বাঙালি জাতির শাশ্বত ঐতিহ্যের প্রধান অঙ্গ পহেলা বৈশাখ : রাষ্ট্রপতি

ডেস্ক রিপোর্ট :
রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বলেছেন, বাঙালি জাতির শাশ্বত ঐতিহ্যের প্রধান অঙ্গ পহেলা বৈশাখ। আগামীকাল রোববার (১৪ এপ্রিল) বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে আজ দেওয়া এক বাণীতে তিনি বলেন, ‘শুভ নববর্ষ, ১৪৩১। পহেলা বৈশাখ বাঙালি জাতির জীবনে একটি পরম আনন্দের দিন। আনন্দঘন এ দিনে আমি দেশে ও দেশের বাইরে বসবাসরত সকল বাংলাদেশিকে জানাই বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা।’

রাষ্ট্রপতি বলেন, বৈশাখের আগমনে বেজে ওঠে নতুনের জয়গান। দুঃখ, জরা, ব্যর্থতা ও মলিনতাকে ভুলে সবাই জেগে ওঠে নব আনন্দে, নব উদ্যমে। ফসলি সন হিসেবে মোঘল আমলে যে বর্ষগণনার সূচনা হয়েছিল, সময়ের পরিক্রমায় তা আজ সমগ্র বাঙালির অসাম্প্রদায়িক চেতনার এক স্মারক উৎসবে পরিণত হয়েছে। পহেলা বৈশাখের মাঝে বাঙালি খুঁজে পায় নিজস্ব ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও চেতনার স্বরূপ। তিনি বলেন, বৈশাখ শুধু উৎসবের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে আমাদের আত্মবিকাশ ও বেড়ে ওঠার প্রেরণা। বাঙালি সংস্কৃতির বিকাশ, আত্মনিয়ন্ত্রণ ও মুক্তিসাধনায় পহেলা বৈশাখ এক অবিনাশী শক্তি। বাংলাদেশের অভ্যুদয় ও গণতান্ত্রিক বিকাশে সংস্কৃতির এই শক্তি রাজনৈতিকতন্ত্রের চেতনাকে দৃঢ় ও বেগবান করে।

মো. সাহাবুদ্দিন বলেন, ধর্ম-বর্ণ-গোত্র নির্বিশেষে সকলে মিলে নাচ-গান, শোভাযাত্রা, আনন্দ-উৎসব, হরেক রকম খাবার ও বাহারি সাজে বৈশাখকে বরণ করে নেয় উৎসবপ্রেমী বাঙালি জাতি। নতুন বছরে যাত্রাপালা, পুতুলনাচ, লোকসংগীত, গ্রামীণ খেলাধুলা, মেলাসহ নানাবিধ বর্ণিল আয়োজন মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেয় আনন্দ ও সম্প্রীতির নতুন বার্তা। তিনি বলেন, ২০১৬ সালে ইউনেস্কো কর্তৃক পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রা বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। জাতীয় সংস্কৃতির এই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি জাতি হিসেবে বাঙালির জন্য পরম গৌরব ও মর্যাদার। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাষ্ট্রদর্শন ও আদর্শের অন্যতম ভিত্তি ছিল দেশীয় সংস্কৃতির বিকাশ ও জাতীয় চেতনার উন্মেষ। সেই চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে বঙ্গবন্ধু কারারুদ্ধ জীবনে সহবন্দিদের নিয়ে নববর্ষ উদযাপন করেছিলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘পহেলা বৈশাখ আমাদেরকে উদার হতে শিক্ষা দেয় এবং জাতীয়তাবাদে অনুপ্রাণিত হয়ে বিশ্বমানবের সঙ্গে মিশে যাওয়ার শক্তি জোগায়। এই উদারনৈতিক চেতনাকে ধারণ করে বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রদর্শন, বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার আদর্শ এবং রাষ্ট্রভাষা চেতনার বহ্নিশিখা অন্তরে ধারণ করে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত, সুখী-সমৃদ্ধ ও স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ হোক আজকের দিনে সকলের অঙ্গীকার।’ তিনি বলেন, “সকল অশুভ ও অসুন্দরের ওপর সত্য ও সুন্দরের জয় হোক। ফেলে আসা বছরের সব শোক-দুঃখ-জরা দূর হোক, নতুন বছর জাতীয় ও ব্যক্তিজীবনে নিয়ে আসুক অনাবিল সুখ ও সমৃদ্ধি–এ প্রত্যাশা করি।’

বরিশাল অবজারভার /হৃদয়

ধনীদের মাছ ইলিশ !

ডেস্ক রিপোর্ট :
কিছু দিন আগেও বাংলা বর্ষবরণের সঙ্গে জড়িয়ে ছিল পান্তা-ইলিশ। পহেলা বৈশাখে ঘরে-বাইরে সবখানে উৎসবমুখর পরিবেশে ছিল পান্তা-ইলিশের পরিবেশনা। যদিও নানা আলোচনা-সমালোচনায় বাইরে এখন তেমন আর বেচাবিক্রি হয় না। তবে, এর প্রচলন যে বন্ধ হয়নি, তা বোঝা যায় বাংলা নববর্ষের আগে ইলিশের বাজারে গেলে। চড়া দাম দিয়েও অনেককে কিনতে দেখা গেছে ইলিশ। আবার দামদর করে অনেকেই যাচ্ছেন ফিরে। তাদের দাবি—এই চড়া দামে উচ্চবিত্ত ও মধ্যবিত্তরা ইলিশ খেতে পারলেও নিম্ন মধ্যবিত্তদের পাতে মিলবে না জাতীয় মাছ। অনেকেই আক্ষেপ করে বলেন—ইলিশ এখন ধনীদের মাছ।

কাওরানবাজারে ইলিশ কিনতে এসেছেন হাবিবুর রহমান। তিনি কাপড়ের ব্যবসায়ী। এনটিভি অনলাইনকে তিনি বলেন, ব্যস্ততার কারণে ঈদের আগে ইলিশ মাছ কিনতে পারিনি। সকালে হাতিরপুল বাজারে এক কেজি ওজনের ইলিশ খুঁজেছি, কিন্তু পাইনি। পরে কাওরানবাজারে এসেছি। এখানে এসে দুইটি ইলিশ মাছ কিনেছি। দুটির ওজন হয়েছে দুই কেজি ৮০০ গ্রাম। দাম নিয়েছে ছয় হাজার ২০০ টাকা।

কাপ্তানবাজারের ইলিশ কিনতে আসা রহমত উল্লাহ বলেন, ছেলেমেয়ে পহেলা বৈশাখে ইলিশ মাছ খাবে। এলাকায় বাজারে ইলিশ নেই। তাই নিরুপায় হয়ে কাওরানবাজারে এসেছি। ৯০০ গ্রামে একটি ইলিশ কিনেছি। দাম নিয়েছে এক হাজার ৬০০ টাকা।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজারের ইলিশ মাছ বিক্রেতারা জানান, ঈদের ছুটিতে অফিস-আদালত বন্ধ। রাজধানীর কাঁচাবাজারগুলো এখনও বন্ধের রেশ কাটেনি। কাঁচাবাজারগুলোর দোকানপাট এখনও সেভাবে খোলেনি। যেসব গুটি কয়েক দোকান খুলেছে, সেখানে ইলিশের দাম বাড়তি। বর্তমানে ইলিশ সরবরাহ কম জানিয়ে তারা বলেন, এতে মাছের দাম বেশি হতে পারে। তবে, প্রতি বছর পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে ইলিশ কেনার চাহিদা বেশি থাকে। সেই তুলনায় অন্যান্য সময়ে চেয়ে এসময় ইলিশের দাম বেশিই থাকে।

কারওয়ানবাজার ও কাপ্তানবাজার ঘুরে দেখা যায়, ৫০০ গ্রাম ওজনের বেশি ইলিশের প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে এক হাজার থেকে  এক হাজার ২০০ টাকা। ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রামের ইলিশের প্রতি কেজির দাম চাচ্ছে দেড় হাজার টাকা ওপরে। এক কেজি ওজনের ইলিশের দাম চাচ্ছে দুই হাজার ৪০০ হাজার টাকা ওপরে। এক কেজি ২০০ গ্রামের ওজনের বেশি ইলিশের দাম চাচ্ছে তিন হাজার টাকার ওপরে। বাজারভেদে ইলিশের দাম কম বেশি দেখা গেছে।

বাজারে ইলিশ কম জানিয়ে কাওরানবাজারের জামসেদ ও কাপ্তান বাজারের আশরাফসহ বেশ কয়েকজন বিক্রেতা বলেন, সারা বছরের তুলনায় পহেলা বৈশাখ ঘিরে ইলিশের বাড়তি চাহিদা থাকে। এতে আমাদের কিছু করার নেই। পহেলা বৈশাখের আগে প্রতিবারই দাম বাড়ে। এটা সাধারণ বিষয়।

বিক্রেতারা আরও বলেন, বর্তমানে বাজারে ইলিশের সরবরাহ কম। এ ছাড়া বেশিরভাগ মাছ দোকান বন্ধ। প্রতি বাজারে গুটি কয়েক দোকান খোলা হয়েছে। সব দোকান খোলা থাকলে ইলিশের দাম কমে পাওয়া যেত। যাত্রবাড়ী কাঁচাবাজারের মাছ ব্যবসায়ী আলমগীর বলেন, পহেলা বৈশাখ রমজান মাসে পড়ায় এবার ইলিশের বেচাকেনা তেমন নেই। গুটি কয়েক দোকান খোলা হয়েছে। তারপর ইলিশের সরবরাহ কম। সবমিলিয়ে ইলিশ দাম বাজার বাড়তি।

পহেলা বৈশাখ আসার বেশ কিছুদিন আগে থেকে ইলিশে বাজার ভরা থাকত জানিয়ে ক্রেতা নাজমুল বলেন, পাড়া-মহল্লায়ও ফেরি করে ইলিশ বিক্রি করতেন বিক্রেতারা। দাম নাগালে থাকায় সব শ্রেণিপেশার মানুষ বৈশাখ উপলক্ষে ইলিশ খেতেন। গতকয়েক বছর পহেলা বৈশাখের সেই আমেজ নেই। কারণ, ইলিশের দাম সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে।

ইলিশ ধনীদের মাছ দাবি করে ক্রেতা হুমায়ন এনটিভি অনলাইনকে বলেন, এখন আর নিম্ন মধ্যবিত্তরা ইলিশ পাতে পায় না। বাজারে দেখলেও কেনার সাহস করে না। বছর আগে ৬০০ টাকা দিয়ে যে ইলিশ কিনেছি, এখন সেই ইলিশ কিনলে গুনতে হচ্ছে দেড়-দুই হাজার টাকা। তাই মন চাইলেও সাহস পায় না। তাই এবারে রুই মাছ দিয়ে পহেলা বৈশাখ কাঁটিয়ে দেব।

বরিশাল অবজারভার / হৃদয়

নতুন বছর মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে : প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট :

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশা প্রকাশ করেছেন, বাংলা নতুন বছর ১৪৩১ আমাদেরকে জঙ্গিবাদ, মৌলবাদ, উগ্রবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে। আগামীকাল (১৪ এপ্রিল) বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে এক বাণীতে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘শুভ নববর্ষ-১৪৩১। উৎসবমুখর বাংলা নববর্ষের এই দিনে আমি দেশবাসীসহ সকল বাঙালিকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।’ তিনি বলেন, ‘পহেলা বৈশাখ বাংলা সনের প্রথম দিন। এটি সর্বজনীন উৎসব। এদিন আনন্দঘন পরিবেশে বরণ করে নেওয়া হয় নতুন বছরকে। আবহমান কাল ধরে নববর্ষের এই উৎসবে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সমগ্র জাতি জেগে ওঠে নবপ্রাণ স্পন্দনে, নব-অঙ্গীকারে। সারা বছরের দুঃখ-জরা, মলিনতা ও ব্যর্থতাকে ভুলে বাঙালি রচনা করে সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য, আনন্দ ও ভালোবাসার মেলবন্ধন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বাঙালির চিরায়ত ঐতিহ্যে পহেলা বৈশাখ বিশেষ স্থান দখল করে আছে। বাংলা নববর্ষ পালনের সূচনা হয় মূলত মুগল সম্রাট আকবরের সময় থেকে। কৃষিকাজের সুবিধার্থে সম্রাট আকবর ‘ফসলি সন’ হিসেবে বাংলা সন গণনার যে সূচনা করেন, তা কালের পরিক্রমায় সমগ্র বাঙালির কাছে অসাম্প্রদায়িক চেতনার স্মারক উৎসবে পরিণত হয়েছে। পহেলা বৈশাখ বাঙালিয়ানার প্রতিচ্ছবি। এই উদ্যাপন আমাদের শেকড়ের সন্ধান দেয়, এর মধ্য দিয়ে খুঁজে পাওয়া যায় জাতিসত্তার পরিচয়।”

সরকারপ্রধান বলেন, ‘বাঙালির প্রতিটি ঘরে, জনজীবনে এবং আর্থসামাজিক সংস্কৃতিতে পহেলা বৈশাখ এক অনন্য উৎসব। পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে হালখাতার পাশাপাশি যাত্রাগান, পালাগান, পুতুলনাচ, অঞ্চলভিত্তিক লোকসংগীত, খেলাধুলাসহ বিভিন্ন পসরা নিয়ে মেলার বর্ণিল আয়োজনের মাধ্যমে যেমন লোকজ-সংস্কৃতি প্রাণ ফিরে পায় তেমনি দেশের অর্থনীতি তথা ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সমৃদ্ধ হয়, ব্যবসা-বাণিজ্যে গতি আসে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পহেলা বৈশাখ পূর্ণপ্রাণ নিয়ে অবারিতভাবে বেড়ে ওঠার বাতায়ন। এটি ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতিকে ধারণ ও লালন করতে শেখায়। অসাম্প্রদায়িকতার চর্চা ও অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পহেলা বৈশাখ আমাদের মনে আনে নতুন তেজ। এই কারণেই আমরা দুর্বার প্রতিরোধে রুখে দিতে পেরেছি পাকিস্তানি ঔপনিবেশিক অপশক্তিকে, যারা বাঙালির ঐতিহ্য নস্যাৎ করতে চেয়েছিল। তিনি বলেন, ‘আত্মপরিচয় ও স্বীয় সংস্কৃতির শক্তিতে বলিয়ান হয়ে আমরা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম মুক্তির সংগ্রামে। সংস্কৃতি ও রাজনীতির মিলিত স্রোতে পরিণত হয়েছিল স্বাধিকার ও স্বাধীনতার লড়াইয়ে। এভাবেই বিশ্বের বুকে অভ্যুদয় ঘটেছে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের।’

ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি লালনের মাধ্যমে বিশ্বসমাজে বাঙালি শ্রেষ্ঠ জাতি হয়ে উঠবে বলে আশা প্রকাশ করে শেখ হাসিনা বলেন, “এরই ধারাবাহিকতায় ইউনেস্কো ২০১৬ সালে পহেলা বৈশাখের ‘মঙ্গল শোভাযাত্রা’কে বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। নববর্ষের এই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি সারাবিশ্বের বাঙালির জন্য নিঃসন্দেহে বিরাট অর্জন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অসাম্প্রদায়িক, উদারনৈতিক, জাতীয়তাবাদী ও গণতন্ত্রের ভাবাদর্শে আজীবন যে সংগ্রাম করে গেছেন তার মূলমন্ত্র জাতিগত ঐতিহ্য ও অহঙ্কার। এ কারণেই  বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন এবং দেশ পুনর্গঠনে কাজ করেছে তার অভিন্ন চেতনা। আমরা বীরের জাতি, এ জাতিকে কেউ দাবিয়ে রাখতে পারবে না। কাল থেকে কালান্তরের পথ পরিক্রমায় বাঙালির অর্জন ও অগ্রগতি চির ভাস্বর হয়ে থাকবে, এ আমার দৃঢ় বিশ্বাস। তিনি বলেন, ‘সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ তথা উন্নত-সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে সক্ষম হব ইনশাআল্লাহ।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আসুন, আমরা বিগত বছরের গ্লানি, দুঃখ-বেদনা, অসুন্দর ও অশুভকে ভুলে গিয়ে নতুন প্রত্যয়ে, নতুন উদ্যমে সামনে এগিয়ে চলি। সুখী, শান্তিময়, আনন্দপূর্ণ বাংলাদেশ গড়ে তুলি। বাংলা নববর্ষ-১৪৩১ এই হোক আমাদের অঙ্গীকার। কবিগুরুর ভাষায়—

“মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা,

অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা।

রসের আবেশরাশি শুষ্ক করি দাও আসি,

আনো আনো আনো তব প্রলয়ের শাঁখ

মায়ার কুজ্ঝটিজাল যাক দূরে যাক।

এসো হে বৈশাখ এসো, এসো…

বরিশাল অবজারভার / হৃদয়

৪০ ডিগ্রিতে পৌঁছাল তাপমাত্রা

ডেস্ক রিপোর্ট :

আজ শনিবার (১৩ এপ্রিল)। দিনটি ছিল চৈত্রের শেষ। এদিন সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার হিসাব বলছে, দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা ছিল রাঙামাটিতে। এ ছাড়া, ছয় জেলার ওপর দিয়ে বইছে মৃদু থেকে মাঝরি তাপপ্রবাহ। আর সপ্তাহজুড়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে তাপমাত্রা বাড়তে পারে। কাল রোববার পয়লা বৈশাখের দিনও এই তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

৩৬ থেকে ২৭ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রাকে মৃদু তাপপ্রবাহ, ৩৮ থেকে ৩৯ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রাকে মাঝারি তাপপ্রবাহ এবং ৪০ থেকে ৪১ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রাকে তীব্র তাপপ্রবাহ বলে থাকে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সন্ধ্যায় এই অধিদপ্তর জানিয়েছে, আজ নীলফামারী, নেত্রকোনা জেলাসহ রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে গেছে।

আজ বান্দরবানে ৩৯ দশমিক ২ ডিগ্রি এবং চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। এ ছাড়া ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও তার ওপরে তাপমাত্রা ছিল পটুয়াখালীর খেপুপাড়া, কুষ্টিয়ার কুমারখালী, চুয়াডাঙ্গা, কক্সবাজার ও পাবনার ঈশ্বরদীতে। আর ঢাকায় আজ সর্বোচ্চ তাপমাত্রা উঠেছিল ৩৭ দশমিক ছয় ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বরিশাল অবজারভার / হৃদয়

জিম্মি নাবিকদের উদ্ধারের বিষয়টি চূড়ান্ত পর্যায়ে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট :
জলদস্যুদের কবল থেকে বাংলাদেশি জাহাজ ও জিম্মি নাবিকদের উদ্ধারের বিষয়টি চুড়ান্ত পর্যায়ে পৌছেছে। যেকোনো সময় তাঁদের ফিরিয়ে আনা হবে। তবে কৌশলগত কারণে দিনক্ষণ এখনই প্রকাশ করা হচ্ছে না বলে জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

আজ শনিবার (১৩ এপ্রিল) বিকেলে চট্টগ্রামের লালদীঘি ময়দানে ঈদ আনন্দ ও চাটগাইয়া উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন সোমালিয়ার জলদস্যুদের চেয়েও বিএনপি অনেক বেশি ভয়স্কর ।কারণ সোমালিয়ার জলদস্যুরা আমাদের নাবিকদের উপর কোনো নির্যাতন করেনি। তারা মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করেনি। কিন্তু বিএনপি মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করে আমীর খসরু মাহামুদের নেতৃত্বে। বিএনপি অনেক সময় সোমালিয়ার জলদস্যুদের চেয়েও অনেক বেশি ভয়স্কর।

বরিশাল অবজারভার / হৃদয়

বিএনপি মনগড়া তথ্য দিয়ে মিথ্যাচার করছে : কাদের

ডেস্ক রিপোর্ট :
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বাংলাদেশের সর্বস্তরের জনগণ যখন পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করছে, নিরাপদ ও আনন্দময় পরিবেশে প্রতিটি গৃহকোণ পরিবার-পরিজন নিয়ে উৎসবে মাতোয়ারা; ঠিক সে সময়ে বিএনপি তথাকথিত গুম-নির্যাতনের কাল্পনিক তথ্য দিয়ে বাংলাদেশের জনগণকে বিভ্রান্ত করছে।

আজ শনিবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুলের দেওয়া বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের গুম, হত্যার ঘটনা সর্বৈব মিথ্যা এবং দায়ের করা মামলার সংখ্যার তথ্য সম্পূর্ণ বানোয়াট। বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও নির্বাচনি প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করতে বিএনপির সকল ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হওয়ার পর তারা এখন মনগড়া তথ্য দিয়ে নির্লজ্জ মিথ্যাচার করছে।

বিবৃতিতে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, তথাকথিত গুম, খুন ও মামলার সংখ্যা নিয়ে বিদেশি প্রভুদের কাছ থেকে করুণা ও রাজনৈতিক সমর্থন লাভের আশায় বিএনপি নেতারা ধারাবাহিকভাবে সরকার বিরোধী এ অপপ্রচার চালাচ্ছে। মির্জা ফখরুল ইসলাম ঢালাওভাবে অপপ্রচার না চালিয়ে রাজনৈতিক কারণে তথাকথিত নিপীড়ন-নির্যাতনের কোনো ঘটনা ঘটলে সুনির্দিষ্ট তথ্যসহ বিএনপি নেতাদের সম্পূর্ণ তালিকা জনসম্মুখে প্রকাশ করুন। ঠাকুরগাঁওয়ে মারা যাওয়া যুবদলনেতা একজন স্থানীয়ভাবে চিহ্নিত মাদকসেবী এবং তার বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে একাধিক মামলা বিচারাধীন রয়েছে। কোনো প্রকার আইনের ব্যত্যয় ঘটলে সরকার গুরুত্ব সহকারে বিষয়টি খতিয়ে দেখবে। কিন্তু মির্জা ফখরুল একজন মাদকাসক্ত এবং মাদক ব্যবসায়ীর মতো একজন অপরাধীর স্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনাকে ‘বিরোধীদলের উপর সরকারের নির্যাতন’ এর অভিযোগ এনে অপপ্রচার চালিয়ে রাজনৈতিকভাবে ফায়দা নেওয়ার অপচেষ্টা চালাচ্ছেন।

বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি যখন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিল তখন ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট নারকীয় গ্রেনেড হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগকে সম্পূর্ণভাবে নিশ্চিহ্ন করার ষড়যন্ত্র চালায়। ২০০১ থেকে ২০০৬ সালে অপারেশন ক্লিন হার্টসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মাধ্যমে মোট ১ হাজার ২২৩ জন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীকে ক্রসফায়ার এবং পুলিশ হেফাজতে হত্যা করে। আওয়ামী লীগ প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না। আওয়ামী লীগ সরকার যেকোনো মূল্যে দেশে গণতন্ত্র, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় বদ্ধপরিকর।

বরিশাল অবজারভার / হৃদয়

ভাষানটেকে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ : এক নারীর মৃত্যু

ডেস্ক রিপোর্ট :
রাজধানীর মিরপুরের ভাষানটেকে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নারী-শিশুসহ একই পরিবারের ছয়জন দগ্ধ হওয়ার ঘটনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতের নাম মেহেরুন্নেসা (৬৫)।

আজ শনিবার (১৩ এপ্রিল) সকাল আটটার দিকে রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘গতকাল ভোরে মিরপুরের ভাষানটেক থেকে দগ্ধ অবস্থায় নারী-শিশুসহ ছয়জনকে বার্ন ইউনিটের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়। তাদের মধ্যে মেহরুন্নেসা চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ সকালে মারা যান। তার শরীরের ৪৭ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিল।’

ডা. তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘বাকিদের মধ্যে সূর্য বানু ৮২ শতাংশ, লামিয়া ৫৫ শতাংশ, মো. লিটন ৬৭ শতাংশ, লিজা ৩০ শতাংশ ও সুজন ৪৩ শতাংশ দগ্ধ নিয়ে চিকিৎসাধীন আছেন। দগ্ধের পরিমাণ বেশি হওয়ায় তাদের সবার অবস্থা আশঙ্কাজনক।’

গতকাল শুক্রবার ভোরে ভাষানটেক ১৩ নম্বর কালবার্ট রোড এলাকার একটি বাসায় এ ঘটনা ঘটে। মশার কয়েল ধরাতে গেলে গ‍্যাস সিলিন্ডারের লিকেজ থেকে এই বিস্ফোরণ হয় বলে জানা গেছে।

বরিশাল অবজারভার / হৃদয়

আজ থেকে ফের চালু মেট্রোরেল

ডেস্ক রিপোর্ট :
ঈদের দিন ও পরদিন বন্ধ থাকার পর আজ শনিবার (১৩ এপ্রিল) থেকে আবারও মেট্রোরেল চলাচল শুরু হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) ঈদুল ফিতর উদযাপিত হয়। আর শুক্রবার মেট্রোরেলের সাপ্তাহিক ছুটি। ফলে টানা দুই দিন ছিল মেট্রোরেল।

ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) উপব্যবস্থাপক নাজমুল ইসলাম ভূঁইয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী, আজ সকাল ৭টা ১০ মিনিটে প্রথম ট্রেন উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে মতিঝিলের উদ্দেশে রওনা করে। অপর একটি ট্রেন সকাল সাড়ে ৭টায় মতিঝিল থেকে উত্তরা উত্তর স্টেশনের উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

ডিএমটিসিএল সূত্রে জানা গেছে, রমজানের প্রথমার্ধে প্রতিদিন গড়ে মেট্রোরেলে দুই লাখ ৪৬ হাজার যাত্রী চলাচল করেছে। রমজানের আগে সংখ্যাটা ছিল দুই লাখ ৯৫ হাজারের মতো। ১৬ রমজান থেকে মেট্রোরেলের চলাচল এক ঘণ্টা বাড়ানোর পর যাত্রী আরও বেড়েছে। রমজানের শেষ সপ্তাহে গড়ে দুই লাখ ৯০ হাজার করে যাত্রী চলাচল করেছে।

বরিশাল অবজারভার /  হৃদয়

পদ্মার শাখা নদীতে গোসলে নেমে নিখোঁজ ৩, দুজনের মরদেহ উদ্ধার

ডেস্ক রিপোর্ট :
মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ি উপজেলার দীঘিরপাড় এলাকায় পদ্মার শাখা নদীতে গোসল করতে নেমে বাবা-ছেলেসহ ৩ জন নিখোঁজ হন। এরপর রিয়াদ আহমেদ রাজু ও ব্যাংক কর্মকর্তা মোহাম্মদ জুয়েল নামে দুজনের মরদেহ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল।  আজ শুক্রবার (১২ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮টার দিকে ঘটনাস্থলের কাছ থেকেই তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এখানও নিখোঁজ রয়েছেন নিহত রিয়াদ আহমেদ রাজুর ছেলে রামিন আরিদ (১৬)। তাদের বাড়ি ঢাকার মোহাম্মদপুরে সলিমুল্লাহ রোডে।

এ ঘটনায় নিহত মোহাম্মদ জুয়েল রানা ঢাকা ব্যাংকের গুলশান শাখায় কর্মরত ছিলেন বলে জানা গেছে।

পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা জানায়, তারা ওই উপজেলার বেসনাল এলাকায় তাদের স্বজন আলম মোল্লার বাড়িতে বেড়াতে আসেন। পরে আজ বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ট্রলারে করে ৩০-৩৫ জন মিলে দীঘিরপাড় ইউনিয়নের  ধানকোড়া এলাকায় পদ্মার শাখা নদীতে ঘুরতে বের হয়। এ সময় তারা বেশ কয়েকজন ট্রলার থেকে লাফিয়ে গোসল করতে নামে।

গোসল করার সময় রামিন নদীর স্রোতের তোড়ে ভেসে যেতে থাকলে তার বাবা ও খালু তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে তারাও স্রোতের তোড়ে ভেসে গিয়ে নিখোঁজ হন।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে মুন্সীগঞ্জ সদর ও টঙ্গিবাড়ি উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের টিম ও নৌপুলিশ। পরে ঢাকা থেকে ডুবুরিদল এসে উদ্ধার কাজে যোগ দেয়।

টঙ্গিবাড়ি ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ মোস্তফা কামাল জানান, সংবাদ পেয়ে আমাদের টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। ঢাকা থেকে প্রশিক্ষিত ডুবুরিদল ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধার কাজ শুরু করে। পরে দুজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এখনও নিখোঁজ রয়েছে একজন।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার চর আব্দুল্লাহ নৌফাঁড়ির ইনচার্জ আবুল হাসনাত জানান, ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিস ও নৌপুলিশ উদ্ধার কাজ অব্যাহত রেখেছে।

বরিশাল অবজারভার  / হৃদয়

সদরঘাটে লঞ্চের দড়ি ছিঁড়ে নিহতের ঘটনায় গ্রেপ্তার পাঁচজন রিমান্ডে

ডেস্ক রিপোর্ট :
রাজধানীর সদরঘাটে লঞ্চের রশি ছিঁড়ে পাঁচজনের মৃত্যুর ঘটনায় গ্রেপ্তার পাঁচ আসামিকে তিনদিন করে রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। আজ শুক্রবার (১২ এপ্রিল) ঢাকার জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আরিফা চৌধুরী হিমেল এই আদেশ দেন।

আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) আনোয়ারুল কবির বাবুল এনটিভি অনলাইনকে বিষয়টি জানিয়ে বলেন, ঢাকার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আজ পাঁচ আসামিকে হাজিরের পর সাত দিন করে রিমান্ডের আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদরঘাট নৌ-থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নকীব অয়জুল হক। আবেদনের প্রেক্ষিতে বিচারক তিন দিন করে রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন।

পিপি আরও বলেন, রিমান্ডকৃতরা হলেন, তাসরিফ-৪ লঞ্চের প্রথম শ্রেণির মাস্টার মো. মিজানুর রহমান (৪৮), দ্বিতীয় শ্রেণির মাস্টার মো. মনিরুজ্জামান (২৭), এম ভি ফারহান-৬ লঞ্চের প্রথম শ্রেণির মাস্টার মো. আবদুর রউফ (৫৪), দ্বিতীয় শ্রেণির মাস্টার মো. সেলিম হাওলাদার (৫৪) ও ম্যানেজার মো. ফারুক খান (৭০)।

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়েছে, আসামিরা লঞ্চের মালিকের পক্ষে অবৈধভাবে অধিক লাভবানের আশায় অতিরিক্ত ট্রিপ মারার জন্য বেপরোয়া ও দ্রুতগতিতে লঞ্চ চালিয়ে পাঁচজনের মৃত্যু ঘটিয়েছে। এমতাবস্থায় এই মামলায় আরও চার/পাঁচজন আসামি পলাতক রয়েছে। এই পলাতক আসামিদের খুঁজতে, মূল ঘটনা নির্ণয় ও এই ঘটনার পিছনে কারও ইন্ধন আছে কি না তা উদঘাটনের লক্ষ্যে সাতদিনের রিমান্ডে নেওয়া আবশ্যক।

নথি থেকে জানা গেছে, গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টার দিকে সদরঘাট ১১ নং পন্টুনের সামনে এমভি তাশরিফ ৪ নামে একটি লঞ্চ ও এমভি পূবালী-১ নামে আরও একটি লঞ্চ রশি দিয়ে পন্টুনে বাঁধা ছিল। এ দুটি লঞ্চের মাঝখান দিয়ে ফারহান নামে আরেকটি লঞ্চ ঢুকানোর সময় এমভি তাসরিফ-৪ লঞ্চের রশি ছিঁড়ে গেলে পাঁচ যাত্রী লঞ্চে ওঠার সময় মা-সন্তানসহ গুরুতর আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতরা হলেন মো. বেল্লাল (৩০), তার স্ত্রী মুক্তা (২৪) এবং তাদের চার বছর বয়সী মেয়ে মাইশা। নিহত অপর দুজন হলেন ঠাকুরগাঁওয়ের রবিউল (১৯) ও পটুয়াখালীর রিপন হাওলাদার (৩৮)।

এ ঘটনায় অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগ এনে বিআইডব্লিউটিএ বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার রাতে দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করে (মামলা নং ২৯)।

বরিশাল অবজারভার / হৃদয়