রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
কুয়াকাটায় অবরোধ চলাকালীন সমুদ্রে মাছ ধরার অপরাধে ১৮ জন জেলেকে  আটক করছে নৌ পুলিশ নৌকা বিরোধী  ষড়যন্ত্রকারীরা কখন আ’লীগের হতে পারে না-তালুকদার মোঃ ইউনুস বরিশালে নির্বাচন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভা স্বাস্থ্য ও সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির দাবীতে বরিশাল মানববন্ধন ও সমাবেশ বেইজিং প্ল্যাটফরম ফর একশন +২৫ পর্যালোচনা এন্ড ফলোআপ কর্মশালা বরিশালে বিষপানে তরুনের আত্নহত্যার চেষ্টা সর্বহারা অধ্যুষিত গৌরনদীর সরিকল ইউনিয়নে কেন্দ্র দখলের পায়তারা আমতলীতে নির্বাচনী সহিংসতা । দু’চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের হামলায় আহত- ১৩ সংসারের ভার আমতলীর শিশু শ্রমিক নুর জামালের কাঁধে ভিজিএফ’র চাল পেল আমতলীর সাড়ে ছয় হাজার জেলে
ধর্ষন প্রতিরোধে শুধুমাত্র শাস্তির মাত্রা বৃদ্ধি যথেষ্ট নয়;নৈতিকতা,ধর্মীয় শিক্ষা এবং সচেতনতা বৃদ্ধি অপরিহার্য।

ধর্ষন প্রতিরোধে শুধুমাত্র শাস্তির মাত্রা বৃদ্ধি যথেষ্ট নয়;নৈতিকতা,ধর্মীয় শিক্ষা এবং সচেতনতা বৃদ্ধি অপরিহার্য।

ধর্ষন,নারীর প্রতি সহিংসতা বা নিষ্ঠুর নির্যাতনের মত অপরাধ সমাজের জন্য একটি চরম ক্ষতিকর ব্যধি।এজাতীয় অপরাধ সভ্য ও সমাজবদ্ধ জীবন যাপনের জন্য হুমকি সরূপ এবং মধ্যযুগীয় বর্বতার প্রতিরূপ।মধ্যযুগে এমন বর্বরতা অহরহ থাকলে আধুনিক কল্যানমূখী রাষ্ট্র ব্যবস্থা এগুলো নিষিদ্ধ এবং এগুলো করাকে অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করে শাস্তির ব্যবস্থা করা হয়েছে।জাতিসংঘের একাধিক কনভেনশনের মাধ্যমে সদস্য রাষ্ট্রগুলো নারীর প্রতি সহিংসতা,নির্যাতন,বৈষম্য ইত্যাদি বন্ধে উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহন এবং আইন করার বিষয়ে অঙ্গীকারাবদ্ধ।বিশ্বের অন্যান্য রাষ্ট্রের মত বাংলাদেশেও ধর্ষন,নারী নির্যাতন ও নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে সুনিদির্ষ্ট আইন ও শাস্তির বিধান আছে।এগুলো বন্ধের জন্য প্রতিষ্ঠানিক নানামূখী কার্যক্রমও বিদ্যমান আছে।এতকিছুর পরেও ধর্ষন এবং নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়েই চলছে যা উদ্বেগের বিষয়।অনেকই মনে করেন যে ধর্ষনের শাস্তি মৃত্যদন্ড করলেই এগুলো বন্ধ হয়ে যাবে বা এর সমাধান হয়ে যাবে।শুধু শাস্তির মাত্রা বাড়ালেই ধর্ষন বা নারীর প্রতি সহিংসতার মতো অপরাধ কমবে কি না তা নিয়ে সামাজিক গবেষনা দরকার। যেকোন ব্যক্তির বিকৃত ও নিয়ন্ত্রনহীন মানসিকতার ফলে এজাতীয় অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে।সমাজ বা রাষ্ট্র ব্যবস্থার এটা প্রতিরোধ করতে যে সকল ব্যবস্থা নিতে হবে তা অবশ্যই ব্যক্তি পর্যায় পর্যন্ত পৌছাতে হবে এবং তার মাধ্যমে ব্যক্তির বিকৃত ও নিয়ন্ত্রনহীন মানসিকতার পরিবর্তন ঘটাতে হবে তাহলে এজাতীয় অপরাধের মাত্রা কমবে বা নিয়ন্ত্রন হবে।সেক্ষেত্রে শুধু শাস্তির মাত্রা বাড়িয়ে তা কী সম্ভব?যেমন দেশের যেকোন জেলায় একজন ধর্ষনকারীর শাস্তি হিসেবে ফাসি হলো তা কি অন্য জেলার বিকৃত ও নিয়ন্ত্রনহীন মানসিকতার কোন ব্যক্তির উপর প্রভাব ফেলবে বা সে এর খবর রাখবে কি না তা নিয়েই সন্দেহ আছে।তারপরেও শাস্তির মাত্রা বাড়িয়ে যাবজ্জীবনের ক্ষেত্রে ফাসি করা হলে এবং অপরাধীকে ফাসি দেয়া হলে তা সমাজে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে এবং অপরাধ কমানোর জন্য ভূমিকা রাখবে কিন্তু তা কি পরিমান বা মাত্রায় ধর্ষনের অপরাধ কমাবে তা নিয়ে সন্দেহ আছে কারন দেশে অন্যান্য যেসকল অপরাধের শাস্তি ফাসি সেগুলো যে হচ্ছে না বা পূরোপূরি নিয়ন্ত্রনে তা কিন্তু নয়, তারপরেও খুন সংঘটিত হচ্ছে।তাই শাস্তির মাত্রা বৃদ্ধির পাশাপাশি এজাতীয় অপরাধের মাত্রা যাতে কমে বা নিয়ন্ত্রনে আসে সে মর্মে অন্যান্য কি কি পদক্ষেপ নেয়া যায় সেবিষয়টিকেও গুরুত্বপূর্নভাবে বিবেচনা করতে হবে। সেক্ষেত্রে যেকোন ব্যক্তির বিকৃত ও নিয়ন্ত্রনহীন অপরাধমূলক মানসিকতা পরিবর্তন ঘটানোর উদ্যোগ নেয়াটা অতীব জরুরী। রাষ্ট্র ও সমাজকে এজাতীয় উদ্যোগ নিতে হবে সর্বপরি সবার জন্য।এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট সবার সাথে আলোচনা করে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে তারমধ্যে নিম্নে উল্লেখিত বিষয়গুলো বিবচনায় করা যেতে পারে-সর্বস্তরের পাঠ্যপুস্তকে মূল্যবোধ বৃদ্ধি,নৈতিকতা,সামাজিক সচেতনা বৃদ্ধি ও ধর্মীয় শিক্ষার উপর গুরুত্ব দেয়া,বিশ্ববিদ্যালয় লেভেলে সকল বিষয়ের সাথে কমন বিষয় হিসেবে এমন একটি বিষয়কে অন্তর্ভূক্ত করা,উপজেলা,ইউনিয়ন,ওয়ার্ড এমনকি পরিবার পর্যায়ে নৈতিকতা ও সচেতনতা বৃদ্ধির নানামূখী পদক্ষেপ বছরজুড়ে চালু রাখা,সামাজিক সংগঠনগুলোর উপর নিয়মকানুন আরোপ কমিয়ে তাদের এজাতীয় সামাজিক কর্মকান্ডে সরকারীভাবে উৎসাহী করা,ধর্মীয় উপসনালয় গুলোতে ধর্ষন বিরোধী ধর্নীয় বানী ও বিধি নিষেধ প্রচার করা,গনমাধ্যমগুলোতে নিয়মিত সচেতনতা বৃদ্ধির প্রোগ্রাম প্রচারসহ নানামূখী পদক্ষেপ গ্রহন করা।তাতে মানুষের মনের মধ্যে ইতিবাচক,নৈতিক ও সচেতনতা মূলক বিবেক জাগ্রত হবে যা এজাতীয় অপরাধ কমানো ও নিয়ন্ত্রনে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখবে।সুতরাং ধর্ষনের মতো অপরাধ নিয়ন্ত্রন বা কমানোর জন্য শুধুমাত্র শাস্তির মাত্রা বৃদ্ধি করাকেই যৌক্তিক মনে করাটা ঠিক হবে না কঠোর শাস্তির পাশাপাশি ব্যক্তির বিকৃত ও নিয়ন্ত্রনহীন মানসিকতার পরিবর্তন ঘটানোর জন্য নৈতিক ও ধর্মীয় শিক্ষার এবং সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধির উপর গুরুত্ব দেয়া ও পদক্ষেপ গ্রহনকে সর্বোচ্চ গুরুত্বের সহিত বিবেচনা করতে হবে।
লেখকঃএম কাওসার হোসাইন
সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবি,আইনগ্রন্থপ্রনেতা ও কলামিস্ট।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved by barishalobserver.Com
Design & Developed BY Next Tech