দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে একজন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন

ডেস্ক রিপোর্ট :
দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে একজন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গু বিষয়ক এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে একজন নতুন ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তিনি ঢাকার বাইরের হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

বর্তমানে সারা দেশে সর্বমোট ১৯ জন ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ১৩ জন এবং ঢাকার বাইরে সারা দেশে ছয়জন ডেঙ্গুরোগী ভর্তি রয়েছেন।

২০২৩ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে মোট ৭০০ জন ডেঙ্গুরোগী ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকায় ৩৩৫ জন এবং ঢাকার বাইরে সারা দেশে রয়েছে ৩৬৫ জন।

একইসময়ে সারা দেশে সর্বমোট ছাড়প্রাপ্ত ডেঙ্গুরোগী ৬৭২ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ছাড়প্রাপ্ত রোগী ৩১৬ জন, ঢাকার বাইরে সারা দেশে ৩৫৬ জন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি এবং এবছর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মোট নয়জনের মৃত্যু হয়েছে।

ছড়িয়ে পড়েছে নিপাহ ভাইরাস

ডেস্ক রিপোর্ট :
দেশে নিপাহ ভাইরাসের সংক্রমণ দিন দিন বেড়েই চলেছে। কিন্তু এ রোগের বিষয়ে জনসচেতনার লক্ষ্যে স্বাস্থ্য বিভাগের তেমন একটা প্রচার প্রচারণা নেই বললেই চলে। ফলে জনসাধারণকে খেজুরের রস পান থেকে কোনোভাবেই বিরত রাখা যাচ্ছে না। নিপাহ ভাইরাস সর্ম্পকে আমজনতার কোনো ধারণা নেই। যে ভাইরাসে আক্রান্ত হলে অধিকাংশ মানুষেরই মৃত্যু ঘটে।

নাটোরের হাট বাজার এবং সড়ক-মহাসড়কে  খেজুরের রস ক্রয়, বিক্রয় এবং পান করার হিড়িক পড়েছে। জেলায় স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে নিপাহ ভাইরাসের বিষয়ে তেমন কোনো দৃশ্যমান সতর্কতামূলক প্রচার-প্রচারণা নেই। ভয়াবহ এ ভাইরাসের খবর জানেন না গাছিরা। জানা নেই সাধারণ মানুষেরও।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যনুযায়ী, নিপাহ ভাইরাস এখন পর্যন্ত দেশের ২৮ জেলায় ছড়িয়ে পড়ার খবর জানানো হয়েছে। কিন্তু অন্যদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক তথ্য বলছে, নিপাহ ভাইরাস দেশের অন্তত ৩২ জেলায় ছড়িয়ে পড়েছে। নিপাহ ভাইরাসে চলতি বছরে আক্রান্ত হয়েছেন মোট ১২ জন। তাদের মধ্যে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য বিভাগ। এ ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুহার ৮০ শতাংশ। তাই নিপাহ ভাইরাসের ঝুঁকি থাকার পরও বন্ধ হয়নি খেজুরের রস পান।

গত ৩০ জানুয়ারি রাজশাহী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার করমদোশী গ্রামের শিশু সিয়াম হোসেন। পরীক্ষার পর জানা যায়, সিয়ামের মৃত্যু হয়েছে নিপাহ ভাইরাসে। এ ঘটনার পর আইইডিসিআরের ৬ সদস্যের প্রতিনিধি দল বাগাতিপাড়ায় খেজুরের রস খাওয়া ব্যক্তিদের নমুনা সংগ্রহ করে। কিন্তু তারপরও নিপাহ ভাইরাসের ঝুঁকিতে থাকা নাটোরের জনসাধারণের মধ্যে কমছে না কাঁচা রস খাওয়ার প্রবণতা। গত সপ্তাহে রাজশাহীর একজন নারী নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। ৩৫ বছর বয়সী ওই নারী আক্রান্ত হওয়ার আগে খেজুরের রস খেয়েছিলেন। বাদুড় নিপাহ ভাইরাসের বাহক। খেজুরের রসে এ ভাইরাস এসেছিল বাদুড় থেকে।

এমন পরিস্থিতিতে দেশের সকল হাসপাতালে আলাদা বেড ও আইসিইউ প্রস্তুত রাখতে বলেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। নিপাহ ভাইরাস থেকে বাঁচতে খেজুরের কাঁচা রস না খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। এই ভাইরাসে আক্রান্তদের কাছে যাওয়ার সময় মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মানার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। কারণ নিপাহ ভাইরাস প্রতিরোধে কোন ওষুধ না থাকায় আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুহার প্রায় ৮০ শতাংশ।

নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আর এমও ) সামিউল ইসলাম শান্ত বলেন , নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হলে প্রাথমিকভাবে মাথাব্যথা, খিঁচুনি, গা ব্যথা, ঘাড় ও পিঠ শক্ত হয়ে যাওয়া, বমিবমি ভাব এবং গলাব্যথা হতে পারে। এরপর আক্রান্ত ব্যক্তি প্রলাপ বকা শুরু করতে পারে। রোগী আলো সহ্য করতে পারে না। কখনো কখনো অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে। পরিস্থিতির অবনতি হলে হঠাৎ হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হওয়া অথবা পক্ষাঘাতগ্রস্ত হও।

নিপাহ ভাইরাস মূলত খেজুরের কাঁচা রস পান করেই আক্রান্ত  ও মৃত্যুর ঘটনাগুলো বেশি ঘটে। কারণ এ রসে বাদুড়ে মুখ দেয়। যেহেতু এ ভাইরাস বাদুড়ের মাধ্যমে ছড়ায় তাই খেজুর রসে বাদুড় মুখ দেয়ার কারণেই সেখান থেকে মানবদেহে ছড়ায়। নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পরও মৃত্যুর হাত থেকে যারা ফিরে আসেন, তাদের জন্য এক ভয়াবহ সময় অপেক্ষা করে। বেঁচে থেকেও তারা স্মৃতি হারিয়ে ফেলতে পারেন এবং চিরতরে পঙ্গু হয়ে যেতে পারেন।

নাটোরের সিভিল সার্জন ড. রোজী আরা খাতুন জানান, ২৮টি জেলায় নিপাহ ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়েছে। তাই জনসচেতনতা তৈরিতে প্রচারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। বলেন, কাঁচা রস খাওয়া থেকে বিরত থাকতে মসজিদে মাইকিং করার পাশাপাশি বিভিন্ন ক্লিনিকে হেলথ এডুকেশন দেয়া হচ্ছে। গ্রামাঞ্চলের মানুষদের সতর্ক করার জন্য আমাদের স্বাস্থ্যকর্মীরা কাজ করে যাচ্ছেন।

নাটোর স্টেশন বাজার এলাকার ব্যবসায়ী অমিরুল ইসলাম বলেন, গ্রামের এবং শহরের সাধারণ মানুষ প্রতিদিনই কাঁচা খেজুরের রস খায়। নিপাহ ভাইরাসের সতর্কতামূলক স্বাস্থ্য বিভাগের কোনো প্রচারণা আজও চোখে পড়েনি।
সচেতনমহল মনে করেন নিপাহ ভাইরাসের বিষয়ে জনগণকে আরোও সচেতন করতে ব্যাপকভাবে মাইকিং, লিফলেট বিতরণ করা উচিত।

গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি

ডেস্ক রিপোর্ট :
গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি। এ বছর (২০২৩) ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন মোট ৬ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে দুইজন ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গু বিষয়ক এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে আরও দু’জন নতুন ডেঙ্গু রোগী দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তারা দু’জনেই ঢাকার।  ঢাকার বাইরে কোনো ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়নি। বর্তমানে সারাদেশে সর্বমোট ৪৪ জন ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এরমধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ২২ জন এবং ঢাকার বাইরে সারাদেশে ২২ জন ডেঙ্গুরোগী ভর্তি রয়েছেন।

২০২৩ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে মোট ৫৬৮ জন ডেঙ্গুরোগী ভর্তি হয়েছেন। এরমধ্যে ঢাকায় ২৭৪ জন এবং ঢাকার বাইরে ২৯৪ জন রয়েছেন। একইসময়ে দেশে সর্বমোট ছাড়প্রাপ্ত ডেঙ্গুরোগীর সংখ্যা ৫১৮ জন। এরমধ্যে ঢাকায় ছাড়প্রাপ্ত রোগী ২৪৯ জন, ঢাকার বাইরে সারাদেশে ২৬৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৬ ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি

ডেস্ক রিপোর্ট :
দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে আরও ১৬ জন নতুন রোগী বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। একই সময়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি।

বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোলরুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গুবিষয়ক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তদের ঢাকায় ছয়জন ও ঢাকার বাইরে ১০ জন। বর্তমানে সারাদেশে ৭৫ জন ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ৩৫ জন ও ঢাকার বাইরে ৪০ জন।

২০২৩ সালের ১ থেকে ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ৪৫৪ জন ডেঙ্গুরোগী ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকায় ২১৫ জন ও ঢাকার বাইরে ২৩৯ জন। একই সময়ে সারাদেশে ছাড়প্রাপ্ত ডেঙ্গুরোগীর সংখ্যা ৩৭৪ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ছাড়প্রাপ্ত রোগীর সংখ্যা ১৭৮ জন ও ঢাকার বাইরে ১৯৬ জন।

চলতি বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে আরও দুইজনের মৃত্যু হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট :
গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে আরও দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে চলতি বছর দেশে ডেঙ্গুতে মৃত্যু বেড়ে দাঁড়ালো পাঁচজনে। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ জন ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের নিয়ে বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ৮০ জনে।

বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের ইনচার্জ ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত ডেঙ্গুবিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ১৪ জনের মধ্যে ঢাকার বাসিন্দা আটজন এবং ঢাকার বাইরের ছয়জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, চলতি বছরের ১ থেকে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪৩৮ জন। তাদের মধ্যে রাজধানীর বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২০৯ জন। আর ঢাকার বাইরে অন্যান্য বিভাগে ভর্তি হয়েছেন ২২৯ জন।

অন্যদিকে, এসময়ের মধ্যে হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩৫৩ জন। তাদের মধ্যে ঢাকার বাসিন্দা ১৬৮ জন এবং ঢাকার বাইরের ১৮৫ জন। বিদায়ী বছরে (২০২২ সালে) ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন দেশের ইতিহাসের সর্বোচ্চ ২৮১ জন। একই সঙ্গে আলোচ্য বছরে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন ৬২ হাজার ৩৮২ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ডেঙ্গুতে একজন মারা গেছে

ডেস্ক রিপোর্ট :

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ডেঙ্গুতে একজন মারা গেছে। চলতি বছরে ডেঙ্গুতে দ্বিতীয় মৃত্যু এটা। এ সময়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ১০ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকায় চারজন ও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন হাসপাতালে ছয়জন ভর্তি হয়েছে।

আজ শুক্রবার (১৩ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে মোট ১২৭ জন ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসাধীন আছে। ঢাকার ৫৩টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে বর্তমানে ৫৫ জন এবং অন্যান্য বিভাগে ভর্তি রয়েছে ৭২ জন রোগী।

এদিকে, চলতি বছর ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে সারাদেশে এখন পর্যন্ত ৩৯০ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকায় ১৭৭ জন এবং ঢাকার বাইরে ১৯৩ জন চিকিৎসা নেয়। চলতি বছরে ডেঙ্গুতে সুস্থ হয়েছে ২৪১ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত ২৭ জন

হেলথ ডেস্ক :
গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ২৭ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ নিয়ে চলতি বছর দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ডেঙ্গুরোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭৬ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যুর তথ্য পাওয়া যায়নি।

রবিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের ইনচার্জ ডা. মো. জাহিদুল ইসলামের সই করা ডেঙ্গুবিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ২৭ জনের মধ্যে ঢাকার বাসিন্দা সাতজন ও ঢাকার বাইরের ২০ জন।

অধিদপ্তরের তথ্যমতে, চলতি বছরের ১ থেকে ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২৬৯ জন। তাদের মধ্যে ঢাকার বাসিন্দা ১৩০ জন ও ঢাকার বাইরের ১৩৯ জন। চলতি বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ৯৩ জন। তাদের মধ্যে ঢাকার বাসিন্দা ৬৮ জন এবং ঢাকার বাইরের ২৫ জন।

এ বছর হাসপাতালে ভর্তি ১৭৬ জন ডেঙ্গুরোগীর মধ্যে ঢাকার বাসিন্দা ৬২ জন এবং অন্যান্য বিভাগের ১১৪ জন। গত বছর সারাদেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ২৮১ জন মারা যান। এরমধ্যে বছরের শেষ মাস ডিসেম্বরেই মারা যান ২৭ জন। ওই বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন ৬২ হাজার ৩৮২ জন।

নতুন বছরে ডেঙ্গুতে মৃত্যু নেই

হেলথ ডেস্ক :

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৪১ জন। তবে এ সময়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত কারো মৃত্যু হয়নি।

আজ রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে মোট ২৪৯ জন ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসাধীন আছেন। ঢাকার ৫৩টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে বর্তমানে ১৫২ জন এবং অন্যান্য বিভাগে ভর্তি রয়েছেন ৯৭ জন রোগী।

এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়াদের মধ্যে ঢাকায় ২১ জন এবং ঢাকার বাইরে ২০ জন। অন্যদিকে, এ সময়ে চিকিৎসা শেষে হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে ফিরেছে ২০৮ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ১৩১ এবং ঢাকার বাইরে বিভিন্ন স্থানে ৭৭ জন।

ডেঙ্গু আতঙ্কের বছর

হেলথ ডেস্ক :
বিদায়ী বছরে করোনার পাশাপাশি ডেঙ্গুর সংক্রমণে মানুষ ব্যাপক আতঙ্কে ছিলেন। ২০২২ সালে সারাদেশে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ২৮১ জন। এর মধ্যে ১৭৩ জন ঢাকার বাসিন্দা। যা মোট মৃত্যুর ৬১ শতাংশ। ঢাকার বাইরে মৃত্যু হয়েছে ১০৮ জনের।

এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়ে চট্টগ্রাম বিভাগে ৬৯ জন, খুলনা ও বরিশাল বিভাগে মারা গেছে ১২ জন করে। ডেঙ্গুতে মারা যাওয়া ১৪৮ ব্যক্তিদের ওপরে করা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে জরিপে দেখা গেছে, এক থেকে ২৯ বছর বয়সে মারা গেছে ৪৭ শতাংশ মানুষ। ৩০ থেকে ৪৯ বছরে মারা গেছে ২৩ শতাংশ। আর ৫০ ঊর্ধ্ব মানুষের ৩০ শতাংশ মৃত্যু হয়েছে। যার মধ্যে ৯৫ শতাংশের মৃত্যু হয় হাসপাতালে আসার তিন দিনের মধ্যে।

২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশে ৬২ হাজার ৩৮২ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। এর মধ্যে ৩৯ হাজার ২২০ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী রাজধানীর দুই সিটি করপোরেশনের ৫৩টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। ঢাকার বাইরে দেশের অন্যান্য স্থানে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে ২৩ হাজার ১৬২ জন।

ডেঙ্গু জ্বর নিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৪৭ জন রোগী বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তবে এই সময়ে কারো মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। এর আগে, ২০১৯ সালে দেশে সর্বেোচ্চ এক লাখ এক হাজার ৩৫৪ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়। সে বছর মৃত্যু হয় ১৬৪ জনের। ২০২০ সালে আক্রান্ত হয় এক হাজার ৪০৫ জন। মৃত্যু হয় সাতজনের। আর ২০২১ সালে আক্রান্ত হয় ২৮ হাজার ৪২৯ জন। সে বছর মৃত্যু হয় ৭৫ জনের।

চীন থেকে আসা ৪ জনের করোনা শনাক্ত

ডেস্ক রিপোর্ট :

জনসমাগম এলাকায় মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ‘গতকাল চীন থেকে আসা ব্যক্তিদের মধ্যে চারজনের শরীরে করোনা পাওয়া গেছে। তবে কী ধরনের ভেরিয়েন্ট, তা এখনও জানা যায়নি।’

আজ সন্ধ্যায় মানিকগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মাসব্যাপী মুক্তিযুদ্ধের বিজয়মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের বাইরে থেকে যারা দেশের অভ্যন্তরে এয়ারপোর্ট, ল্যান্ডপোর্ট ও সি-পোর্টে প্রবেশ করবে, তাদের প্রত্যেককেই করোনা পরীক্ষার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। গতকাল চীন থেকে আসা ব্যক্তিদের এন্টিজেন টেস্ট করা হয়েছে। এদের মধ্যে চারজনের শরীরে করোনা মিলেছে। তবে তারা কোন ভেরিয়েন্টে আক্রান্ত, তা জানা যায়নি। আশা করছি, শিগগিরই সেটি বের করা সম্ভব হবে।’

জাহিদ মালেক বলেন, ‘কোভিডের নতুন ভেরিয়েন্টে সংক্রমণের হার বেশি হলেও মৃত্যু ঝুঁকি কম। তবে জনসমাগম হয়, এমন এলাকায় মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।’