বাংলাদেশ সেনাপ্রধানের সাথে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ

ডেস্ক রিপোর্ট :
মিয়ানমার সেনাবাহিনীর তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বুধবার (২৬ অক্টোবর) সেনাবাহিনী সদর দফতরে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। মিয়ানমার দলের নেতৃত্ব দেন ব্যুরো অব স্পেশাল অপারেশনের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল ফোঁ মিয়াত।

সাক্ষাৎকালে পারস্পরিক কুশল বিনিময় ছাড়াও প্রতিনিধি দলটি নিজ দেশের পরিস্থিতির ওপর আলোকপাত করেন এবং বন্ধুপ্রতিম দেশ হিসেবে পারস্পরিক সৌহার্দ্য অটুট রেখে নিজ দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করছেন বলে জানান।

এ সময় সেনাবাহিনী প্রধান দুই দেশের সেনাবাহিনীর সম্পর্ক উন্নয়ন, উচ্চপদস্থ সেনা কর্মকর্তাদের বিভিন্ন বিষয় সংক্রান্ত যৌথ আলোচনা, প্রশিক্ষণ বিনিময়, সম্মিলিত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, প্রাসঙ্গিক তথ্য বিনিময় ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা করেন এবং আঞ্চলিক নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে একসাথে কাজ করার আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান বলেন, ‘বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকবৃন্দ একটি আঞ্চলিক সমস্যা।’ দীর্ঘদিন এই জনগোষ্ঠীকে স্থান দেওয়ার ফলে সৃষ্ট নিরাপত্তা-ঝুঁকিসমূহ দূরীকরণের লক্ষ্যে তিনি দ্রুত রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনের বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন।

মিয়ানমারের প্রতিনিধি নিজ দেশের প্রগতি ও নিরাপত্তার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানান এবং বাংলাদেশের সাথে মিত্রতা ও অধিকতর যোগাযোগের মাধ্যমে দ্বিপাক্ষিক বিষয়াদির সমাধানে আগ্রহ প্রকাশ করেন।

এরপরে প্রতিনিধি দলটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চিফ অব জেনারেল স্টাফ লেফটেন্যান্ট জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসাননের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

সাক্ষাৎকালে চিফ অব জেনারেল স্টাফ বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণ বিনিময় ও মান উন্নয়নে সহযোগিতা, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মোকাবিলায় সহযোগিতা ইত্যাদি বিষয়ে সহযোগিতা বৃদ্ধির বিষয়ে আলোকপাত করেন। এ সময় তিনি সীমান্ত এলাকায় সামরিক অভিযান পরিচালনার ক্ষেত্রে অধিকতর সতর্কতা অবলম্বনের বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দেন এবং সন্ত্রাসীরা কোনো দেশের পক্ষেই কাজ করে না বলে মন্তব্য করেন। এ ছাড়া চিফ অব জেনারেল স্টাফ দুই দেশের সামরিক প্রশিক্ষণ বিনিময়ের তুলনামূলক চিত্র তুলে ধরেন এবং সীমান্ত এলাকায় শান্তিরক্ষার জন্য উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী একসাথে কাজ করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

মিয়ানমারের প্রতিনিধি দলের বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সদর দফতরে সৌজন্য সাক্ষাতের মধ্য দিয়ে উভয় সেনাবাহিনীর সম্পর্ক আরও সূদৃঢ় হবে এবং সামরিক বিষয়াদি আরও সহজতর হবে বলে আশা করা যায়।

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ব্রুনাইয়ের সুলতান

ডেস্ক রিপোর্ট :
ব্রুনাইয়ের সুলতান হাজী হাসানাল বলকিয়াহ মুইজ্জাদ্দিন ওয়াদদৌল্লাহ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

রবিবার বিকেল ৩টার দিকে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করেন তিনি।

এ সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ব্রুনাইয়ের সুলতান। তিনি জাদুঘরের বিভিন্ন গ্যালারি ঘুরে দেখেন।

শনিবার দুদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ঢাকায় এসেছেন ব্রুনাইয়ের সলতান। শনিবার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ব্রুনাইয়ের সুলতানকে স্বাগত জানান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। বিমানবন্দরে ব্রুনাইয়ের সুলতানকে লাল গালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

শনিবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনের ক্রেডেনশিয়াল হলে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে বৈঠক করেন ব্রুনাইয়ের সুলতান। বঙ্গভবনের দরবার হলে ব্রুনাইয়ের সুলতানের সম্মানে রাষ্ট্রীয় নৈশভোজ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন রাষ্ট্রপতি। এছাড়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন ব্রুনাইয়ের সুলতানের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

রবিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ব্রুনাইয়ের সুলতান বৈঠকে বসেন।

ব্রুনাইয়ের সুলতানের এটাই বাংলাদেশে প্রথম সফর। ঢাকা সফরের প্রথম দিন তিনি সাভার জাতীয় স্মৃতি সৌধে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। দুদিনের সফর শেষে রবিবার সন্ধ্যায় ব্রুনাইয়ের সুলতান ঢাকা ছাড়বেন।

ব্রুনাইয়ের সঙ্গে এক চুক্তি ও তিন সমঝোতা

ডেস্ক রিপোর্ট :
বাংলাদেশ-ব্রুনাইয়ের মধ্যে একটি চুক্তি ও তিনটি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। রোববার (১৬ অক্টোবর) বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশ সফররত ব্রুনাইয়ের সুলতান হাজি হাসানাল বলকিয়াহর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক শেষে এ চুক্তি ও স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

জানা গেছে, বৈঠক শেষে ব্রুনাই ও বাংলাদেশের মধ্যে বিমান চলাচল সংক্রান্ত একটি চুক্তি সই হয়েছে। এ ছাড়া জনশক্তি রফতানি, জ্বালানি সহযোগিতা ও নাবিকদের সার্টিফিকেশন সংক্রান্ত তিনটি সমঝোতা স্মারক সই হয়।

এরআগে, বিকেল পৌনে ৪টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পৌঁছালে ব্রুনাই দারুসসালামের সুলতান হাসানাল বলকিয়াহকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর দুই নেতার মধ্যে একান্ত বৈঠক শুরু হয়।

তিনদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে শনিবার (১৫ অক্টোবর) দুপুরে ঢাকায় পৌঁছান সুলতান বলকিয়াহ। এ সময় বিমানবন্দরে তাকে লালগালিচা সংবর্ধনা দিয়ে স্বাগত জানায় বাংলাদেশ। সুলতানকে বিমানবন্দরে স্বাগত জানান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।
বিমানবন্দর থেকে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধ গিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান সুলতান। পরে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে গিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানান। শনিবার রাতে তিনি বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের দেয়া নৈশভোজে অংশ নেন।

সোমবার (১৭ অক্টোবর) ঢাকা ত্যাগ করার কথা রয়েছে ব্রুনাইয়ের সুলতানের।

 

অনার্স মাস্টার্স শিক্ষক ফেডারেশনের কমিটি গঠন

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত বেসরকারী কলেজসমুহে কর্মরত অনার্স মাস্টার্স শিক্ষকের সংগঠন ” বাংলাদেশ বেসরকারী কলেজ অনার্স মাস্টার্স শিক্ষক ফেডারেশনের ২০২২- ২৩ বছরের কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটি পূনর্গঠন করা হয়েছে। গতকাল ২৩/০৯/২২ তারিখ অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায়  সারাদেশের কলেজ ও জেলা প্রতিনিধিদের মতামতে ভিত্তিতে ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরী কমিটি গঠন করা হয়। মোঃ মনিরুজ্জামান মোড়লকে  সভাপতি, নাজমুল হুদা সিদ্দিকী কার্যকরী সভাপতি এবং শেখ শামীম আরা সুলতানা সুমীকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। এছাড়া কমিটিতে ১৮ জন সভাপতি মন্ডলীর সদস্য, ১০ জন সাধারণ সম্পাদক, ১০ সাংগঠনিক সম্পাদক, ৫ জন সম্পাদক, ১০ জন উপদেষ্টা, ১৬ জন সদস্য নিয়ে কার্যকরী কমিটির গঠন করা হয়। এদিকে  গতকাল ২৪/০৯/২২  তারিখ  রাত ৯.০০ ঘটিকায় কার্যকরী কমিটির প্রথম সভা  সংগঠনের সভাপতি মনিরুজ্জামান মোড়লের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক শেখ শামীম আরা সুলতানা সুমীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয়। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন কার্যকরী সভাপতি নাজমুল হুদা সিদ্দিকী রাজু।
সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মাসুদ করিম সভায় আলোচ্যসূচি উপস্হাপন করার পরে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মাহবুবা বেগম, আজিম উদ্দীন সরদার, মোকলেসুর রাহমান মনি,  হামিদুর রহমান, মামুনুর রশীদ, মেহেদী হাসান সুরুজ, মিহির কুমারমন্ডল, রুহুল আমীন, রাকিবুল হাসান,  যুগ্ন সম্পাদক মো. আলমগীর হোসেন, সানোয়ার হোসেন, হুমায়ুন কবীর সুমন, রিপন চন্দ্র তালুকদার, জসীম উদ্দীন, আহমদ উল্লাহ কেন্দ্রীয় নেতা মোঃ ইউনুস শরীফ অপু, রুনী চৌধুরী,  রোকসানা সুলতানা, সাদিয়া  ফারজানা, সানজিদা হাসান, জ্যোতি বিশ্বাস, নাসির উদ্দীন, কে এম বিপ্লব সহ বিভিন্ন বিভাগ ও জেলার অর্ধশতাধিক নেতৃবৃন্দ।
সভায় সর্বসম্মতিক্রমে
আগামী  ০৩/১০/২০২২ তারিখ সোমবার গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায়  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে নবগঠিত কমিটির শ্রদ্ধা নিবেদন, কবর জিয়ারত, ফাতেহা পাঠ ও দোয়া অনুষ্ঠান এবং  ০৫/১০/২২ তারিখ বুধবার ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন ও  কর্মসূচি ঘোষণার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ডেস্ক রিপোর্ট :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেকসই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মনোযোগ ধীরে ধীরে মিয়ানমারের নতুন বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ সংঘাতের দিকে সরে যাওয়ায় রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের বিষয়ে তিনি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী আজ রোহিঙ্গা ইস্যুতে একটি উচ্চ পর্যায়ের পার্শ্ব ইভেন্টে বক্তব্য দেওয়ার সময় বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের টেকসই প্রত্যাবাসনের জন্য জাতিসংঘ এবং আন্তর্জাতিক অংশীদারদের একটি অনুকূল পরিবেশ তৈরি করতে বাস্তব পদক্ষেপ এবং প্রকল্প গ্রহণ করা দরকার।’

প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা সংকটের স্থায়ী সমাধানের জন্য আন্তর্জাতিক আইনপ্রয়োগ এবং মিয়ানমারে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে লড়াই জোরদার করার লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক আদালত, আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত এবং আইসিজেতে গাম্বিয়াকে সমর্থন করাসহ আন্তর্জাতিক আদালতের বিচারকার্যের পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের রাজনৈতিক ও আর্থিকভাবে সমর্থন করার জন্য বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের অব্যাহত দমন-পীড়ন বন্ধে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টির প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেন এবং মিয়ানমারকে আসিয়ানের পাঁচ দফা ঐকমত্যের অধীনে তার অঙ্গীকার মেনে চলার জন্য জোর দিয়ে মিয়ানমার যাতে বাধাহীন মানবিক অ্যাক্সেস দিতে সম্মত হয়, সে জন্য প্রচেষ্টা চালানোর অনুরোধ করেন।

বর্তমানে ৭৭তম ইউএনজিএতে যোগ দিতে নিউইয়র্কে অবস্থানরত প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আঞ্চলিক সংস্থা হিসেবে আসিয়ান এবং পৃথক সদস্য রাষ্ট্রগুলো মিয়ানমারের সঙ্গে তাদের গভীর ঐতিহাসিক সম্পর্ক ও লিভারেজ নিয়ে এমন সার্বিক সম্পৃক্ততায় ভূমিকা নিতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের জন্য নাগরিকত্বের পথ সুগম করাসহ রাখাইন রাজ্যবিষয়ক কফি আনান উপদেষ্টা কমিশনের সুপারিশসমূহ সম্পূর্ণরুপে বাস্তবায়নে তাদের ব্যাপক প্রচেষ্টা গ্রহণ করা উচিত।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘বেসামরিক পর্যবেক্ষক হিসেবে তাদের অর্থবহ উপস্থিতি রোহিঙ্গাদের স্বেচ্ছায় প্রত্যাবর্তনের আস্থা বাড়াবে।’

‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়, জাতিসংঘ ও আসিয়ানের বর্তমান ফোকাস মিয়ানমারে স্বাভাবিকতা ফিরিয়ে আনা’ উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের তাদের স্বদেশে টেকসই প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে এবং মিয়ানমারের জনগণের জন্য শান্তি ও ন্যায়বিচার নিশ্চিতে বাংলাদেশ তাদের শক্তিশালী ভূমিকার জন্য অপেক্ষা করছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিশ্ব এখন বিশ্বজুড়ে উদ্ভূত নতুন নতুন সংঘাত প্রত্যক্ষ করছে এবং দুর্ভাগ্যবশত রোহিঙ্গা সংকটের রাজনৈতিক সমাধান ও এর ক্রমবর্ধমান মানবিক চাহিদা মেটানো দুটো থেকেই বিশ্বের মনোযোগ ধীরে ধীরে সরে যাচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আগস্ট ২০২২ পর্যন্ত জেপিআর-২০২২-এর অধীনে আপিলকৃত ৮৮১ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের মাত্র ৪৮ শতাংশ অর্থায়ন করা হয়েছে। একই সময়ে মিয়ানমারে সাম্প্রতিক অভ্যন্তরীণ সংঘাতের বিরূপ প্রভাব আমাদের গভীরভাবে উদ্বিগ্ন করেছে, কারণ এটি তাদের প্রত্যাবাসন শুরুর করার সম্ভাবনার পথে আরও বাধা সৃষ্টি করতে পারে।’

আর্থিক প্রতিষ্ঠানেও জ্বালানি সাশ্রয়ে নীতিমালা করার নির্দেশ

ডেস্ক রিপোর্ট :
জ্বালানি সাশ্রয়ে টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (স্রেডা) নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানে নীতিমালা তৈরি ও তা পরিপালন করতে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। রবিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগ এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা দিয়ে সব আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহীদের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে।

নির্দেশনায় স্রেডার গাইডলাইন ও নির্দেশিকার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব নীতিমালা প্রণয়ন এবং তা যথাযথভাবে প্রতিপালন নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে। আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইন, ১৯৯৩ এর ১৮(ছ) ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এর আগে ব্যাংকগুলোর জন্য একই নির্দেশনা দিয়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

ভারতে পোশাক রপ্তানি বেড়ে দ্বিগুণ

ডেস্ক রিপোর্ট :

চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকপণ্য রপ্তানিতে ২৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। পাশাপাশি প্রতিবেশি দেশ ভারতেও পোশাক রপ্তানি হয়েছে দ্বিগুণ।

গতকাল বৃহস্পতিবার রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) দেশভিত্তিক রপ্তানি আয়ের হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। এই দুই মাসে ভারতে প্রায় ১৯ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি করেছেন বাংলাদেশের উদ্যোক্তারা। বিগত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় এটি প্রায় দ্বিগুণ।

২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে ভারতে নয় কোটি ৪৬ লাখ ডলারের পোশাক রপ্তানি করেছেন দেশের উদ্যোক্তারা। সেই হিসেবে ভারতে তৈরি পোশাকের রপ্তানি বেড়েছে ৯৮ দশমিক ৯২ শতাংশ।

ইপিবির তথ্যে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) দেশগুলোতে বাংলাদেশ থেকে ৩৪৪ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়েছে। যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২৩ দশমিক ২১ শতাংশ বেশি। একই সময়ে জার্মানিতে রপ্তানি বেড়েছে ১৬ দশমিক ৪৪ শতাংশ, স্পেন এবং ফ্রান্সে রপ্তানি বেড়েছে যথাক্রমে ২৪ দশমিক ৫২ ও ৩৭ দশমিক ৭৩ শতাংশ।

এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক পণ্যে রপ্তানি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২০ দশমিক ৫২ শতাংশ। যুক্তরাজ্য এবং কানাডায় রপ্তানি বেড়েছে যথাক্রমে ৩৫ দশমিক ৬৪ ও ১৮ দশমিক ৫০ শতাংশ।

তবে, চীন ও রাশিয়ায় পোশাক রপ্তানি কমেছে। চীন ও রাশিয়ায় যথাক্রমে ১৩ দশমিক ২১ শতাংশ ও ৫৮ দশমিক ২৯ শতাংশ রপ্তানি কমেছে।

২২ দিন ইলিশ ধরা-বিক্রি নিষিদ্ধ

ডেস্ক রিপোর্ট :
আগামী ৭ অক্টোবর থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত মোট ২২ দিন সারাদেশে উৎপাদন বাড়াতে ও ডিম ছাড়ার সুযোগ দিতে ইলিশ আহরণ বন্ধ থাকবে। এসময় দেশব্যাপী ইলিশ আহরণ, বিপণন, ক্রয়-বিক্রয়, পরিবহন, মজুদ ও বিনিময় নিষিদ্ধ থাকবে।

আজ বৃহস্পতিবারমৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ইফতেখার হোসেন এ তথ্য জানান। তিনি জানান, ইলিশের নিরাপদ প্রজননের লক্ষ্যে ৭ থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন সারাদেশে ইলিশ আহরণ, পরিবহন, ক্রয়-বিক্রয়, মজুদ ও বিনিময় নিষিদ্ধ থাকবে।

প্রসঙ্গত, ইলিশ সম্পদ সংরক্ষণে ‘প্রটেকশন অ্যান্ড কনজারভেশন অব ফিশ অ্যাক্ট, ১৯৫০’ এর অধীন প্রণীত ‘প্রটেকশন অ্যান্ড কনজারভেশন অব ফিশ রুলস, ১৯৮৫’ অনুযায়ী এই ২২ দিন সারাদেশে ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহন, মজুদ, বাজারজাতকরণ, ক্রয়-বিক্রয় ও বিনিময় নিষিদ্ধ করেছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

এই ২২ দিন সারাদেশে ইলিশ আহরণ, পরিবহন, মজুদ, বাজারজাতকরণ, ক্রয়-বিক্রয় ও বিনিময় দণ্ডনীয় অপরাধ। আইন অমান্যকারী কমপক্ষে ১ থেকে সর্বোচ্চ ২ বছর সশ্রম কারাদণ্ড অথবা পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবে।

দেশের জ্বালানি সংকট সমাধানে সহায়তা করবে ভারত : প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট :

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের জ্বালানি সংকট সমাধানে সহায়তা করবে ভারত, এ বিষয়ে তারা আমাদের আশ্বাস দিয়েছে। এ ছাড়া দেশের ভেতরে খনিজ সম্পদের উৎপাদন বাড়াতে পেট্রোবাংলা দায়িত্ব পালন করবে।

তিন বছর পর এ সফরে আমাদের মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ তৈরি হয়েছে। এ সময় ভারত থেকে পেঁয়াজ, আদা রসুনসহ প্রয়োজনীয় সংকট সমাধানে ভারত সহযোগিতা করে আসবে।

এ সময় রেল যোগাযোগ, তথ্য প্রযুক্তি, জলবায়ু পরিবর্তনে জাতিসংঘে একমত হওয়াসহ বিভিন্ন বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছাতে পেরেছি। এটি ছিল ঐতিহাসিক সফর। ভারতের সাথে আমাদের দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। এটি অব্যাহত থাকবে।

সদ্যসমাপ্ত ভারত সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলন শুরু হয়েছে আজ বুধবার বিকেল ৪টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে ৫ সেপ্টেম্বর থেকে ৮ সেপ্টেম্বর মোট চার দিন সে দেশে সরকারি সফর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সফরে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের মাধ্যমে অভিন্ন সীমান্ত নদী কুশিয়ারা থেকে ১৫৩ কিউসেক পানি প্রত্যাহারসহ সাতটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

সফরে ভারতের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের উন্নয়ন মন্ত্রী জি কিষাণ রেড্ডি, কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী এবং নোবেল বিজয়ী কৈলাশ সত্যার্থী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে পৃথকভাবে সাক্ষাত করেন।

‘কারও কাছে হাত পেতে চলব না, আমাদের মাটি উর্বর’

ডেস্ক রিপোর্ট : 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘কারও কাছে আমরা হাত পেতে চলব না। আমাদের মাটি উর্বর, নিজের ফসল নিজেদেরই বেশি ফলাতে হবে। আমাদের খাদ্য উৎপাদনে আরও জোর দিতে হবে। দেশের মাটি ও মানুষকে কাজে লাগিয়ে আমাদের আত্মনির্ভরশীর হতে হবে। খাদ্য চাহিদা মেটাতে আরও বেশি করে ফসল ফলাতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী আজ মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ কথা বলেন। সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষের সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি সভাপতিত্ব করেন। সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এসব তথ্য তুলে ধরেন। এ সময় পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম উপস্থিত ছিলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জানান, চলমান বৈশ্বিক সংকটে নিজেদের ফসল উৎপাদন বাড়াতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও দপ্তরগুলোকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘জ্বালানি তেলের দাম আরও কমানোর বিষয়ে আলোচনা চলছে। অক্টোবরের মধ্য মূল্যস্ফীতি কমতে থাকবে।’

সভার কার্যক্রম তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, কুমিল্লা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফোর লেন নির্মাণসহ ছয়টি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে একনেক। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে মোট আট হাজার ৭৪৯ কোটি ৬৮ লাখ টাকা ব্যয় হবে। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে দেওয়া হবে পাঁচ হাজার ৯২৯ কোটি টাকা। বাকি দুই হাজার ৮১০ কোটি ৬৪ লাখ আসবে বৈদেশিক ঋণ থেকে।