সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৫:৫০ অপরাহ্ন

banner728x90

বরগুনার রিফাত হত্যায় চার চিকিৎসকের সাক্ষ্যগ্রহণ

বরগুনার রিফাত হত্যায় চার চিকিৎসকের সাক্ষ্যগ্রহণ

বরগুনার বহুল আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় চার চিকিৎসকের সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামানের আদালতে তাদেরও জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। এদিন আসামি পক্ষের আইনজীবিরা কাউকে জেরা করেন নি।

 

বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ভবন চন্দ্র হাওলাদার বলেন, বিজ্ঞ আদালতে আজ (বৃহস্পতিবার) ডা. হাসাইন ইমাম, ডা. এস এম মাইদুল ইসলাম, ডা. সোহেলী মঞ্জুর তন্নি ও ডা. মোহাম্মদ জামিল হোসেনের সাক্ষ্যগ্রহণ হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, জেলা ও দায়রা জজ আদালতে এখন পর্যন্ত ৬৯ জন স্বাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ ও জেরা সম্পন্ন হয়েছে। এদিন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে কোন স্বাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ হয়নি।

সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে ডা. মাহাম্মদ জামিল হোসেন বলেন, আমি ২৭ জুন সকাল ১১-২০ মিনিট সময় আমার সহকারী ডা. এস এম মাইদুল ইসলাম, ও ডা, সোহেলী মঞ্জুর তন্নিকে নিয়ে বরিশাল শের ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিহত রিফাত শরীফের লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন করি।

আমরা যখন রিফাত শরীফের ময়না তদন্ত করি তখন তার শরীরে ৫টি কোপের চিহ্ন পাই। ওই কোপের কোন সেলাই ছিল না। আরও অনেক গুলো কাটা জখম পাই। সেগুলো সেলাই করা। রিফাত শরীরের সব চেয়ে বড় কাটা জখম পাই ডান পাশের ঘাড়ে। যার দৈর্ঘ্য ছিল ৭ সেমি, পাশ ৪ সেমি ও গভীরতা ৩ সেন্টিমিটার। ওই জখমে ৬টি সেলাই ছিল।

তিনি আরও বলেন, ঘাড়ের প্রধান ভেইন বা রগ কেটে যাওয়ার ফলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের ফলে রিফাত মারা যায়। ময়না তদন্তের অন্য দুইজন ডাক্তার একই কথা বলেন।

ডা. হাসাইন ইমাম বলেন, আমি ২৬ জুন বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে জরুরী বিভাগে কর্মরত ছিলাম। ওইদিন সকাল অনুমান ১০-২৫ মিনিট সময় একটি ছেলে আহত অবস্থায় হাসপাতালে আসে। সমস্ত শরীর দিয়ে রক্ত ঝরছে। আমি পরীক্ষা করে দেখলাম তার যে জখম সেই চিকিৎসা বরগুনায় নেই। আমি দ্রুত বরিশাল প্রেরণ করি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

banner728x90




© All rights reserved by barishalobserver.Com
Design & Developed BY AMS IT BD