আবার দেখা …

আজ আমি তোমার চোখে জল দেখিনি
আমার জন্য ভালবাসা আর অনুতাপ দেখেছি।
কই এতটা ভালবাসো আগে কখনো বলোনিতো!!

তোমায় বলেছিলাম ছেলেপক্ষ আমায় দেখতে আসবে
আমি তোমার মুখ থেকে কিছু শোনায় জন্য ঠায় তাকিয়ে ছিলাম।
নিথর হয়ে বসেছিলে, একটি কথাও বলোনি।

ওরা আমায় দেখতে এসেছিল,
হাতে টাকা গুজে দিয়ে বলে গেছে,
ভারি মিষ্টি দেখতে, মেয়ে আমাদের পছন্দ হয়েছে।

১১তারিখ বিয়ের দিন উপস্থিত হল;
সকাল থেকে শুধু তোমার মুখটাই চোখের সামনে ভেসে উঠছিল,
তুমি বলেছিলে আমায় বউ সাজে দেখবে!
বিয়েতে তো দাওয়াত দেইনি, তবুও বিদায় ক্ষনে এসো
জলদি এসো, নয়তো বিয়ের সাজ বদলে যাবে।

সেই তো এলে তবে এত দেরি করলে কেন?
কেঁদোনা আর আবার দেখা হবে ওপারে …

কবিঃ জোবায়দা তালুকদার

মেয়েকে হত্যা করে জামাইকে নিয়ে পালাল শাশুরি

বাউফল প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর বাউফলের বহুল আলোচিত চাঞ্চল্যকর ঘটনা নিজ মেয়েকে হত্যা করে জামাইকে নিয়ে পলায়ন করার ঘটনায় অভিযুক্ত শাশুরি নার্গিস আক্তারকে গ্রেফতার করেছে বাউফল থানা পুলিশ। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত ৩মে -১৮ইং পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নে নিজ মায়ের সঙ্গে স্বামীর অনৈতিক সম্পর্ক দেখে ফেলে মেয়ে মালা (২০)। এরপর মেয়ে মালাকে বিষ পান করিয়ে হত্যা করে স্বামী ও নিজ মা। অবস্থা বেগতিক দেখে মা নার্গিস বেগম এবং স্বামী মামুন একত্রে পলায়ন করে। এই ঘটনায় মৃতার (মালা) বোন লিপি আক্তার বাদী হইয়া বাউফল থানায় মামলা দায়ের করে। বুধবার (৪ জুলাই) মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই রিপন হালদার অভিযুক্ত শাশুরি নার্গিস বেগমকে গ্রেফতার করে। এসময় মৃতার একমাত্র পূত্র সন্তান মোস্তাফিজ (২) কে উদ্ধার করা হয় বাউফল থানা অফিসার ইনচার্জ মনিরুল ইসলাম বলেন, অভিযুক্ত নার্গিস বেগমকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। মামলার অন্য আসামী মামুন এখনও পলাতক।তাকে গ্রেফতারের চেস্টা অব্যাহত আছে।

 

বাউফলে স্কুল শিক্ষার্থীদের মাঝে টিফিন বক্স বিতরণ

বাউফল প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলার ১৫৫নং মধ্য কালাইয়া সরকারি প্রাথমিকি বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল বাস্তবায়ন উপলক্ষে মায়ের হাতে টিফিন বক্স বিতরণ অনুষ্ঠান-২০১৮  অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এসময় বিদ্যালয়ের শিশু থেকে পঞ্চম শ্রেনী পযর্ন্ত মোট ১৩২ জন ছাত্র-ছাত্রীর মাঝে টিফিন বক্স বিতরন করা হয় ।

টিফিন বক্স বিতরনী অনুষ্ঠানে বিদ্যালয়-এর সভাপতি একেএম আমিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন কালাইয়া ইউপি চেয়ারম্যান এস এম ফয়সাল অাহম্মেদ ।

বিশেষ অতিথি ছিলেনে বিদ্যালয়-এর প্রধান শিক্ষিকা রেহেনা বেগম। ৪নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মোঃ কামাল হোসেন মৃধা ।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আবু তাহের ।

এসময় বিদ্যালয়ের শিক্ষক- শিক্ষিকাবৃন্দ, ম্যানেজিং কমিটির সদস্যবৃন্দ,স্থানীয় গন্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ ও ছাত্র- ছাত্রীদের মায়েরা উপস্থিতি ছিলেন ।

 

মানবাধিকার শান্তি পদক-২০১৮ পাচ্ছেন বাহাউদ্দিন গোলাপ

আকিব মাহমুদঃ মানবাধিকার শান্তি পদক-২০১৮ পাচ্ছেন বাহাউদ্দিন গোলাপ। ইউনাইটেড মুভমেন্ট ফর হিউম্যান রাইটস থেকে প্রেরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানা যায় সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য সংগঠক ড.বাহাউদ্দিন গোলাপকে মানবাধিকার শান্তি পদক-২০১৮ প্রদান করা হবে।

আগামী ৭জুলাই প্রফেসর আকতার ইমাম অডিটোরিয়ামে এই সংবর্ধনরা দেয়া হবে। এতে উপস্থিত থাকবেন বিচারপতি সিকদার মকবুল হক, ভাষা সৈনিক মোঃ রেজাউল করিম, পীরজাদা শহীদুল হক হারুন(অতিরিক্ত সচিব, অর্থ মন্ত্রনালয়। বিশেষ অতিথী সাংবাদিক ফরিদ খান, সম্পাদক, করাপশন নিউজ এজেন্সি প্রমুখ।

বিএম কলেজ শাখার সদস্যদের সাথে Shine a Light এর কেন্দ্রীয় কমিটির মতবিনিময়

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন Shine a Light এর বিএম কলেজ শাখারা সদস্যদের সাথে মতবিনিময় সভা করেছে কেন্দ্রীয় কমিটি। সোমবার সকাল ১১টায় সরকারি বিএম কলেজের ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর অডিটোরিয়ামে বিনামুল্যে স্বাস্থ্যসেবামূলক কার্যক্রম প্রসারিত করনে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় কেন্দ্রীয় কমিটি শাখা কমিটির সাথে সংগঠনকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে বিভিন্ন পরিকল্পনা ও দিক নির্দেশনা প্রদান করেন। মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন সংঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আকিব মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক সাজিদ হাসান, সহ সভাপতি খান মোঃ জুলহাস, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নাহিদ আহসান। এছাড়াও বিএম কলেজ শাখার সামিয়া আফরিন, তামান্না জ্যোতি,সাবরিনা নিশা, সানজিদা ও তামজিদ সাজী উপস্থিত ছিলেন।

 

উল্লেখ্য সংগঠনটি প্রতিষ্ঠাকাল থেকে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবামূলক বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

সরকারি বিএম কলেজে বিধিমালা ভঙ্গ করে ডাইনিং লিজ দেয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: বরিশাল সরকারি বিএম কলেজের মহাত্মা অশ্বিনী কুমার ছাত্রাবাসের ডাইনিং শিক্ষা মন্ত্রানালয় ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এর বিধি ভংগ করে অবৈধ সুবিধা নিয়ে লিজ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে কলেজ ও ছাত্রাবাস কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। সরকারি বিএম কলেজের ইতিহাস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক এ এস কাইউম উদ্দীন আহমেদ এবং মহাত্মা অশ্বিনী কুমার ছাত্রাবাসের তত্বাবধায়ক ইসলামের ইতিহাস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোঃ রফিকুল ইসলাম খানের বিশেষ তদবিরে বিএম কলেজের বিলুপ্ত অস্থায়ী কর্মপরিষদের কথিত ভিপি বিতর্কিত সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মঈন তুষারের সহযোগী ঐ কর্ম পরিষদের স্বঘোষিত সদস্য ইভানের কাছে লিজ দিয়েছেন। শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন সরকারি বিএম কলেজের ডিগ্রী ছাত্রাবাসের ডাইনিং এ একসময় নিয়মিত ৪/৫ শত বোর্ডার ছিল। বর্তমান তত্বাবধায়ক রফিকুল ইসলাম খান দায়িত্ব নেয়ার পর ছাত্রাবাসের একটি গ্রুপকে বিশেষ সুবিধা দেয়া শুরু করলে, ডাইনিং এর খাবারের মান কমতে থাকে। ২০১৪ সালের শুরুতে কুয়াকাটা পিকনিকে যাওয়ার কথা বলে প্রতিমিলে জনপ্রতি ৫ টাকা হারে চাদা নির্ধারন করে। সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ইভানকে ডাইনিং পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া হয়। ২০১৪ সালে ৯ এপ্রিল সাবেক সিটি মেয়র শওকত হোসেন হিরনের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে পিকনিক না হওয়াতে শিক্ষার্থীদের জমানো লক্ষাধিক টাকা হোস্টেল সুপার ও ইভান মিলে আত্মসাৎ করে। এছাড়া ২০০৭ সালে কলেজ কর্তৃপক্ষ হোস্টেলের ছাত্রদের ভোগ দখলের জন্য কলেজের চারটি পুকুর নামমাত্র মূল্যে লিজ দেয়। বর্তমানে হোস্টেলের ভোগদখলে থাকা ৪টি পুকুর থেকে বছরে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় হলেও তার কোনো হিসাব নেই। অভিযোগ রয়েছে হোস্টেল কর্তৃপক্ষ ও তাদের অনুগত কয়েকজন মিলে পুরো টাকাই আত্মসাৎ করেছে। এই বিশেষ গ্রুপকে সুবিধা প্রদান এবং নিজের সকল দূর্নিতী ঢাকতেই সরকারি ভবনে কলেজের বিদ্যুৎ, পানি আসবাবপত্র এবং কর্মচারীদের ব্যবহার করে ডাইনিং পরিচালনা করতে দিয়েছেন। এব্যাপারে ছাত্রাবাসের তত্বাবধায়ক রফিকুল ইসলাম খানের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মুঠোফোনে ফোন দিলে তিনি রিসিভ করেননি। কলেজের শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক এ এস কাইয়ুম উদ্দিন আহমেদ এর কাছে জানতে চাইলে তিনি ডাইনিং লিজ দেয়ার কথা সরাসরি অস্বীকার করেন। আমাদের কাছে তথ্য প্রমান আছে এমনটা জানালে তিনি বলেন আমাদের একজন ছাত্রকে চালানোর মৌখিক অনুমতি দেয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অতীতে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আছে। জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি জানিনা। কলেজ উপাধ্যক্ষ প্রফেসর স্বপন কুমার পাল বলেন ডাইনিং লিজ দেয়া হয়নি। বন্ধ থাকার কারনে একজনকে চালানোর অনুমতি দেয়া হয়েছে। সরকারি সম্পত্তি কাউকে ব্যাবহারের মৌখিক অনুমতি দেয়া যায় কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন সবকিছু নিয়ম মেনে হয়না। কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর শফিকুর রহমান শিকদার এব্যাপারে বলেন আমার এ ব্যাপারে জানা নেই। আমি আগামীকাল সরেজমিনে গিয়ে দেখব। যদি ছাত্ররা কোনো অভিযোগ দেয় তাহলে বন্ধ করে দেব। অতীতের অর্থ আত্মসাতের ব্যাপারে আমি খোজ খবর নিয়ে সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বাউফলে মা’কে বিবস্ত্র করে পিটিয়ে হত্যাচেষ্টাকারী সন্তান আটক

বাউফল প্রতিনিধি : পটুয়াখালীর বাউফল ইউনিয়নের বিলবিলাস (বাঁশবাড়িয়া) গ্রামে ভরণপোষণ চাওয়ায় মাকে বিবস্ত্র করে পিটিয়ে হত্যা চেষ্টাকারী সন্তান মো: জালাল সিকদার (৪৫) কে আটক করেছে বাউফল থানা পুলিশ।
জানা যায়, গত কাল (শনিবার) বিলবিলাস গ্রামে ৭০বছর বৃদ্ধা মাকে বিবস্ত্র করে পিটিয় সন্তান ও পূত্র বধু। বৃদ্ধার সন্তান তার মাথা ইট দিয়ে আঘাত করে এবং দাঁ দিয়ে হত্যা করার চেষ্টা করে।
পরে স্থানীয়রা বাউফল হাসপাতালে ভর্তি করে। প্রাথমিক চিকিৎসার পর আহত জামিলা বেগম বাউফল থানায় অভিযোগ করে। ঘটনার ৮ঘন্টার মাথা ঘাতক জালাল-কে আটক করে বাউফল থানা পুলিশ।
এব্যাপারে বাউফল থানা ওসি মনিরুল ইসলাম জানান, বৃদ্ধা মহিলার অভিযোগ পাওয়ার পর তাৎক্ষনিক এস আই মো: আনোয়ার হোসেনকে পাঠিয়ে আভিযুক্ত জালালকে আটক করা হয়।
উল্লেখ্য, শনিবার বাংলার বানী২৪ সহ বিভিন্ন পত্রিকায় ” পটুয়াখালীতে ভরণপোষণ চাওয়া বিবস্ত্র করে পিটিয়ে মাকে হত্যা চেষ্টা” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয় ।

বাকেরগঞ্জের লক্ষ্মীপাশায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ৫

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ বাকেরগঞ্জের কবাই ইউনিয়নের লক্ষ্মীপাশা গ্রামে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় ৫জন আহত হয়েছে। আহতদের বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় লক্ষ্মীপাশা গ্রামের চেয়ারম্যান বাজার এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা জলিল মোল্লার সাথে একটি জমি নিয়ে ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা জাতীয় পার্টির নেতা রফিকুল ইসলাম সবুজের সাথে বিরোধ চলে আসছে। বিরোধীয় সম্পত্তি নিয়ে বরিশাল আদালতে একটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এব্যাপারে স্থানীয় পর্যায়ে দুইবার সালিশ মিমাংসা হয়েছে। সালিশ মিমাংসার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জলিল মোল্লা গতকাল শুক্রবার ট্রাক্টর দিয়ে জমি চাষ করতে গেলে সাবেক চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সবুজের নেতৃত্বে রামদা, চাপাতি, বগি দা, হকিস্টিক, লোহার পাইপ নিয়ে খলিলুর রহমান হাওলাদার, ইউনুস আকন, মনির আকনসহ অজ্ঞাত ২০-২৫জন জলিল মোল্লার উপর হামলা চালায়।

তখন তাকে বাঁচাতে এলে হামলাকারীরা পিটিয়ে জলিল মোল্লার ভাই মৃত খলিল মোল্লার স্ত্রী রেনু বেগম ,পূত্র জাফর,হেলেনা বেগম, রিমনসহ কয়েকজনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। এদেরকে শেরেবাংলা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে।

এব্যাপারে বাকেরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ জহিরুল হক তালুকদার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন রফিকুল ইসলাম সবুজ একজন সন্ত্রাসী, সে চেয়ারম্যান থাকা অবস্থায় জোর করে একজনের জমি দলিল করে নিয়েছেন। সেই জমি অন্যের মালিকানা থাকায় এর আগেও জবরদখল করার জন্য কয়েকবার হামলা চালিয়েছেন।

 

এব্যাপারে বাকেরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মাসুদুজ্জামান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন দুই পক্ষ থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দিয়েছেন। ঘটনার প্রাথমিক তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেছে। আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশী অভিযান অব্যহত রয়েছে। তবে স্থানীয় লোকজন জানিয়েছে হামলায় উভয় পক্ষই আহত হয়েছে।

বরিশালের মিয়াবাড়ি জামে মসজিদ- দৃষ্টিনন্দন স্থাপত্যশৈলীর অনন্য নিদর্শন

অবজারভার ডেস্কঃ মোঘল আমলে নির্মিত ঐতিহ্যবাহী কাড়াপুর মিয়াবাড়ি জামে মসজিদ। অনন্য স্থাপত্যশৈলীর দৃষ্টিনন্দন এ মসজিদটি শুধু বরিশালের নয়, বাংলাদেশের প্রাচীন মসজিদগুলোর অন্যতম। বরিশাল সদর উপজেলার উত্তর কড়াপুর গ্রামে অবস্থিত দ্বিতল এ মসজিদটি এখনো নামাজের জন্য ব্যবহৃত হয়। এছাড়া প্রতিনিয়ত দূর-দূরান্ত থেকে প্রচুর পর্যটক আসেন বরিশালের এ ঐতিহ্য দেখতে।

১৮ শতকে নির্মিত মোঘলরীতির এ মসজিদের ঐতিহ্যের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে সম্প্রতি প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর কড়াপুর মিয়াবাড়ি মসজিদটি সংস্কার ও রঙ করেছে। চারকোনা এই মসজিদের উপরিভাগে তিনটি ছোট আকারের গম্বুজ রয়েছে। তিনটি গম্বুজের মাঝখানের গম্বুজটি অন্য দুটি গম্বুজের চেয়ে আকারে কিছুটা বড়। মসজিদের সামনের দেয়ালে চারটি মিনার এবং পেছনের দেয়ালে চারটি মিনারসহ মোট আটটি বড় মিনার রয়েছে।

এছাড়া সামনে ও পেছনের দেয়ালের মধ্যবর্তী স্থানে আরো ১২টি ছোট মিনার রয়েছে। মসজিদের উপরিভাগ (সিলিং) ও সবগুলো মিনারে নিখুঁত ও অপূর্বসুন্দর কারুকাজ করা। এদিকে, উঁচু ভিত্তির ওপর নির্মিত মিয়াবাড়ির এ মসজিদের পূর্বদিকে রয়েছে বিশালাকারে এক দিঘী। দিঘীর পানিতে মসজিদের বিম্ব যেকোনো মানুষকে মুগ্ধ করে। বর্তমানে মসজিদটির দ্বিতীয় তলায় নামাজের ব্যবস্থা রয়েছে।

তবে দ্বিতীয় তলায় উঠতে বাইরে থেকে দোতলা পর্যন্ত একটি প্রশস্ত সিঁড়ি রয়েছে। আর নিচতলায় কয়েকটি কক্ষে বর্তমানে ‍ ‍একটি মাদ্রাসার কার্যক্রম চলছে। এছাড়া সিঁড়ির নিচের ফাঁকা জায়গায় রয়েছে দুটি কবর। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে ও ইতিহাস সূত্রে জানা যায়, মিয়াবাড়ি মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা হায়াত মাহমুদ নামে এক ব্যক্তি।

তৎকালীন ইংরেজ শাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে নির্বাসিত হন তিনি। এ সময় তার জমিদারিও কেড়ে নেওয়া হয়। দীর্ঘ ১৬ বছর পর দেশে ফিরে তিনি এলাকায় দুটি দিঘী ও দ্বিতল এই মসজিদটি নির্মাণ করেন। প্রতিদিন মসজিদটি দেখতে অনেকে আসলেও যাতায়াতে তাদের ব্যাপক ভোগান্তি পোহাতে হয়। শহরের নবগ্রাম রোড থেকে মসজিদ পর্যন্ত সড়কটির অবস্থা খুবই খারাপ।

ফলে প্রায়ই ছোটখাট দুর্ঘটনার শিকার হন পর্যটকরা। তবে এ পথে মোটরসাইকেল, অটোরিকশা বা ইঞ্জিনচালিত থ্রি-হুইলারযোগে যাতায়াত করা যায়। মিয়াবাড়ি মসজিদের মুসল্লি মো. আর্শেদ আলী সিকদার (৭০) জানান, মোঘল আমলের এ স্থাপনাটি দেখতে অনেক মানুষ আসেন। কিন্তু যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম সড়কটি সংস্কার না করায় যাতায়াতের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে এটি।

বরিশালে নদীগর্ভে বিলিন হয়ে যাচ্ছে কোটি টাকার সম্পদ

অবজারভার ডেস্কঃ নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে প্রায় দুবছর আগে। এখন চালু হয় নি নগরববাসীর জন্য নিরাপদ পানি সরবারহের জন্য নির্মাণ ১৯ কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি ওয়াটার টিটমেন্ট প্লান্ট। অপর দিকে অব্যহত নদী ভাংঙ্গনের ফলে নদী গর্ভে বিলিন হতে চলছে এই কোটি টাকার সম্পত্তি। প্রায় ৫ লাখ বাসিন্দার বরিশাল নগরীতে প্রতিদিন গড়ে পানির চাহিদা সাড়ে ৪ কোটি লিটার। কিন্তু সরবরাহ হচ্ছে মাত্র দেড় কোটি লিটার।

এ সঙ্কটের মধ্যেই পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে নগরবাসীকে। যেসব এলাকায় সিটি কর্পোরেশনের পানি সরবরাহের ব্যবস্থা নেই, সেসব এলাকার অবস্থা আরও করুণ। একদিকে ভূ-গর্ভস্থ পানির সঙ্কট অন্যদিকে নতুন উৎস থেকেও পানি না পেয়ে হতাশ নগরবাসী। কিন্তু, প্লান্ট রক্ষায় আশার আলো দেখাতে পারছেন না খোদ নগরপিতাও।

নগরবাসীর পানির চাহিদা মেটাতে ২০১২-১৩ অর্থবছরে নগরীর বেলতলা ও রূপাতলীতে দুটি সারফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট নির্মাণকাজ শুরু করে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিফতর। যার কাজ শেষ হয় ২০১৬ সালে। কিন্তু এখনও শুরু হয়নি পানি সরবরাহ। যদিও কয়েকদিন আগে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা এসে প্লান্টটি পরিদর্শন করে গেছেন।

কিন্তু এরপরও কোন আশার আলো দেখছেন না নগরবাসী। পানি সরবরাহ শুরু না হওয়ায় পরিত্যক্ত হতে বসেছে ১৯ কোটি টাকার ওয়াটার প্লান্ট দুটি। বারবার বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ হলেও টনক নরছে না সংশ্লিষ্টদের। নগর বাসীদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কোটি টাকার এই প্রকল্প নদী ভাংঙ্গনে হাত থেকে বাচাতে দ্রুত পদক্ষেপ চায় সচেতন নগরবাসী।