং সে সময় (বিএনপির শাসনামলে) সন্ত্রাস, দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, শোষণ ছিল সর্বত্র। তারা কখনই মানুষকে গোণায় ধরতো না। আমাদের জনগণের জন্য একদিনে একবেলা খাবার পাওয়া খুবই কঠিন ছিল। এটাই ছিল তাদের অবস্থা, তিনি যোগ করেন।

আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, তার দল যখন আবার ক্ষমতায় আসে, তারা জনগণের জন্য সবকিছু নিশ্চিত করেছে। তাই, এখন নির্বাচন, এটা জনগণের অধিকার। এখন, মানুষ বুঝতে পারে। তারা যদি আমাদের ভোট দেয়, আমি এখানে থাকব, তিনি বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের কথা চিন্তা করুন, মি. ট্রাম্প এখনও ফলাফল মেনে নেননি। তারা এখন কী বলতে পারেন?

তিনি বলেন, যারাই (পর্যবেক্ষক) পাঠাতে চায়, তিনি ইতিমধ্যেই সবাইকে বলেছেন, – “যদি তারা পর্যবেক্ষক পাঠাতে চায় তবে তারা পাঠাতে পারে।’

“সুতরাং, আমি আপনাকে বলতে পারি যে আমি এখানে আমার জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার, ভোটের অধিকার নিশ্চিত করতে এসেছি এবং এটি আমাদের সংগ্রাম,” তিনি যোগ করেন।-বাসস

১৬০ কোটি ডলার রেমিট্যান্স এসেছে ২৪ দিনে

ডেস্ক রিপোর্ট :
পবিত্র ঈদুল ফিতর সামনে রেখে প্রতিবছরই রমজান মাসে স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় বেশি রেমিট্যান্স পাঠাতে দেখা যায় প্রবাসীদের। এবারও ব্যতিক্রম হচ্ছে না। রোজার শুরুতেই বেড়েছে রেমিট্যান্স প্রবাহ। চলতি মার্চ মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত বৈধ বা ব্যাংকিং চ্যানেলে প্রায় ১৬০ কোটি ডলার সমপরিমাণ অর্থ দেশে এসেছে। এ হিসাবে দৈনিক গড়ে এসেছে ৬ কোটি ৬৬ লাখ ডলার। গত বছরের মার্চে দৈনিক গড়ে রেমিট্যান্স এসেছিল ৬ কোটি ডলারের মতো। চলমান ধারা অব্যাহত থাকলে চলতি মাসে শেষে রেমিট্যান্স ২ বিলিয়ন ডলার ছাড়াবে।

সোমবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রকাশিত হালনাগাদ পরিসংখ্যানে এ তথ্য জানা গেছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, চলতি মাসের প্রথম ২৪ দিনে রেমিট্যান্স এসেছে ১৫৯ কোটি ৭৫ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার। তার মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ১৯ কোটি ৫৬ লাখ ৭০ হাজার ডলার, বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে ৩ কোটি ৫৪ লাখ ৭০ হাজার মার্কিন ডলার, বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ১৩৬ কোটি ১৫ লাখ ৪০ হাজার ডলার এবং বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৪৮ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, গত ফেব্রুয়ারিতে দেশে রেমিট্যান্স এ‌সে‌ছিল ১৫৬ কোটি ১২ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার। চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম ৮ মাসে (জুলাই থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত) মোট রেমিট্যান্স এসেছে ১ হাজার ৪০১ কোটি ৩৩ লাখ মার্কিন ডলার। আগের অর্থবছরের একই সময়ে রেমিট্যান্স এসেছিল ১ হাজার ৩৪৩ কেটি ৮৫ লাখ মার্কিন ডলার। আলোচ্য সময়ে ৫৭ কোটি ৪৮ লাখ মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স বেশি এসেছে।

আমদানি পণ্যের শুল্ক বাড়বে প্রায় ৩০ ভাগ

ডেস্ক রিপোর্ট :

ডলারের দামের তারতম্যের প্রভাবে আমদানি নির্ভর পণ্যগুলোর ওপর ২৫ থেকে ৩০ ভাগ শুল্ক বাড়বে বলে জানিয়েছে ট্যারিফ কমিশন। ফলে এসব পণ্যে অন্তত ত্রিশ ভাগ দাম বাড়বে।

টিসিবি ভবনে আজ সোমবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে ভোক্তা অধিকার ও সংরক্ষণ কমিশনের আলোচনায় একথা জানান ট্যারিফ কমিশনের উপ-পরিচালক মো. মাহবুব। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে টিসিবি ভবনে ভোক্তা অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে এ মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ভোক্তা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এএইচএম সফিকুজ্জামানের সভাপতিত্বে সভায় আদা রসুন হলুদ ও শুকনো মরিচের ব্যবসায়ী নেতা, ক্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট আব্দুল হান্নান ও এফবিসিসিআইর ভাইস প্রেসিডেন্ট আমিন হিলালি উপস্থিত ছিলেন।

ব্যবসায়ীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ভোক্তা অধিদপ্তরের ডিজি জানান, শুল্ক কমানোর সুপারিশ করা হবে। তবে এবার পেঁয়াজের বাজার খুবই স্বাভাবিক মাত্রায় ছিল। আগামী রমজানেও পেঁয়াজের মৌসুম হওয়ায় দাম বাড়বে না।

আলোচনায় অংশ নেন খুচরা ও পাইকারি ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা। এছাড়া ক্যাব ও এফবিসিসিআই এর নেতারা আলোচনায় অংশ নেন।

এসময় বক্তারা বলেন, এবছর পেঁয়াজের দামে তেমন কোনো প্রভাব পড়বে না। তবে আমদানিনির্ভর আদা, রসুন ও শুকনো মরিচ, হলুদের দাম কিছুটা বাড়তে পারে। পণ্যের চাহিদা অনুযায়ী পণ্য আমদানিতে এলসি সমস্যা সমাধান করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান আমদানিকারকরা। সকলের মতামত শুনে রমজানে পণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখতে সমন্বিতভাবে সমস্যা সমাধানে কাজ করার কথা জানিয়েছেন ভোক্তা অধিকার ও সংরক্ষণ কমিশনের মহাপরিচালক।

চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজ পালন করতে পারবেন

ডেস্ক রিপোর্ট :

সৌদি সরকারের সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তি অনুযায়ী চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজ পালন করার সুযোগ পাবেন। আজ রোববার (১৫ জানুয়ারি) ধর্ম মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানানো হয়।

হজচুক্তির বিষয়ে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘করোনার পর বিগত বছরে স্বল্প সময়ে আমরা সবাই মিলে সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে হজের কার্যক্রম পরিচালনা করার চেষ্টা করেছি। হজ আয়োজনে সার্বিক দায়িত্ব পালন করেছে সৌদি আরবে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস।’ এ জন্য তিনি দূতাবাসের কর্মকর্তাদের বিশেষ ধন্যবাদ জানান।

হজ আয়োজন আরও সুন্দর করার জন্য প্রবাসীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় অংশগ্রহণ করেছেন বলেও জানান ধর্ম প্রতিমন্ত্রী।

প্রবাসীদের বিভিন্ন পরামর্শ অনুযায়ী আগামীতে হজ আয়োজন আরও সুন্দর করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে উল্লেখ করেন প্রতিমন্ত্রী।

বাংলাদেশের ফুটবল উন্মাদনায় হতভম্ভ ফিফা

ডেস্ক রিপোর্ট :

ফুটবল বিশ্বকাপ যেন বাঙালির কাছে এক উৎসবে পরিনত হয়েছে। বিশ্বের অনেক দেশ থেকে উন্মাদনা কিংবা ফুটবল প্রীতির দিক থেকে বাংলাদেশের ভক্তরা এগিয়ে। সে খবর পৌঁছে গেছে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা আন্তর্জাতিক ফুটবল সংস্থার (ফিফা) কাছে।

বাংলাদেশের ফুটবল উন্মাদনা দেখে অবাক হয়েছে সংস্থাটি। খেলা চলাকালীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উদযাপনের একটি ভিডিও টুইটারে প্রকাশও করেছে তারা। ভিডিওটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজী মুহম্মদ মুহসীন হলের খেলার মাঠ থেকে ধারণ করা হয়েছিল।

সেদিন বড় পর্দায় আর্জেন্টিনা–মেক্সিকো ম্যাচটি দেখানো হচ্ছিল। মেক্সিকোর বিপক্ষে যখন লিওনেল মেসি গোল করলেন, তখন উল্লাসে মেতে উঠেছিল পুরো মাঠ। আর সেই উল্লাসের একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে ফিফা। প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, নেচেগেয়ে প্রিয় দলের গোল উদযাপন করছেন সকলে।

প্রথম ম্যাচে সৌদি আরবের বিপক্ষে ১-২ গোলে হেরেছিল আর্জেন্টিনা। এতে মেক্সিকোর বিপক্ষের ম্যাচটি হয়ে ওঠে বাঁচা–মরার লড়াই। সেই লড়াই ঘিরে আর্জেন্টিনা সমর্থকদের আগ্রহ ছিল তুঙ্গে। সেদিন আর্জেন্টিনার জয়ে সেই আগ্রহ রূপ নেয় সমুদ্রসমান উল্লাসে। পরবর্তী ম্যাচে পোল্যান্ডের বিপক্ষে জয় পেলে আর্জেন্টিনা উঠে যাবে নক আউট পর্বে।

জন্মস্থান ব্রাজিলের পরেই নেইমারের প্রিয় দেশটি বাংলাদেশ

ডেস্ক রিপোর্ট :

জন্মস্থান ব্রাজিলের পরেই নেইমারের প্রিয় দেশটি বাংলাদেশ। কারণ, ইন্টারনেটে ব্রাজিলের পরে এ দেশ থেকেই সবচেয়ে বেশি খোঁজা হয় তারকা ফুটবলার নেইমারকে। এমনটাই বলেছেন নেইমারের কাছের বন্ধু বাংলাদেশের সন্তান মো. রবিন।

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়নের গাজিরটেক মোল্লাবাড়ির বাসিন্দা রবিন। আজ থেকে ১৫ বছর আগে পড়ালেখার উদ্দেশে পাড়ি জমিয়েছিলেন ব্রাজিলে। পরে সেখানে যুক্ত হন ব্যবসায়ী হিসেবে। সে সময়ে রবিনের পরিচয় হয় জোয়ান সেলসো নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে। সেলসো নেইমারের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। আর এভাবেই সেলসোর মাধ্যমে রবিনের বন্ধুত্ব হয় নেইমারের সাথে।

গত ১৫ নভেম্বর রবিনের ছেলে রেদোয়ানের জন্মদিনে নেইমার শুভেচ্ছা জানিয়ে এক ভিডিও বার্তা দেন। পরে সেটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্ন মহলে ছড়িয়ে পড়ে। এর পরেই নেইমারের ‘বাংলাদেশি বন্ধু’ হিসেবে পরিচিতি পান রবিন।

রবিন বলেছেন, ‘বাংলাদেশে যে নেইমারের এতো ভক্ত রয়েছে তার খোঁজ তিনি রাখেন। আমি তাঁকে সপরিবারে বাংলাদেশে আসার অনুরোধ করেছি, এতে নেইমার রাজিও হয়েছে। নেইমার বলেছে স্পন্সর পেলে বাংলাদেশে আসা কোনো ব্যাপারই না। এমনকি সঙ্গে লিওনেল মেসিকেও নিয়ে আসা সম্ভব। আমি আপ্রাণ চেষ্টা করছি তাঁকে এ দেশে নিয়ে আসতে। এ দেশের ভক্তদের সঙ্গে নেইমারকে দেখা করিয়ে দিতে চাই।’

নেইমার ও তাঁর পরিবারের বিষয়ে রবিন বলেন, ‘পরিবারের পক্ষ থেকে নেইমারের বাবা সবকিছু দেখাশুনা করেন। কাতার বিশ্বকাপে ওর বাবা, বোন রাফায়েলা, মা এবং কাছের বন্ধুসহ আত্মীয়স্বজন খেলা দেখতে আসবেন। সকলেই আমাকে খুব পছন্দ করেন। তো সেই জায়গা থেকে আমি যতদূর সম্ভব তাদের দেখভাল করার চেষ্টা করব।’

নেইমারের ব্যক্তিত্ব নিয়ে রবিন বলেছেন, ‘আপনারা যারা নেইমারকে চেনেন, তারা খেলোয়াড় হিসেবে চেনেন। কিন্তু আমি চিনি বন্ধু হিসেবে। সে একজন অসাধারণ মানুষ। না হলে আমার মতো সাধারণ এক বাঙালির সঙ্গে তাঁর এমন বন্ধুত্ব হওয়ার প্রশ্নই আসতো না। নেইমার সকলকেই এভাবে খুব আপন করে নেয়।’

এদিকে আর মাত্র ২৪ ঘণ্টা পরেই পর্দা উঠছে কাতার বিশ্বকাপের। সেখানে ব্রাজিল রয়েছে ‘জি’ গ্রুপে। আগামী ২৫ নভেম্বর রাত ১টায় সার্বিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামবে নেইমার-ভিনিসিউসরা। এ ছাড়া, ২৮ নভেম্বর রাত ১০টায় সুইজারল্যান্ড ও ৩ ডিসেম্বর রাত ১টায় ক্যামেরুনের বিপক্ষে খেলবে তিতের শিষ্যরা। এসময় প্রতিটা ম্যাচে চোখ থাকবে বাংলাদেশি ভক্তদের।

বিশ্বব্যাংকের কাছে আরও ৫০০ মিলিয়ন ডলার চেয়েছে বাংলাদেশ

ডেস্ক রিপোর্ট :
বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে চলতি অর্থবছরে বাজেট সহায়তা হিসেবে আরও ৫০০ মিলিয়ন (৫০ কোটি) ডলার পাওয়া যাবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

রোববার (১৩ নভেম্বর) সচিবালয়ে বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রেইজারের সঙ্গে বৈঠকে এ ঋণ সহায়তা চেয়েছেন তিনি।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৈঠকে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে বাংলাদেশে চলমান ও ভবিষ্যতে শুরু হবে, এমন সব প্রকল্প নিয়ে আলোচনা হয়েছে। অর্থমন্ত্রী বাজেট সহায়তা হিসেবে আরও কিছু স্বল্প সুদের ঋণ চেয়েছেন বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দলের কাছে।

মুস্তফা কামাল বলেন, ২০১৯ সালের এপ্রিল থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত আমরা বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে এক বিলিয়ন (১০০ কোটি) ডলার বাজেট সহায়তা পেয়েছি। চলতি অর্থবছরে আরও ৫০০ মিলিয়ন (৫০ কোটি) ডলার বাজেট সাপোর্ট পাওয়া যাবে বলে আশা করছি।

তিনি জানান, বিশ্বব্যাংকের গ্রিন, রেসিলিয়েন্স, ইনক্লুসিভ ডেভেলপমেন্ট ফান্ড থেকে ২৫০ মিলিয়ন (২৫ কোটি) করে আগামী ২ অর্থবছরে ৫০০ মিলিয়ন (৫০ কোটি) ডলার পাওয়ার প্রত্যাশা করছি। ২০২৩-২০২৫ সাল মেয়াদে পাইপলাইনে রয়েছে আরও ৬ দশমিক ১৫ বিলিয়ন (৬১৫ কোটি) ডলারের ঋণ প্রস্তাব।

এ সময়ে বিশ্বের দরিদ্র্য রাষ্ট্রগুলোর অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে বিশ্বব্যাংকের আইডিএ-২০ প্রকল্পের প্রশংসা করেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, জুলাই ২০২২ থেকে জুন ২০২৫ এর জন্য নির্ধারিত ৯৩ বিলিয়ন (৯ হাজার ৩০০ কোটি) ডলারের আইডিএ ২০ সাইকেলকে স্বাগত জানাই। কোভিড ও ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ উদ্ভুত বিরূপ পরিস্থিতি থেকে বাংলাদেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে বাংলাদেশের জন্য কনসেশনাল আইডিএ তহবিল থেকে বর্ধিত সহায়তা প্রয়োজন।

তিন দিনের সফরে শনিবার (১২ নভেম্বর) ঢাকায় আসেন মার্টিন রেইজার। সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে তিনি বৈঠক করবেন।

 

কমে এসেছে রেমিট্যান্স

ডেস্ক রিপোর্ট :

প্রবাস থেকে আয় বা রেমিট্যান্স কমে এসেছে। গত ৮ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন রেমিট্যান্স এসেছে অক্টোবর মাসে। ২০২২-২৩ অর্থবছরের চতুর্থ মাস অক্টোবরে ১৫২ কোটি ডলারের সমপরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা দেশে পাঠিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা।  আজ মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনের তথ্য বলছে, সদ্য সমাপ্ত অক্টোবর মাসে ব্যাংকিং চ্যানেলে প্রবাসী বাংলাদেশিরা দেশে ১৫২ কোটি ৫৪ লাখ (প্রায় এক দশমিক ৫২ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। প্রবাসী আয়ের এ অংক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১২ কোটি ১৪ লাখ ডলার বা সাত দশমিক ৩৭ শতাংশ কম।

গত বছরের অক্টোবরে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৬৪ কোটি ৬৯ লাখ ডলার। শুধু তাই নয়, অক্টোবরের প্রবাসী আয়ের এ অংক গত আট মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর আগে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে দেশে ১৪৯ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স এসেছিল।

চলতি অর্থবছরের টানা দুই মাস দুই বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স বৈধ পথে পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। গত আগস্ট মাসের ২০৩ কোটি ৭৮ লাখ (দুই দশমিক শূন্য তিন বিলিয়ন) ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে। তার আগের মাস জুলাইয়ে এসেছিল ২০৯ কোটি ৬৩ লাখ ডলার।

জুলাই মাসে পবিত্র ঈদুল আজহার কারণে দেশে বিপুল পরিমাণ প্রবাসী আয় এসেছিল। তবে, আগস্টে বড় উৎসব ছিল না, তারপরও প্রবাসী আয় ২০০ কোটি ডলার ছাড়ায়।

চলতি বছরের প্রথম আট মাসের মধ্যে তিন মাস প্রবাসী আয় ২০০ কোটি ডলারের বেশি ছিল। তবে, সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে এসে এই উল্লম্ফন হোঁচট খেয়েছে। সেপ্টেম্বর এসেছিল ১৫৩ কোটি ৯৫ লাখ ডলার। গেল মাস অক্টোবরে আরও কমে নেমে এসেছে ১৫২ কোটি ৫৪ লাখ ডলা‌রে।

অক্টোবরে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পাঁচ বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৩০ কোটি ৭২ লাখ মার্কিন ডলার। বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ১১৮ কোটি ৬০ লাখ মার্কিন ডলার। বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৭১ লাখ মার্কিন ডলার আর বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে দুই কোটি ৫০ মার্কিন ডলার।

আলোচিত সময়ে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে বরাবরের মতো বেসরকারি ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। ব্যাংকটির মাধ্যমে প্রবাসীরা ৩৫ কোটি ৮৪ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন। এরপর অগ্রণী ব্যাংকে ১০ কোটি ৬৪ লাখ, সোনালী ব্যাংকে আট কোটি ৯৪ লাখ, ডাচ্–বাংলা ব্যাংকে এসেছে আট কোটি ৬৬ লাখ, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকে আট কোটি ৪৮ লাখ এবং রূপালী ব্যাংকের মাধ্যমে প্রবাসী আয় এসেছে ছয় কোটি ৭২ লাখ ডলার।

আলোচিত সময়ে আট ব্যাংকে কোনো রেমিট্যান্স সংগ্রহ করতে পারেনি। এগুলো হলো—বিডিবিএল, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক, কমিউনিটি ব্যাংক, বিদেশি খা‌তের ব্যাংক আল-ফালাহ, হাবিব ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান এবং স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার মাধ্যমে কোনো রেমিট্যান্স আসেনি।

রেমিট্যান্স বাড়া‌তে উদ্যোগ

বিদেশি এক্সচেঞ্জের হাউজের মতো সরাসরি ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠালেও প্রতি ডলারে ১০৭ টাকা পাবেন প্রবাসীরা। আগে যা ছিল ৯৯ টাকা ৫০ পয়সা। এ ছাড়া এখন থেকে ব্যাংকগুলো রেমিট্যান্স আহরণ বাবদ কোনো চার্জ বা মাশুলও নেবে না। সব‌শেষ গতকাল সোমবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন এবিবি ও বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনকারী ব্যাংকগুলোর সংগঠন বাফেদার বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেয়।

এ ছাড়া এখন বিদেশ থেকে যেকোনো পরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠাতে কোনো ধরনের কাগজপত্র লাগে না। আবার প্রবাসী আয়ের ওপর আড়াই শতাংশ হারে প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার। প্রণোদনা বাড়ার পরও সর্বশেষ অর্থবছরে প্রবাসী আয়ে বড় পতন হয়।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০২১-২২ অর্থবছরে দুই হাজার ১০৩ কোটি ১৭ লাখ (২১ দশমিক তিন বিলিয়ন) মার্কিন ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে। যা আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৫ দশমিক ১১ শতাংশ কম।