সমাবর্তনের দাবীতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক: 

সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো সমাবর্তনের দাবিতে রাজধানীর শাহবাগে মানববন্ধন করেছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল শিক্ষার্থী। এ সময় শিক্ষার্থীদের প্ল্যাকার্ডে ‘কালো গাউন পরার ইচ্ছে আমাদেরও হয়’, ‘আমাদেরও ইচ্ছে হয় টুপি-গাউন জড়িয়ে ছবি তুলতে’, ‘গাউন গাঁয়ে জড়িয়ে মুখে এক চিলতে হাসি রেখে সেলফি তুলতে’-প্রভৃতি স্লোগান দেখা গেছে।

পাঁচ দফা দাবিতে শনিবার দুপুরে শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে ‘জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ঐক্য পরিষদ’ এর ব্যানারে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।
দাবিগুলো হচ্ছে:
প্রথমত, প্রতিবছর নিয়মতান্ত্রিকভাবে সমাবর্তন আয়োজন করতে হবে। দ্বিতীয়ত, কলেজগুলোতে সরকার নির্ধারিত ফি এর অতিরিক্ত আদায় করা যাবে না। তৃতীয়ত, সব বিভাগে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক ব্যবহারিক কোর্স এবং গবেষণাগার চালু করতে হবে। চতুর্থত, মান সম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে শিক্ষক ও ক্লাসরুম সংকট দূর করতে হবে। পঞ্চমত, কলেজগুলোকে শুধু একসনদ প্রাপ্তির কেন্দ্র না করে সংস্কারের মাধ্যমে কর্মমুখী শিক্ষা পদ্ধতি চালু করতে হবে।

মানববন্ধনে তেজগাঁও কলেজ ও সিদ্ধেশ্বরী কলেজসহ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়তাধীন ঢাকার বিভিন্ন কলেজের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

পদ্মা সেতুতে বসছে ২২তম স্প্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক:

পদ্মাসেতুর ২২তম স্প্যান সেতুর ৫ ও ৬ নম্বর পিলারের উপর বসানোর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। কারিগরি কোনো সমস্যা দেখা না দিলে কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই স্প্যানটি বসানো সম্ভব হবে।

মাওয়া প্রান্তের এই দুই পিলারের উপর স্থায়ীভাবে স্প্যানটি বসলে দৃশ্যমান হবে সেতুর ৩ হাজার ৩০০ মিটার। ২১তম স্প্যান বসানোর নয় দিনের মাথায় বসতে যাচ্ছে ২২তম স্প্যানটি। ২২তম স্প্যানটি ২৫ জানুয়ারি বসানোর কথা থাকলেও সেদিন চীনা নববর্ষের কারণে তা দুইদিন এগিয়ে নেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল পৌনে ৯টায় মুন্সীগঞ্জের মাওয়া কুমারভোগ কন্সট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে ধূসর রঙয়ের ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্য ও তিন হাজার ১৪০ টন স্প্যানটিকে বহন করে রওয়ানা করে ৩ হাজার ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার ‘তিয়ান-ই’ ভাসমান ক্রেন। সকাল সোয়া ৯টায় নির্ধারিত পিলারের সামনে এসে পৌঁছায় ক্রেনটি।

পদ্মাসেতুর প্রকৌশল সূত্র জানায়, বর্তমানে স্প্যান বহনকারী ক্রেনটি পজিশনিং করে নোঙর করার প্রস্তুতি চলছে। নির্ধারিত দুই পিলারের মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থান নিয়ে ইঞ্চি ইঞ্চি মেপে তোলা হবে পিলারের উচ্চতায়। রাখা হবে দুই পিলারের বেয়ারিং এর উপর। এরপর পাশের স্প্যানের একটি অংশের সঙ্গে ঝালাই করা হবে।

৬ দশমিক ১৫ দৈর্ঘ্যের দ্বিতল সেতুটি কংক্রিট ও স্টীল দিয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে। চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না রেলওয়ে মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানি লিমিটেড মূল সেতু নির্মাণের কাজ করছে।

ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে গুলি করে আত্মহত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজধানীর মিরপুর-১৪ নম্বরে নিজের ইস্যু করা অস্ত্র দিয়ে শাহ মো. কুদ্দুস (৩১) নামে এক পুলিশ সদস্য নিজের বুকে গুলি চালিয়ে আত্মাহত্যা করেছেন। তার গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জের মাধবপুরের বহরা রসুলপুরে। আজ বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে মিরপুর-১৪ নম্বর পুলিশ লাইন মাঠে এ ঘটনা ঘটে।

কাফরুল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিমউজ্জামান গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, তিনি মিরপুর-১৪ নম্বর ব্যারাকে থাকতেন, পদবি ছিলো নায়েক। শাহ মো. কুদ্দুস হবিগঞ্জের মাধবপুর এলাকার বাসিন্দা।

কুদ্দুস ফেসবুকে লিখেছেন, ‘আমার মৃত্যুর জন্য কাউকে দায়ী করবো না। আমার ভেতরের যন্ত্রণাগুলো অনেক বড় হয়ে গেছে। আমি আর সহ্য করতে পারছি না।’

স্ট্যাটাস প্রসঙ্গে ওসি জানান, তার ফেসবুক স্ট্যাস্টাসের কথা আমরা শুনেছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে।

 

বরগুনায় ওরশ থেকে ডেকে নিয়ে কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ

বরগুনা:
বরগুনার বেতাগীতে ওরশ মাহফিল থেকে ডেকে নিয়ে তিন বন্ধু মিলে এক কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গত মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার হোসনাবাদ ইউনিয়নের মীরা বাড়ি সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী জানা গেছে, উপজেলার হোসনাবাদ ইউনিয়নের জলিসা বাজার সংলগ্ন মীরা বাড়িতে গত মঙ্গলবার রাতে ওরশ আয়োজন ছিল। ওরশ মাহফিলে ওই এলাকায় ধর্ষণের শিকার হওয়া কিশোরীটি যায়।

রাত সাড়ে ৮টার সময় কিশোরীকে কথা আছে বলে কৌশল করে একই এলাকার বারেক হাওলাদারের ছেলে নাইম হোসেন (১৮) ডেকে নিয়ে যায়।

এ সময় নাইমের কাছাকাছি অবস্থান করছিল একই এলাকার অপর দু‘ বন্ধু মোতালেব হাওলাদারের ছেলে সাগর হাওলাদার (১৭) ও নুরুল হকের ছেলে নাইম (১৯) এ বন্ধু একত্রিত হয়ে কিশোরীকে বাগানের মধ্যে নিয়ে যায়।

এ সময় কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। রাত ৯ টায় কিশোরীর মা খোঁজ নিয়ে দেখেন তাঁর মেয়ে ওরশ অনুষ্ঠানে নেই এবং বাড়িতেও আসে নাই। এসময় বেশ কিছু লোকজন মিলে কিশোরীকে খোজাঁখুজি করে।

এক পর্যায়ে লাইটে আলো দেখে ধর্ষক ৩ বন্ধু পালিয়ে যায়। কিশোরীর স্বজনারা অজ্ঞান তাকে উদ্ধার করে। কিছুক্ষন পরে জ্ঞান ফিরে এলে কিশোরী তাঁর মাকে ওই পাশবিক ঘটনার বর্নণা দেয়।

কিশোরীর মা হামিদা বেগম বাদী হয়ে ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত ওই ৩ জনকে আসামী করে গতকাল বুধবার (২২ জানুয়ারি) বেতাগী থানায় মামলা করেন।

বেতাগী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. কামরুজ্জামান মিয়া বলেন, ‘এ ঘটনায় নারী নির্যাতনের আইনে তিন জনকে আসামী করে মামলা রুজু হয়েছে । আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’

চিরনিদ্রায় শায়িত এমপি ইসমাত আরা সাদেক

নিজস্ব প্রতিবেদক:

গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় এমপি ইসমাত আরা সাদেককে চিরবিদায় জানালেন কেশবপুরবাসী। বুধবার কেশবপুর পাবলিক ময়দানে প্রয়াত এমপির কফিনে শেষশ্রদ্ধা জানান হাজারো মানুষ।

প্রথমে তার কফিনে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য পিযুষ কান্তি ভট্টাচার্য ও সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হোসেন। এরপর একে একে শ্রদ্ধা জানান- খুলনা বিভাগীয় কমিশনার আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, সাধারণ সম্পাদক শাহিন চাকলাদার, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ, পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন পিপিএম, যশোর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল, কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী রফিকুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুসরাত জাহান, কেশবপুর থানার ওসি আবু সাঈদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিন ও সাধারণ সম্পাদক গাজী

গোলাম মোস্তফা, কেশবপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আশরাফ উজ জামান খান ও সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসাইন, কেশবপুর ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি কবির হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল ফুয়াদ, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক বিশ্বাস শহীদুজ্জামান শহীদ, ইউপি চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

সকাল ১১ টা ১৫ মিনিটে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিশেষ হেলিকপ্টারে করে ইসমাত আরা সাদেকের মরদেহ কেশবপুর সরকারি কলেজ মাঠে আনা হয়। সেখান থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে তার মরদেহ কেশবপুর পাবলিক ময়দানে এনে রাখা হয়। এ সময় ইসমাত আরা সাদেকের মেয়ে নওরিন সাদেক ও ছেলে ড. তানভীর সাদেক মায়ের জন্য দোয়া চেয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বাদ জোহর তার তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা পড়ান উপজেলা মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুল জলিল। জানাজায় কেন্দ্রীয়, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী, প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ হাজারো মানুশ অংশ নেন।

বেলা ১টা ৫৫ মিনিটে ইসমাত আরা সাদেকের মরদেহবাহী হেলিকপ্টার তার বাবার বাড়ি বগুড়ার সাতানি গ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। বিকেল তিনটায় হেলিকপ্টারটি সাতানি গ্রামে পৌঁছায়। সেখানে পরিবারের সদস্যরা ছাড়া আওয়ামী লীগ ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তার কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর বাদ আসর সাতানি গ্রামের তার বাড়ির মসজিদ চত্বরে জানাজা শেষে বাবা পুটু মিয়ার কবরের পাশে মরদেহ দাফন করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- মরহুমার ছেলে ড. তানভির সাদেক, চাচাতো ভাই শাহনেওয়াজ রহমান, জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহম্মেদ, পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঞা, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসাদুর রহমান দুলু, যুবলীগ নেতা শুভাশিষ পোদ্দার লিটন প্রমুখ।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টায় রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী প্রয়াত এএসএইচকে সাদেকের সহধর্মিণী ইসামত আরা সাদেক। তিনি ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম সংসদ নির্বাচনে প্রথম নারী হিসেবে যশোর-৬ (কেশবপুর) আসন থেকে আওয়ামী লীগের টিকিটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর প্রধানমন্ত্রী তাকে প্রথমে গণশিক্ষা ও পরে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী করেন। ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনে আবারও যশোর-৬ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন ইসামত আরা সাদেক।

পটুয়াখালীতে মাটির নিচ থেকে নববধূর লাশ উদ্ধার, স্বামী পলাতক

পটুয়াখালীতে বিয়ের ২১ দিনের মাথায় চম্পা বেগম নামের এক নববধূকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার পর মাটিতে পুতে রাখার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে। ঘটনার পর স্বামী ও তার প্রথম স্ত্রী পলাতক রয়েছে।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে কলাপাড়ার চাকামইয়া ইউনিয়নের গামরবুনিয়া বিল থেকে মাটি চাপা অবস্থায় ওই নারীর লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।
কলাপাড়া থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম জানান, গত ১লা জানুয়ারি বরগুনা জেলার তালতলী উপজেলার কলারাম গ্রামের চান মিয়ার মেয়ে চম্পা বেগম (৩২) কে দ্বিতীয় বিবাহ করেন পূর্ব চাকামইয়া গ্রামের কাদের হাওলাদারের ছেলে কৃষক বাবুল হাওলাদার। স্বামী ও প্রথম স্ত্রী পলাতক থাকায় ধারণা করা হচ্ছে দাম্পত্য কলহের জেরে চম্পাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ মাটি চাপা দেয়া হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পেলেই আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে বলেও জানান ওসি।

প্রথমবারের মতো বরিশাল জিলা স্কুলের তৃতীয় ও ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নবীন বরণ

মোঃ শাহাজাদা হীরা:
হে নবীন এসো আলোর মিছিলে এই স্লোগান নিয়ে আজ ২২ জানুয়ারি বুধবার সকাল ১১ টায়। বরিশাল জিলা স্কুলে এর আয়োজনে, জিলা স্কুল প্রাঙ্গনে বরিশাল জিলা স্কুলের আয়োজনে তৃতীয় ও ৬ষ্ঠ শ্রেণির নতুন ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের নবীন বরণ ২০২০ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক বরিশাল এস, এম, অজিয়র রহমান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্বকরেন প্রধান শিক্ষক বরিশাল জিলা স্কুল বিশ্বনাথ সাহা। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা শিক্ষা অফিসার বরিশাল মোঃ আনোয়ার হোসেন, এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জেলা প্রশাসকের কার্যালয় বরিশাল সুব্রত বিশ্বাস দাস, প্রভাতি শাখার প্রধান শিক্ষক, হিরো রোকসানা, দিবা শাখার সহকারী শিক্ষক, এ কে এম কামরুল আলম চৌধুরীসহ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। শুরুতেই নবীন শিক্ষার্থীদের ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়ে তাদের বরণ করে নেয়া হয়।

 

বরন শেষে অতিথিবৃন্দরা নবীন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে জীবন গঠনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বক্তব্য প্রদান করেন। পরে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

রাজধানীতে ফিল্মি স্টাইলে ছিনতাই (ভিডিও সহ)

অনলাইন ডেস্ক:
৩৪ সেকেন্ডেই ছিনতাই! অনেকটা বাজ পাখির মতোই। তাও দুই দফায়। প্রকাশ্য দিবালোকে প্রথমে ছিনতাইকারীরা ছিনিয়ে নেয় ভুক্তভোগী নারীর ভ্যানিটি ব্যাগ। দ্বিতীয় দফায় শরীর তল্লাশি করে নেয়া হয় তার গলার চেইনসহ স্বর্ণালংকার। ঘটনাটি রাজধানীর উত্তরা ৫ নম্বর সেক্টরের ৩ নম্বর সড়কের।

গত শনিবার সকাল ৭টা ৫৭ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড। রাজধানীর উত্তরা ৫ নম্বর সেক্টরের ৩ নম্বর সড়ক। শৈত প্রবাহ এবং তীব্র শীতের কারণে বেশ কিছুদিন সূর্যের দেখা না মিললেও ওইদিন রোদের দেখা পেয়েছিল রাজধানীবাসী। রিকশায় করে অন্যদিনের মতো কর্মক্ষেত্র ৩ নম্বর সেক্টরে যাচ্ছিলেন এক স্কুল শিক্ষিকা। হঠাৎ করেই পেছন থেকে আসা একটি মোটরসাইকেল রিকশার গতিরোধ করে। লাল-কালো রংয়ের পালসার ব্র্যান্ডের ওই মোটরসাইকেলকে হেলমেট পরিহিত দুইজন আরোহী। কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই মুখ খোলা হেলমেট পরিহিত এক ব্যক্তি ছুটে আসে রিকশায় বসে থাকা ওই শিক্ষিকার দিকে। শরীরে ছুরি স্পর্শ করে ‘ছোঁ’ মেরে কেড়ে নেয় ওই শিক্ষিকার হাতে থাকা ভ্যানিটি ব্যাগ। নির্বাক দৃষ্টিতে অসহায়ের মতো তাকিয়ে থাকে রিকশাওয়ালা। প্রথম দফায় ভ্যানিটি ব্যাগ নিয়ে গেলেও সন্তুষ্ট হতে পারেনি ছিনতাইকারীরা। মোটরসাইকেলে উঠলেও আবার নেমে আসে ওই ছিনতাইকারী। দ্বিতীয় দফায় আবারও ছুরি ঠেকায় ওই শিক্ষিকার শরীরে। এবার হিজাব পরিহিত ওই শিক্ষিকার হিজাব সরিয়ে গলা থেকে স্বর্ণের চেইন এবং হাতে থাকা চুড়ি ছিনিয়ে নেয় অনেকটা ফিল্মি স্টাইলে। ৭ টা ৫৮ মিনিট ২২ সেকেন্ডে ৩৪ সেকেন্ডের ছিনতাই অপারেশন শেষ করে নির্বিঘ্নে পালিয়ে যায় ওই দুর্বৃত্তরা। ভয়ে কিছু সময় হাউমাউ করে কাঁদতে থাকেন ওই শিক্ষিকা। স্কুলে না গিয়ে পুণরায় বাসায় ফিরে আসেন। ওইদিনই এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষিকার পক্ষে উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তার স্বামী রহুল আমিন।

মঙ্গলবার রুহুল আমিন বলেন, ওই দিনের দৃশ্য আমার স্ত্রী কোনভাবেই ভুলতে পারছে না। মাঝেমাঝেই ভয়ে আঁতকে উঠছে।

মঙ্গলবার পর্যন্ত ওই ঘটনার কোন অগ্রগতি আছে কি না জানতে চাইলে উত্তরা (পশ্চিম) থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তপন চন্দ্র সাহা  বলেন, আমি বিষয়টি সম্পর্কে এখনো অবগত নই। তবে খোঁজ নিয়ে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

 

 

মাঘের শীতে কাবু উত্তরের জনপদ

নিউজ ডেস্ক:

মাঘের শীতে কাবু হচ্ছে উত্তরের জনপদ। কয়েকদিন শীতের স্বাভাবিক অনুভূতি বিরাজ করার পর ফের শুরু হয়েছে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ। কোনো কোনো এলাকায় এক দিনের ব্যবধানেই রাতের পারদ কমে গেছে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দিনের পারদও নেমেছে ১৪ ডিগ্রিতে।

মঙ্গলবার তেঁতুলিয়া, শ্রীমঙ্গলসহ দেশের ১৬টি অঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে যায় মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ। এদিন দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল তেঁতুলিয়ায়, ৭.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শ্রীমঙ্গলে ছিল ৭.৬ ডিগ্রি, যা মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বলে বিবেচিত। আরও ১৪টি অঞ্চলের ওপর দিয়ে মঙ্গলবার বয়ে যায় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। বুধবার শীতের তীব্রতা আরও বৃদ্ধি পেয়ে শৈত্যপ্রবাহ নতুন নতুন এলাকায় বিস্তৃত হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

রংপুর বিভাগসহ রাজশাহী, ঈশ্বরদী, বগুড়া, বদলগাছী, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, টাঙ্গাইল, মাদারীপুর, ময়মনসিংহ অঞ্চলের ওপর দিয়ে মঙ্গলবার শৈত্যপ্রবাহ বয়ে গেছে। শ্রীমঙ্গলে রাতের পারদ নেমেছিল ৭.৬ ডিগ্রিতে, এক দিন আগেও এখানে রাতের তাপমাত্রা ছিল ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আশপাশের জেলাগুলোতে রাতের তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রিতে নেমে এলেও ঢাকায় গতকাল সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে উত্তর-পশ্চিমের বাতাস ঘণ্টায় ১২ কিলোমিটার পর্যন্ত গতিতে ধেয়ে আসায় বিকেল থেকে কনকনে ঠান্ডা অনুভূত হয় রাজধানীতে। এখানে মঙ্গলবার দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৩.৭ ডিগ্রি।

আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান বলেন, দিনের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকবে। তবে রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে। শৈত্যপ্রবাহ আরও কয়েকটি অঞ্চলে বিস্তৃত হতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে।

চলতি মৌসুমে ইতোমধ্যে কয়েকটি শৈত্যপ্রবাহে কাবু হয়েছে দেশ। পৌষের শেষদিকে ইটপাথরে ঘেরা রাজধানীতেই দিনের তাপমাত্রা নেমে আসে ১৭ ডিগ্রিতে। তবে মাঘের শুরু থেকে শীতের তীব্র অনুভূতি হারিয়ে যায়। মাসের সপ্তম দিনে এসে মাঘের শীতের আসল অনুভূতি মিলছে। তবে এতে উত্তরাঞ্চলসহ বিভিন্ন এলাকার ছিন্নমূল, খেটে খাওয়া ও নিম্ন আয়ের মানুষ বেকায়দায় পড়েছেন।

পঞ্চগড় প্রতিনিধি জানান, টানা কয়েকদিন উত্তরাঞ্চলে দিন ও রাতের তাপমাত্রা বাড়তি থাকলেও ফের মাঝারি শৈত্যপ্রবাহে কনকনে শীত শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল তেঁতুলিয়ায়। তেঁতুলিয়া আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ রহিদুল ইসলাম জানান, সকাল থেকে ঘন কুয়াশা আর হিমেল হাওয়ায় তীব্র ঠান্ডার অনুভূতি বিরাজ করছিল। এতে জনজীবনে স্থবিরতা নেমে আসে। হাড় কাঁপানো শীতের কারণে আবারও দুর্ভোগে পড়েছেন নিম্ন আয়ের শ্রমজীবী মানুষ।

পৌরসভার মিঠাপুকুর এলাকার দিনমজুর আইবুল ইসলাম বলেন, প্রতিদিন সকাল সকাল বাড়ি থেকে বের হতে না পারলে কাজ পাওয়া যায় না। শীতের জন্য বাড়ি থেকে বের হতে দেরি হয়। এ জন্য ঠিকমতো কাজ পাওয়া যায় না।

বাংলাদেশ ডিভোর্স ক্লাবের জমকালো মিলনমেলা অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার:
ব্যতিক্রম এক জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে আত্মপ্রকাশ ঘটলো বাংলাদেশ ডিভোর্স ক্লাবের। গত ১৭ জানুয়ারী শুক্রবার ফ্লেভার্স মিউজিক ক্যাফে,ধানমন্ডিতে বাংলাদেশ ডিভোর্সড ক্লাব আয়োজিত এক  জমকালো মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনটির নেতৃত্বে রয়েছেন সুমাইয়া হামিদ ও শাহাদাত হোসেন রনি।

তালাকপ্রাপ্ত -বিধবা ও বিপত্নীক নারী এবং পুরুষরাই এই সংগঠনের সদস্য হতে পারবেন। প্রাথমিকভাবে সংগঠনটির কার্যক্রম শুরু হয় ফেসবুকের অনলাইন পেইজ থেকে।

একাকী জীবনের কষ্ট যেন তাদের পেয়ে না বসে সেজন্য সংগঠন হতে মানসিক বিকাশ সাধনের জন্য বিভিন্ন কর্ম পরিকল্পনা গ্রহণ করাই এ সংগঠনের উদ্দেশ্য।দেশের বিভিন্ন জেলা শহর এবং দেশের বাইরে হতেও সংগঠনের সদস্যবৃন্দ  অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।সংগঠনের কার্যক্রম যেন দ্রুততার সাথে এগিয়ে নেয়া যায় সেজন্য দিপালী দিকস্টা আর্থিকভাবে সহায়তা করেন।

শিশুদের চিত্রাংকন,গান এবং উন্মুক্ত কবিতা পাঠের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয় ।