ইন্দোনেশিয়ার অগ্ন্যুৎপাত ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
বিশ্বের অন্যতম সক্রিয় আগ্নেয়গিরি ইন্দোনেশিয়ার মাউন্ট মেরাপিতে শনিবার (১১ মার্চ) অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়। এর গরম ধোঁয়া এবং ছাই কাছাকাছির গ্রামগুলোতে ছড়িয়ে পড়ছে। তবে এতে তাত্ক্ষণিকভাবে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি বলে দেশটির দুর্যোগ প্রশমন সংস্থা জানিয়েছে।

জানা গেছে, ইন্দোনেশিয়ার মেরাপি আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়েছে। শনিবার শুরু হওয়া এই অগ্ন্যুৎপাতের ফলে সেখান থেকে গরম ধোঁয়া ও ছাই বের হচ্ছে। যা এরই মধ্যে সাত কিলোমিটার দূর পর্যন্ত পৌঁছেছে।

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আগ্নেয়গিরিটি ইন্দোনেশিয়ার জোগকর্তার বিশেষ অঞ্চলে অবস্থিত। শনিবার বেলা ১২টার দিকে এটিতে অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়। সেখান থেকে লাভা ছড়িয়ে পড়ে দেড় কিলোমিটার পর্যন্ত। এক বিবৃতিতে বিপজ্জনক এলাকায় বাসিন্দাদের কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে সতর্ক করা হয়েছে। কারণ আগ্নেয়গিরির গর্তের ৩ থেকে ৭ কিলোমিটার পর্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ।

পেনাল্টি মিসে লিভারপুলের হার

স্পোর্টস ডেস্ক :
পুরো ম্যাচে দাপট দেখিয়েও শেষ পর্যন্ত  বোর্নমাউথের কাছে হেরে বসেছে লিভারপুল। ফলে পরের মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলা অনিশ্চিত হয়ে পড়লো তাদের। অবশ্য অন্তত ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়ার সুযোগ ছিল ইয়ুর্গেন ক্লপের দলের সামনে। কিন্তু অদ্ভুতভাবে পেনাল্টি মিস করেন দলের সবচেয়ে বড় তারকা মোহামেদ সালাহ।

গত সপ্তাহেই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ৭-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছে লিভারপুল। কিন্তু তাদের সেই সুখস্মৃতি মুছে দিল বোর্নমাউথ। সেই সঙ্গে ১-০ গোলের জয় রেলিগেশন অঞ্চল থেকেও উঠে এলো তারা। সপ্তাহের শুরুতেও বোর্নমাউথ ছিল নিচের সারিতে। এই জয়ে লিগে টিকে থাকার সুযোগ পেল তারা।

দুর্দান্ত সব আক্রমণ করলেও রক্ষণের দুর্বলতায় ডুবেছে লিভারপুল। সেই সুযোগেই ২৮ তম মিনিটে আট গজ দূর থেকে তাদের জাল কাঁপান আন-মার্ক থাকা বোর্নমাউথ ফরোয়ার্ড ফিলিপ বিলিং। সুযোগ অবশ্য লিভারপুলও পেয়েছিল। তবে অলরেডরা সবচেয়ে বড় ধাক্কা খায় সালাহর পেনাল্টি মিসে। ১২৯ গোল নিয়ে গত সপ্তাহেই লিভারপুলের জার্সিতে সবচেয়ে গোলের মালিক হয়েছেন মিশরীয় ফরোয়ার্ড। কিন্তু এবার পোস্টের অনেকটা বাইরে শট নিয়ে সমর্থকদের হৃদয় ভাঙেন তিনি।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে উন্নতির ধারায় থাকা লিভারপুলের জন্য এই হারটি বড় ধাক্কা। কারণ আগামী বুধবার চ্যাম্পিয়নস লিগের নকআউট পর্বের ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হবে তারা। ২৬ ম্যাচে ৪২ পয়েন্ট নিয়ে প্রিমিয়ার লিগে লিভারপুলের বর্তমান অবস্থান পাঁচে

যে কথায় বদলে গেলেন শান্ত

স্পোর্টস ডেস্ক :

বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটে অন্যতম সেরা পারফর্মারদের একজন নাজমুল হোসেন শান্ত। একসময় সমালোচনায় জর্জরিত এই ক্রিকেটার এখন দলের ভরসার পাত্র হয়ে উঠছেন। প্রতি ম্যাচেই ব্যাট হাতে দিচ্ছেন আস্থার প্রতিদান।

নাজমুল হোসেন শান্তর এমন ধারাবাহিক ব্যাটিংয়ে চারিদিকে এখন প্রশংসা। জাতীয় দলের এই টপ অর্ডার ব্যাটারের পারফরম্যান্সে ভীষণ খুশি বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও। আজ রোববার (১২ মার্চ) মিরপুর শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যাচশেষে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে শান্তকে ভাসান প্রশংসার জোয়ারে।

শান্তর প্রসঙ্গে পাপন বলেন, ‘প্রথম ম্যাচে জেতার পর আমার সঙ্গে শান্তর যখন দেখা হয়, আমি শুধু ওকে একটা কথা বলেছিলাম-তুমি আউট হলা কেন? এই শেষ মুহূর্তে এসে তোমার শেষ করা উচিত ছিল। ভালো খেলেছ, ভালো কথা। কিন্তু তোমার শেষ করে আসা উচিত ছিল।’

হয়তো বিসিবি সভাপতির কথায় উজ্জীবিত হয়েই আজ শান্ত শেষ করেই মাঠ ছেড়েছেন। এই বিষয়ে পাপন বলেন, ‘আজ শান্ত শেষ করে গেছে। ও আউট হলে বিপদ আরও বাড়তে পারতো। সেদিক থেকে আমি অনেক খুশি।’

সিরিজ জয় নিয়ে পাপনের ভাষ্য, ‘দলের সাহস নিয়ে, ভয়ডরহীন ক্রিকেট আর ফিল্ডিং নিয়ে আমার কখনোই সন্দেহ ছিল না। এই জিনিসগুলো আস্তে আস্তে হয়েছে। টি-টোয়েন্টিতে ভালো করতে আমরা হুট করে শ্রীধরন শ্রীরামকে আনলাম। কোচিং স্টাফ বদলে দিলাম। এই সব কিছু একটা পরিকল্পনার মধ্য দিয়েই যাচ্ছে। এমন না যে আমরা খামাখা করছি। তাই আত্মবিশ্বাস ছিল যে ওরা ভালো করবে। কিন্তু এত তাড়াতাড়ি যে ভালো করবে, ইংল্যান্ডের সঙ্গে জিতবে টি-টোয়েন্টিতে, এটা আসলেই…সিরিজ জিতবে ভাবি নাই।’

জীবনযাত্রার ব্যয় মেটাতে হিমশিম

ডেস্ক রিপোর্ট :

একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন নাজমুল হক তপন। বেতন পান ৫২ হাজার টাকা। তিন সদস্যের পরিবার তার। মেয়েটি এইএচএসসির ছাত্রী। তপন বলেন, ‘এখন আর সংসার চলছে না। গত চার বছরে বেতন বাড়েনি, কিন্তু খরচ বেড়েছে কয়েকগুণ। আসলে জোর করে এখন জীবন চালাচ্ছি। সেই মুড়ির টিন বাসের মতো। রাস্তায় চলাচলের কোনো অবস্থাই নাই। তাই ‘আল্লাহর নামে চলিলাম’ বলে জোর করে চালানো হচ্ছে। জীবন এখন মুড়ির টিন বাসের মতো।’

বেসরকারি এই কর্মজীবী আরও বলেন, ‘আগে মাসে একবার গরুর মাংস খেতাম। এখন তিন মাসে একবার খাই। দুধের খরচ বাঁচাতে দুধের চা খাওয়া বাদ দিয়েছি, রং চা খাই। গেস্ট আসলে শুধু দুধ চা চলে। বাসায় অতিথি আসলে আরও কষ্ট বেড়ে যায়। এখন শাক-সবজি দিয়েই চলছে। খাবার পরিমাণও কমিয়ে দিয়েছি। আর আগের বাসা পরিবর্তন করে মেয়ের স্কুলের কাছে ছোট বাসা নিয়েছি। তাতে বাসা ভাড়াও কম লাগছে আর স্কুলে যাওয়ার খরচও বেঁচে যাচ্ছে। তবে, যদি এভাবেই চলতে থাকে তাহলে সামনের বছর মেয়েটিকে পাবলিক ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি করতে পারলে তাকে হোস্টেলে দিয়ে দেব। আর আমরা স্বামী-স্ত্রী এক রুমের একটি বাসা নিয়ে থাকব। তা না হলে গ্রামের বাড়ি চলে যেতে হবে।’

একই ধরনের কথা বলেন রফিক রাফি নামে আরেকজন। তিনি বলেন, ‘আমার ৩০ হাজার টাকা বেতন। চারজনের সংসার। বাসা ভাড়া লাগে না। নিজেদের বাসায় থাকি। কিন্তু ওই বেতনে প্রতিমাসেই ধারদেনা করতে হয়।’

ঢাকায় একটি সরকারি প্রাইমারি স্কুলে সহকারী শিক্ষক হিসেবে চাকরি করেন সালমা বেগম। তিনি ও তার স্বামীর মিলিয়ে তাদের মোট আয় ৭২ হাজার টাকা। সালমা বেগম বলেন, ‘আমাদের তিনজনের সংসার। শ্বশুর বাড়িতেও টাকা দিতে হয়। সবমিলিয়ে আমাদের চলতে খুব কষ্ট হচ্ছে। করোনার সময় থেকে ঋণ নিয়েছিলাম। সেই ঋণ এখনও শোধ করছি। নতুন করে ঋণ নিয়ে কীভাবে শোধ করব? তাই নানাভাবে সংসারের খরচ কমানোর চেষ্টা করছি।’

এই নারী শিক্ষিকা আরও বলেন, ‘গত তিন মাসে যা অবস্থা, সব কিছুর দাম ১০ থেকে ৩০ শতাংশ বেড়েছে। প্রতিদিনই বাড়ছে। তাই মাছ-মাংস খাওয়া কমিয়ে দিয়েছি। নতুন পোশাকও কিনছি না। তারপরও সংসার চালানো কঠিন হয়ে পড়ছে।’

রংপুরের গফুর মিয়া এক বছর আগে ঢাকায় এসেছিলেন রিকশা চালাতেন। কিন্তু, টিকতে না পেরে আবার গ্রামে ফিরে গেছেন। গফুর মিয়া বলেন, ‘ঢাকায় এসে তিনি ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলাম। তিন মাস পর বউ ছেলে-মেয়েকে গ্রামের বাড়ি পাঠাই। এরপর একা থেকে অনেক কষ্ট করে ঋণ শোধ করে গ্রামের বাড়ি চলে এসেছি। এই বাজারে ঢাকায় টিকে থাকা সম্ভব ছিল না।’

গত অক্টোবরে সিপিডি তাদের এক গবেষণা প্রতিবেদনে জানায়, রাজধানীতে বসবাসরত চার সদস্যের একটি পরিবারের মাসে খাদ্য ব্যয় ২২ হাজার ৪২১ টাকা। মাছ-মাংস বাদ দিলেও খাদ্যের পেছনে ব্যয় হবে ৯ হাজার ৫৯ টাকা। এটা ‘কম্প্রোমাইজ ডায়েট’ বা আপসের খাদ্য তালিকা। প্রচলিত ১৯টি খাবারের ওপর ভিত্তি করে তারা এই তথ্য দেয়।

সিপিডির গবেষণা বলছে, ২০১৯ সালেও একজনের উপার্জন দিয়ে চারজনের একটি পরিবার ১৭ হাজার ৫৩০ টাকায় চলতে পারত। তখন মাছ-মাংস বাদ দিলে ওই পরিবারের খাবার খরচ হতো ছয় হাজার ৫৪১ টাকা।

কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সহসভাপতি এস এম নাজের হোসেন বলেন, ‘সিপিডির ওই হিসেব আরও সাত-আট মাস আগের। এখন পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়েছে। আমাদের বিবেচনায় মূল্যস্ফীতি ১৫ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে, যদিও সরকারের হিসেবে তা কম।’

এস এম নাজের হোসেন আরও বলেন, ‘যা পরিস্থিতি তাতে অনেকেই খাদ্য তালিকা কাটছাঁট করেও পরিস্থিতি সামাল দিতে পারছেন না। অনেকে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। নতুন করে ঋণ নিয়ে তারা শোধ করবেন কীভাবে? তাই একটি অংশ স্ত্রী সন্তানকে গ্রামের বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছেন। আবার কেউ কেউ আগের বাসা ছেড়ে কম ভাড়ায় ছোট বাসায় উঠেছেন। পরিবহণ ভাড়া কুলাতে না পেরে অনেকে এখন পায়ে হেঁটে চলাচল করছেন।’

প্রয়োজনীয় খাবার না খাওয়ায় একটি অংশ পুষ্টিহীনতায় ভুগতে শুরু করেছে বলেও জানিয়েছেন ক্যাব সহসভাপতি।

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বিবিএস) আজ রোববার মূল্যস্ফীতির সরকারি হিসেব প্রকাশ করেছে। তাতে মূল্যস্ফীতি আবারও বেড়েছে। ফেব্রুয়ারিতে আট দশমিক ৭৮ শতাংশে পৌঁছেছে, যা জানুয়ারি মাসে ছিল আট দশমিক ৫৭ শতাংশ। তবে, গত বছরের আগস্টে এই হার ছিল ৯ দশমিক ৫২ শতাংশ।

কোনো দলকে ভোটে আনতে ইসি উদ্যোগ নেবে না

ডেস্ক রিপোর্ট :

আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলগুলোর অংশগ্রহণের বিষয়ে নির্বাচন কমিশন (ইসি) কোনো উদ্যোগ নেবে না বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। তবে কোনো দল যদি সহযোগিতা কামনা করে, তাদের জন্য দরজা খোলা বলে জানিয়েছেন তিনি।

আজ রোববার (১২ মার্চ) বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে অস্ট্রেলীয় হাইকমিশনের একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি এসব কথা জানান।

সাক্ষাৎ অনুষ্ঠানে ঢাকায় অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনার জেরেমি ব্রুয়ের, পররাষ্ট্র ও বাণিজ্য দপ্তরের উত্তর ও দক্ষিণ এশিয়ার সহকারী সচিব (প্রথম) গ্রে কোওয়ান, সহকারী পরিচালক এলিস হেইনিঙ্গার, হাইকমিশনের উপপ্রধান নার্দিয়া সিম্পসন এবং নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান ও সচিব জাহাংগীর আলম উপস্থিত ছিলেন।

‘ভোটে দলগুলোর অংশ নেওয়ার বিষয়টি রাজনৈতিক’উল্লেখ করে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘অংশগ্রহণের বিষয়ে আমরা কোনো উদ্যোগ নেব না। এটা রাজনৈতিক ইস্যু। কোনো সংকট থেকে থাকলে তারা আলোচনার মাধ্যমে নিরসন করবে। আমরা ব্রোকারেজ (মধ্যস্থতা) করব না, করতে পারব না। কিন্তু আমরা ওপেনলি আহ্বান করে যাবে, আমাদের দরজা খোলা আছে। কোনো পার্টি যদি এসে সহযোগিতা কামনা করতে চান আমরা সব সময় প্রস্তুত আছি। আমাদের তরফ থেকে যে সমস্ত সহযোগিতা প্রদান করা দরকার, সেগুলো আমরা করে যেতে পারব।’

সিইসি বলেন, ‘মান্যবর হাইকমিশনার স্পষ্ট করে বলেছেন উনারা আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন যে, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনটা সুন্দর, শান্তিপূর্ণ, অংশগ্রহণমূলক এবং ফ্রুটফুল হবে, এটা ওনাদের প্রত্যাশা। আমরাও আমাদের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছি।’

হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত। আমরাও চাচ্ছি যে নির্বাচনটা অংশগ্রহণমূলক হোক এবং প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হোক। আমাদের দায়িত্বের মধ্যে উনারা জানতে চেয়েছেন আমরা কি দলগুলোর মধ্যে সমঝোতা সৃষ্টি করতে পারি কি না। আমরা বলেছি সেটা আমাদের দায়িত্বের পরিধিভুক্ত নয়।’

‘তবে আমরা মিডিয়ার মাধ্যমে বারবার বলে যাচ্ছি যে, নির্বাচনটা অংশগ্রহণমূলক, প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হওয়া প্রয়োজন। তাহলেই এটার গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেশি হবে। সেই লক্ষ্যে আগেও যেমন দলগুলোকে আহ্বান জানিয়েছি গণমাধ্যমের মাধ্যমে, সব সময় আমাদের যে ইচ্ছে সেটা জানাচ্ছি। আমরা আমাদের যথাসাধ্য চেষ্টা করবো যে নির্বাচনটা যেন অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য হয়। আমরা সবাইকে আবেদন করব যে আপনারা আমাদের ওপর আস্থা রাখুন এবং দেখুন যে নির্বাচনটা কেমন হয়।’

সিইসি আরও বলেন, ‘যদি সব দল অংশগ্রহণ করে, আমরা নিশ্চিত নির্বাচনের ফলাফলটা অনেক বেশি ভালো, অনেক বেশি ইতিবাচক হবে এবং জনগণের কাছে অধিক গ্রহণযোগ্য হবে।’

সাক্ষাৎ অনুষ্ঠানের পর অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনার জেরেমি ব্রুয়ের বলেন, তার দেশ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক দেখতে চায়।

তিনি বলেন, ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও তার সহকর্মীদের সঙ্গে নির্বাচনি প্রক্রিয়া নিয়ে খুব সুন্দর মতবিনিময় করেছি। আমরা অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চাই।’

রাবিতে রেললাইনে আগুন জ্বালিয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

ডেস্ক রিপোর্ট :

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষের ঘটনায় এবার রেললাইনে আগুন দিয়ে বিক্ষোভ করছেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের একাংশ। বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের পাশের রেললাইনে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ করছেন তারা।

আজ সোমবার (১২ মার্চ) রাত ৮টার দিকে শিক্ষার্থীদের একাংশ রেললাইনে টায়ার ও টিউব জ্বালিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন। এতে ওই রেললাইন দিয়ে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

এর আগে গতকাল অর্থাৎ শনিবার (১১ মার্চ) সন্ধ্যায় এক তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষ শুরু হয়। প্রায় আট ঘণ্টাব্যাপী ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, মুখোমুখি সংঘর্ষে অন্ততপক্ষে দুই শতাধিক শিক্ষার্থী আহত হন। আগুন দেওয়া হয় বিনোদপুর বাজারের কয়েকটি দোকান ও পুলিশ বক্সে। পরে রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

গতকালের ঘটনায় আজ সকাল থেকে ফের বিক্ষোভ শুরু করেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন তারা। এ সময় প্রশাসন ভবনের গেটে তালা লাগিয়ে দেয় বিক্ষুব্ধরা। পরে সেখান থেকে একটি মিছিল নিয়ে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। একই সময়ে ছয় দফা দাবিতে রাবি উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তারের বাসভবনের সামনে অবস্থান নেয় আন্দোলনরতরা।

না দেখানো দৃশ্য নিয়ে ওটিটিতে আসছে ‘পাঠান’

বিনোদন ডেস্ক :
ইয়াশরাজ ফিল্মসের স্পাই ইউনিভার্সের  ‘পাঠান’ সিনেমা বিশ্বব্যাপী মুক্তি পায় ২৫ জানুয়ারি। ছয় সপ্তাহে পেরিয়ে এখনো প্রেক্ষাগৃহে চলছে সিনেমাটি। এখন পর্যন্ত এই ছবির আয় ১ হাজার ৫০ কোটি রুপির আশপাশে।

সিদ্ধার্থ আনন্দের পরিচালনায় শাহরুখ খানের এই কামব্যাক সিনেমায় আরো অভিনয় করেছেন দীপিকা পাড়ুকোন, জন আব্রাহাম, ডিম্পল কাপাডিয়া ও বিশেষ চরিত্রে সালমান খান।

সিনেমা হলে ‘পাঠান’-এর মুক্তি সহজ ছিল না। ‘বেশরম রং’ গানটি প্রকাশ্যে আসতেই নিন্দার ঝড় ওঠে। কুরুচির অভিযোগের পাশাপাশির দীপিকার বিকিনির রং নিয়ে ছিল আপত্তি। অবশ্য সেন্সরবোর্ড অনেক সংলাপ বাদ দিলেও পোশাকের ওপর ছুরি-কাঁচি চালায়নি।

শত কোটি রুপি খরচ করে ‘পাঠান’-এর ওটিটি স্বত্ত্ব কিনে নিয়েছে আমাজন প্রাইম ভিডিও। সেই খরচ তুলে আনতে তারা চেষ্টা কমতি রাখছে না। স্ট্রিমিংয়ে এমন কিছু দেখা যাবে, যা প্রেক্ষাগৃহে যাওয়া দর্শকরা দেখেননি। শোনা যাচ্ছে,

এ বিষয়ে পরিচালক সিদ্ধার্থ বলেন, ‘পাঠান’ চরিত্রকে একটি সিনেমাহলের মধ্যে পাওয়া গেছে, যার নাম ‘নবরঙ্গ’। সম্পাদনার সময় সেই দৃশ্য বাদ যায়, হয়তো সেটি আবার ওটিটি সংস্করণে ফিরিয়ে আনা হবে।

সিরিজ জয়ে যা বললেন সাকিব

স্পোর্টস ডেস্ক :

টি-টোয়েন্টিতে ১৭ বছরের পথচলায় প্রথমবারের মতো ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জিতল বাংলাদেশ। যা ছোট ফরম্যাটে সাকিবদের সবচেয়ে বড় অর্জনের একটি। আইসিসির পূর্ণ সদস্য দেশগুলোর মধ্যে এরআগে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও জিম্বাবুয়েকে সংক্ষিপ্ত সংস্করণে সিরিজে হারিয়েছে বাংলাদেশ।

আর এমন দুর্দান্ত সিরিজ জয়ে খুশি অধিনায়ক সাকিব আল হাসানও। ম্যাচশেষে পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে কৃতিত্ব দিলেন ক্রিকেটারদের। সাকিব বলেন, ‘আমি মনে করি আমরা সত্যিই দারুণ বোলিং করেছি। তারা ভালো শুরু  করেছিল, তবে আমরা খুব দ্রুতই ব্রেক থ্রু দিতে পেরেছি। আমরা শেষ পর্যন্ত চাপ সামাল দিতে পেরেছি বলেই এমন জয়।’

সাকিব আরও যোগ করেন, ‘এইরকম ক্লোজ ম্যাচগুলো আপনার জেতা খুবই জরুরি। বিশেষ করে শান্ত দুর্দান্ত ব্যাটিং করেছে। পাশাপাশি মিরাজ অসাধারণ বোলিং করেছে। প্রথম ম্যাচে না খেললেও মিরাজ আজকে যেভাবে খেলেছে, সত্যিই আমাকে অবাক করেছে। কারণ দলের জয়ে ১৫-২০ রান অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। সবাই ভালো বল করেছে।’

আগামী মঙ্গলবার (১৪ মার্চ) মিরপুরে তৃতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ইংল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশের লক্ষ্যে মাঠে নামবে সাকিবের দল।

বিএনপি বিদেশি প্রভুদের সঙ্গে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত

ডেস্ক রিপোর্ট :
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রাষ্ট্রক্ষমতা দখলের জন্য অতীতের ধারাবাহিকতায় বিএনপি নেতারা বিদেশি দূতাবাসগুলোতে এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মহলে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। ক্ষমতা দখলের নীলনকশা বাস্তবায়নে ১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর কাছ থেকে অর্থ সহায়তা নিয়েছিল। কয়েক বছর আগে পাকিস্তানের আদালতে সংস্থাটির তৎকালীন প্রধান জবানবন্দিতে তা উল্লেখ করেছেন। পরবর্তীকালে ২০০১ সালের নির্বাচনের আগেও বিদেশি প্রভুদের কাছে আমাদের জাতীয় সম্পদ প্রাকৃতিক গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়ে কারচুপির মাধ্যমে রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করেছিলেন খালেদা জিয়া।

রবিবার এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেন তিনি। বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের আরও উল্লেখ করেন, অতীতের ধারাবাহিকতায় আমরা দেখি, ক্ষমতা দখলের জন্য কীভাবে বিএনপি নেতারা বিদেশি দূতাবাসগুলোতে এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মহলে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। বিদেশি প্রভুদের স্বার্থরক্ষার মুচলেকা দিয়ে যারা ক্ষমতায় আসে তারা কখনোই জনগণের কল্যাণ করতে পারে না। বিএনপি-জামায়াত অশুভ জোটের দুঃশাসন, দুর্নীতি, লুটপাট, দুর্বৃত্তায়নই তার জ্বলন্ত উদাহরণ।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ষড়যন্ত্রমূলক বক্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জনগণের কল্যাণে রাজনীতি করে। জনগণই আওয়ামী লীগের শক্তির একমাত্র উৎস। জনগণের ম্যান্ডেট নিয়েই আওয়ামী লীগ সবসময় ক্ষমতায় এসেছে এবং জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা ও প্রত্যাশাকে ধারণ করে রাষ্ট্র পরিচালনা করেছে।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রক্ষমতার জন্য আওয়ামী লীগ কখনো জনগণ ব্যতীত অন্য কারও মুখাপেক্ষী হয়নি। যার জন্য দেশি-বিদেশি সুপরিকল্পিত ষড়ন্ত্রের মাধ্যমে অসংখ্যবার আওয়ামী লীগের নিশ্চিত বিজয় ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ইস্যুটি একটি ‘ডেড ইস্যু’। গণতন্ত্রকামী প্রত্যেক মানুষ মাত্রই জানেন, জনগণ কর্তৃক নির্বাচিত নয় এমন ব্যক্তি দ্বারা এক মুহূর্তের জন্যও রাষ্ট্র পরিচালনা সম্পূর্ণরূপে গণতন্ত্রের অন্তর্নিহিত আদর্শের পরিপন্থি। অনির্বাচিত ব্যক্তি বা গোষ্ঠী ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হলে জনগণ ক্ষমতাহীন হয়ে পড়ে। তাছাড়া দেশের সর্বোচ্চ আদালত কর্তৃক সুস্পষ্টভাবে অবৈধ ও অসাংবিধানিক আখ্যা দেওয়া কোনো পদ্ধতিতে ফিরে যাওয়া অসম্ভব।

তিনি বলেন, আমরা দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলতে চাই, বিশ্বব্যাপী প্রচলিত গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া ও দেশের সাংবিধানিক বিধান অনুযায়ী আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে। সেই নির্বাচনে জনগণই নির্ধারণ করবে কে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে থাকবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেতারা মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও তাদের অন্তরে স্বৈরাচারের চেতনা প্রবাহমান। যারা একজন দুর্নীতিবাজ পলাতক খুনি আসামির জন্য দলীয় গঠনতন্ত্রে দুর্নীতিকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয় তাদের মুখে গণতন্ত্রের কথা মানায় না। কানাডার আদালত কর্তৃক আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সন্ত্রাসী সংগঠন বিএনপিই এদেশের গণতন্ত্রের প্রধান অন্তরায়। বিএনপি মানেই দুর্নীতি, লুটপাট, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, খুন-ধর্ষণ; সর্বোপরি জনগণের ওপর নির্যাতন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের মূল লক্ষ্য দেশের উন্নয়ন, জনগণের জীবনমান উন্নয়ন। সফল রাষ্ট্রনায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার ধারাবাহিকভাবে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে থাকায় বাংলাদেশের অর্থনীতি মজবুত ভিতের ওপর প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সব প্রতিবন্ধকতা জয় করে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে।

নির্বাচন পরিচালনায় ইসি সম্পূর্ণ স্বাধীন

ডেস্ক রিপোর্ট :

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নির্বাচন কমিশন (ইসি) আগামী সাধারণ নির্বাচন পরিচালনার জন্য সম্পূর্ণ স্বাধীন। বাংলাদেশে সফররত যুক্তরাজ্যের ফরেন কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (এফসিডিও) প্রতিমন্ত্রী (ইন্দো-প্যাসিফিক) অ্যান-মেরি ট্রেভেলিয়ান গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের সময় একথা বলেন শেখ হাসিনা। বৈঠকে তারা নির্বাচন, রোহিঙ্গা ইস্যু ও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, কোভিড-১৯ মহামারি এবং কোভিডপরবর্তী পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

আগামী সাধারণ নির্বাচন সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ ওয়েস্টমিনস্টার ধরনের গণতন্ত্র অনুসরণ করে। আমাদের মূল লক্ষ্য জনগণের কল্যাণ নিশ্চিত করা। ইসি সম্পূর্ণ স্বাধীন। এটি নির্বাচন পরিচালনা করবে।’

মতপ্রকাশের স্বাধীনতা প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, ‘গণমাধ্যম এখানে পূর্ণ স্বাধীনতা ভোগ করে। একসময় দেশে একটি মাত্র টেলিভিশন চ্যানেল ছিল, বর্তমানে তাঁর সরকার বেসরকারি খাতে টেলিভিশন চ্যানেলকে উন্মুক্ত করে দিয়েছে। এখন ২৪টি প্রাইভেট টিভি চ্যানেল রয়েছে এবং আরও টিভি চ্যানেল পাইপলাইনে রয়েছে।’

যুক্তরাজ্যের ইন্দো প্যাসিফিক প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) সদস্য থেকে উত্তোরণের পথে বাংলাদেশের জন্য উন্নয়নের পরবর্তী ধাপ খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

অ্যান-মেরি ট্রেভেলিয়ান জানান, তিনি কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন। একইসঙ্গে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত লোকদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ ও শেখ হাসিনার প্রশংসা করেন। রোহিঙ্গা শিবিরে সাম্প্রতিক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা সুন্দরভাবে মোকাবিলায় প্রশাসনের প্রশংসাও করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতি বছর জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীতে বিপুল সংখ্যক নতুন শিশুর জন্ম হয়, যা বাংলাদেশের ওপর বোঝা আরও তীব্র করছে।’

কোভিড-১৯ মহামারি গোটা বিশ্বকে প্রভাবিত করেছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ আরও খাদ্য উৎপাদনের ওপর জোর দিয়েছে এবং সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নিয়েছে।’

অ্যাম্বাসেডর-অ্যাট-লার্জ মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন এবং বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটারটন ডিকসন এ সময় উপস্থিত ছিলেন।