রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
কুয়াকাটায় অবরোধ চলাকালীন সমুদ্রে মাছ ধরার অপরাধে ১৮ জন জেলেকে  আটক করছে নৌ পুলিশ নৌকা বিরোধী  ষড়যন্ত্রকারীরা কখন আ’লীগের হতে পারে না-তালুকদার মোঃ ইউনুস বরিশালে নির্বাচন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভা স্বাস্থ্য ও সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির দাবীতে বরিশাল মানববন্ধন ও সমাবেশ বেইজিং প্ল্যাটফরম ফর একশন +২৫ পর্যালোচনা এন্ড ফলোআপ কর্মশালা বরিশালে বিষপানে তরুনের আত্নহত্যার চেষ্টা সর্বহারা অধ্যুষিত গৌরনদীর সরিকল ইউনিয়নে কেন্দ্র দখলের পায়তারা আমতলীতে নির্বাচনী সহিংসতা । দু’চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের হামলায় আহত- ১৩ সংসারের ভার আমতলীর শিশু শ্রমিক নুর জামালের কাঁধে ভিজিএফ’র চাল পেল আমতলীর সাড়ে ছয় হাজার জেলে
বরিশালে বিনোদনকেন্দ্রগুলোতে উপচেপড়া ভিড়

বরিশালে বিনোদনকেন্দ্রগুলোতে উপচেপড়া ভিড়

চলছে মহামারি করোনাকাল। সেই মহামারির সংক্রমণের ঝুঁকি উপক্ষো করে ঈদের পরের দিন থেকে উন্মুক্ত বিনোদনকেন্দ্রগুলোতে মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। আর সেখানে স্বাস্থ্যবিধি ছিলো উপেক্ষিত। বিশেষ করে কারো মধ্যেই নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার কোনো আগ্রহ দেখা যায়নি। আবার যার মন চেয়েছে তিনি মাস্ক পরেছেন, যার মন চায়নি তিনি পরেননি। যদিও উন্মুক্ত বিনোদনকেন্দ্র বিশেষ করে পার্কগুলোতে সমাগমরোধে কঠোর দিক-নির্দেশনা দিয়েছিলো জেলা প্রশাসন। আর তাই সরকারি-বেসরকারি নিয়ন্ত্রিত পার্কগুলো বন্ধও রয়েছে।

ঈদের পরের দিন ও রোববার নগর ঘুরে দেখা গেছে, দুপুরের পর থেকেই নগরের বিনোদনকেন্দ্রগুলোতে মানুষের সমাগম ঘটতে থাকে। ঈদের দিন বিকেলে নগরের বঙ্গবন্ধু উদ্যান, শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতু, ত্রিশ গোডাউন থেকে চাঁদমারি কলোনী এলাকা পর্যন্ত নদীর তীরে হাজারো মানুষের সমাগম ঘটে। মানুষের সমাগম ঠেকাতে দুপুর থেকে বেশ কিছু বিনোদনকেন্দ্রে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা থাকলেও বিকেল নাগাদ তা অনেকটাই মন্থর হয়ে যায়। তবে, বিপুল পরিমান মানুষের ভিড়ে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হতেই দেখা গেছে।

নগরের ত্রিশ গোডাউন এলাকায় ঘুরতে যাওয়া ব্যবসায়ী শামীম আহম্মেদ বলেন, ঈদ উৎসবের এ সময়টাতে পরিবার-পরিজন, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধুবান্ধব মিলে ঘুরতে যাওয়া একটি ট্রেডিশন। তবে, করোনা মহামারির কথা মাথায় রেখে এই সময়টাতে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা উচিত। কিন্তু কেউ মানছে আর কেউ মানছে। গাদাগাদির মধ্যেই সবাই ঘোরাফেরা করছেন, যেখানে কারো মাস্ক আছে কারো নেই।

তিনি বলেন, ত্রিশ গোডাউন এসে সব থেকে আশ্চর্যজনক বিষয় দেখলাম, সাজগোজ নষ্ট হওয়ার শঙ্কায় কিছু তরুণী মুখে মাস্ক ব্যবহার করছেন না, আর যেসব যুবক ধুমপায়ী তারাও মাস্ক ব্যবহার করছেন না। আর এরা হাসি-ঠাট্টা থেকে শুরু হাঁচি-কাশিও স্বাস্থ্যবিধির নিয়মানুযায়ী দিচ্ছে না।

রবিন মৃধা নামে এক ব্যক্তি বলেন, মধ্য বয়স্ক থেকে বয়স্কদের মধ্যে মাস্ক ব্যবহারের প্রবণতা থাকলেও উঠতি বয়সি তরুণদের মধ্যে মাস্ক ব্যবহারের প্রবণতা নেই বললেই চলে। আবার মোটরবাইক নিয়ে আসা কিছু তরুণ-তরুণী ঘুরতে আসা অন্য মানুষের বিড়ম্বনার কারণও হচ্ছে।

এদিকে যারা মাস্ক ব্যবহার করছেন না, তাদের এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করতেই হয় চটে যাচ্ছেন নয়তো নানান যুক্তি তুলে ধরছেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved by barishalobserver.Com
Design & Developed BY Next Tech