বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ০৯:০৪ পূর্বাহ্ন

বাউফল আ’লীগকে পৈত্রিক সম্পত্তি বানিয়েছেন এমপি আসম ফিরোজ

বাউফল আ’লীগকে পৈত্রিক সম্পত্তি বানিয়েছেন এমপি আসম ফিরোজ

বাউফল প্রতিনিধি:  পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগকে পৈত্রিক সম্পত্তি মনে করেন জাতীয় সংসদের সাবেক চীফ হুইপ আসম ফিরোজ এমপি। দলীয় কর্মীদের কাঁধে ভর দিয়ে তিনি নিজে কয়েকবার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন,  ভবিষ্যতে ছেলেকেও এমপি বানাতে চান। তৃণমূলের যে সকল নেতাকর্মীরা ঘাম ঝড়িয়ে তাকে কয়েকবার এমপি বানিয়েছেন দলে তাদের কোন মূল্যায়ন নেই। বরং দলের স্বার্থে কথা বললেই নেতাকর্মীদের লাঞ্ছিত-বঞ্চিত হতে হয়। মঙ্গলবার দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের সঙ্গে এমপি’র বৈরি আচরণ নিয়ে নিজের ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বাউফল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব হাওলাদার। এরপরই সাংবাদিকদের সঙ্গে মুঠোফোনে আসম ফিরোজ এমপিকে উদ্দেশ্য করে আওয়ামী লীগ নেতা মোতালেব হাওলাদার কথাগুলো বলেন।

তিনি বলেন, ১৯৭৯ সালে যখন আসম ফিরোজ এমপি নির্বাচিত হন তখন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন আবদুল ওয়াদুদ মিয়া। এমপি নির্বাচিত হওয়ার কিছুদিন পরই আবদুল ওয়াদুদ মিয়াকে সাধারণ সম্পাদক বানিয়ে তিনি নিজেই হয়ে গেলেন সভাপতি। নিজের স্বার্থকে চরিতার্থ করতে একের পর এক দলের ত্যাগী নেতাদের অবমূল্যায়ন করছেন এমপি ফিরোজ।

নিজের প্রসঙ্গ টানতে গিয়ে আবদুল মোতালেব হাওলাদার বলেন, আমি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে আমার সঙ্গে বৈরি আচরণ শুরু করেন এমপি ফিরোজ। সরকারি বরাদ্দের কোন কাজেই আমি ইচ্ছার বহিপ্রকাশ করতে পারছি না। ভাইস চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন খানকে দিয়ে তিনি নিজের খেয়াল খুশি মতো কাজ করছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান হয়েও তৃণমূলের জনসাধারণের জন্য আমি কোন কাজ করতে পারছি না। আগামী দিনে আমি তার পক্ষে কিংবা তার ছেলের পক্ষে কাজ করি কি-না এমন সন্দেহের বশে এমপি ফিরোজ আমার সঙ্গে বৈরি আচরণ করছেন। বিগত দিনেও এমপি আসম ফিরোজ বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জসীম উদ্দিন ফরাজী, আওয়ামীলীগ নেতা  হেমায়েত মিয়া, ইউনুচ মিয়া, নুরুল হক মৃধা, খন্দকার সামসুল হক রেজা, ফিরোজ আলম ওরফে জাপান ফিরোজসহ বেশ কয়েকজন নেতাকে রাজনৈতিকভাবে বলি দিয়েছেন।

বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে মোতালেব হাওলাদার বলেন, গত ২১ জুন ৯টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুধু চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়ন ছাড়া বাকী ৮টিতে উপজেলা আওয়ামীলীগের টিম পাঠানো হয়েছে। চন্দ্রদ্বীপে কেন আওয়ামী লীগের টিম গেল না প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, প্রত্যেক ইউনিয়নে এমপি তার নিজস্ব পছন্দের ব্যক্তিকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করার কারন জনসেবা নয়। এমপি তার নিজের অবস্থান শক্ত রাখতে প্রতিটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান বানিয়েছেন।

আবদুল মোতালেব হাওলাদার বলেন, পৌরশহরে আসম ফিরোজ এমপির সম্পত্তিতে জনতা ভবন রয়েছে। আমি দলীয় কার্যালয়ের জন্য সেখান থেকে কিছু সম্পত্তি দান করতে অনুরোধ করেছিলাম। কিন্তু তিনি আমার অনুরোধ রাখেননি। বরং কয়েকদিন আগে জনতা ভবন থেকে আওয়ামীলীগের দলীয় সাইনবোর্ডটিও সরিয়ে নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আগামী দিনে আসম ফিরোজ তার ছেলেকে এমপি বানাতে চান। এর আগে তার ভাইকে উপজেলা চেয়ারম্যান বানাতে চেয়েছিলেন। দলকে তিনি পারিবারিক সম্পত্তি মনে করায় তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বঞ্চিত হচ্ছেন।

এ প্রসঙ্গে আসম ফিরোজ এমপি বলেন, এ বিষয়ে আমি কোন বক্তব্য দিতে রাজী নই।  আমি কে তা বাউফলবাসী ভাল করেই জানে। উড়ে এসে জুড়ে বসিনি। বাউফলবাসীর ভালবাসায় আমি বারবার এমপি হয়েছি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved by barishalobserver.Com
Design & Developed BY Next Tech