বরিশাল-৩: সহিংসতামুক্ত নির্বাচন ও উন্নয়নের অঙ্গীকার

বাবুগঞ্জ প্রতিনিধি: বরিশাল-৩ (বাবুগঞ্জ-মুলাদী) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী সকল প্রার্থী একমঞ্চে দাঁড়িয়ে সহিংসতামুক্ত নির্বাচন অনুষ্ঠানের অঙ্গীকার করেছেন। এসময় তারা পরস্পরের হাতে হাত রেখে নিয়েছেন উন্নয়নের শপথ। নির্বাচনে জয়-পরাজয় যাই হোক একসঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে একযোগে কাজ করার দিয়েছেন প্রতিশ্রুতিও। গতকাল শনিবার বাবুগঞ্জের রহমতপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত জনগণের মুখোমুখি অনুষ্ঠানে প্রতিদ্বন্দ্বী সকল প্রার্থী একমঞ্চে এসে এসব অঙ্গীকার করেন। সুজনের বাবুগঞ্জ উপজেলা সভাপতি খালেদা ওহাবের সভাপতিত্বে এসময় প্রার্থীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহাজোট মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সম্পাদক ও বর্তমান এমপি অ্যাডভোকেট শেখ মো. টিপু সুলতান, ঐক্যফ্রন্টের মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী সুপ্রিমকোর্ট বার এসোসিয়েশনের সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী গোলাম কিবরিয়া টিপু, আরেক শরিক বিকল্প ধারা বাংলাদেশের কুলা প্রতীকের প্রার্থী মো. এনায়েত কবির, ইসলামী আন্দোলনের হাতপাখা প্রতীকের প্রার্থী উপাধ্যক্ষ মাওলানা সিরাজুল ইসলাম ও স্বতন্ত্র ট্রাক প্রতীকের প্রার্থী বরিশাল বিভাগ উন্নয়ন ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মো. আতিকুর রহমান। সুজন সম্পাদক সাংবাদিক আরিফ আহমেদ মুন্নার সঞ্চালনায় এসময় আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সুজনের বরিশাল বিভাগীয় সমন্বয়কারী মেহের আফরোজ মিতা, ইডেন কলেজের সাবেক উপাধ্যক্ষ প্রফেসর বেগম সাইদুন্নেছা লায়লা, বাবুগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আনিসুর রহমান সিকদার, প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি জাহিদুর রহমান সিকদার, উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল করিম হাওলাদার, জাতীয় পার্টির সভাপতি মাকিতুর রহমান কিসলু, ইসলামী আন্দোলনের সভাপতি শেখ নজরুল ইসলাম মাহবুব, যুবদল সম্পাদক মহসিন আলম, যুবমৈত্রীর সভাপতি আলাউদ্দিন খান, হাঙ্গার প্রজেক্টের উপজেলা সমন্বয়কারী আল-আমিন শেখ, পল্লী সঞ্চয়ী ব্যাংক কর্মকর্তা আবু আহমেদ, প্রধান শিক্ষক সেলিম রেজা, প্রধান শিক্ষক সাইদুর রহমান, প্রভাষক সাইফুল এম. রহিম, প্রভাষক মনিরুজ্জামান খোকন, প্রভাষক মহিদুল ইসলাম জামাল, সহকারী শিক্ষক শফিকুল ইসলাম বাদল, শাহিন মাহমুদ, অ্যাডভোকেট জহিরুল ইসলাম, সাবেক বিমানবাহিনীর কর্মকর্তা আফগান হোসেন, সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম রনি, প্রিন্স তালুকদার প্রমুখ। এসময় নির্বাচনের প্রার্থী ও উপস্থিত জনতাকে শপথবাক্য পাঠ করান রহমতপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অবিনাশ চন্দ্র রায়। জনগণের মুখোমুখি ওই অনুষ্ঠানে এসময় বরিশাল-৩ আসনের উপস্থিত সহ¯্রাধিক জনতার মধ্য থেকে সরাসরি প্রার্থীদের কাছে বিভিন্ন প্রশ্ন করা হয়। প্রতিদ্বন্দ্বী ৬ প্রার্থী উপস্থিত জনগণের মোট ২৪টি প্রশ্নের উত্তর দেন।

 

বানারীপাড়ায় নৌকার প্রার্থী শাহে আলমের সমর্থনে উঠান বৈঠক

মোঘল সুমন শাফকাত,বানারীপাড়া: বানারীপাড়া সদর ইউনিয়নের ৭,৮ও ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের উদ্যোগে গাভা হাইস্কুল মাঠে নৌকার প্রার্থী শাহে আলমের সমর্থনে উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বাবু শুশিল কুমার রায়ের সভাপতিত্বে ও প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি কেএম শফিকুল আলম জুয়েলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত উঠান বৈঠকে বক্তব্য রাখেন নৌকার প্রার্থী ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব শাহে আলম,প্রার্থীর সহধর্মীনি আতিয়া আলম মিলি,উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি গোলাম সালেহ মঞ্জু মোল্লা জেলা আইন বিষয়ক সম্পাদক ও পৌর মেয়র এ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র শীল,পৌর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম ফারুক,উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট মাওলাদ হোসেন সানা, ওয়াকার্স পার্টির সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক মন্টু লাল কুন্ডু,ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সভাপতি আনিচুর রহমান আনিস,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবিদ আল হাসান,আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ও সাংবাদিক সুজন হালদার,জাসদ (ইনু) সহ-দপ্তর সম্পাদক ও তথ্য মন্ত্রীর ব্যাক্তিগত সহকারী মো. সাজ্জাদ হোসেন,সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সম্পাদক আ. জলিল ঘরামী,গাভা-রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলাম মাওলা মাসুম শেরওয়ানী,সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ,উপজেলা বিএনপির সাবেক সম্পাদক ও সদ্য আ’লীগে যোগদানকারী মীর সহিদুল ইসলাম,ইউনিয়ন আ’লীগের সাঙ্গঠনিক স¤পাদক মামুন মল্লিক,ইউনিয়ন যুবলীগের সম্পাদক মনির মল্লিক প্রমূখ। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট মাহমুদ হোসেন মাখন,আ’লীগ নেতা ডা.খোরশেদ আলম,পৌর আ’লীগের সভাপতি সুব্রত লাল কুন্ডু,সম্পাদক শেখ সহিদুল ইসলাম,উপজেলা আ’লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক পরিতোষ গাইন প্রমূখ।

 

বরিশালে বিএনপির বিপুল পরিমান নেতৃবৃন্দের আ’লীগে যোগদান

বরিশাল অবজারভার ডেস্ক: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষে বরিশাল নগরীর বিএনপির দুই ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সায়েস্তাবাদ ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদকসহ তিন বিএনপি নেতা আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। গতকাল ২০ ডিসেম্বর বিকেল ৩ টায় কালিবাড়ী রোডস্থ সেরনিয়াবত ভবনের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে তারা বিপুল পরিমান বিএনপি ও অংগ সংগঠনের নেতৃবৃন্দদেরকে সাথে নিয়ে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন এর মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর হাতে নৌকা প্রতীকী দিয়ে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। সদ্য যোগদানকারী বিএনপি নেতা ২৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম, বিএনপি নেতা ও ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর খান জামাল ও সায়েস্তাবাদ ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মতলেব খা বলেন আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষে আওয়ামী লীগে যোগদান করলাম। বক্তব্যে তারা দক্ষিন বাংলার রাজনৈতিক আভিভাবক পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক (মন্ত্রী) আলহাজ¦ আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর নির্দেশে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত সংসদ সদস্য প্রার্থী কর্ণেল(অবঃ) জাহিদ ফারুক শামীমকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করার প্রতিশ্রুতি ব্যাক্ত করেন। এসময় বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল,সাধারণ সম্পাদক আডভোকেট একেএম জাহাঙ্গীর, নৌকার প্রার্থী কর্ণেল(অবঃ) জাহিদ ফারুক শামীম, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু, বরিশাল নগরীর ৩০ টি ওয়ার্ডের দলীয় কাউন্সিলরবৃন্দ, আওয়ামী লীগের ৩০ ওয়ার্ডের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সহযোগী সংগঠন ও সদর উপজেলার দশ ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের দলীয় চেয়ারম্যান, মেম্বার ও আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন

বরিশালে বিএনপির গণসংযোগকালে গ্রেপ্তার ৭

ডেস্ক রিপোর্ট: বরিশালে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আফরোজা খানম নাসরিনসহ বিএনপির ৭ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

আটক বাকি নেতাকর্মী হলেন- জলিল, প্রিন্স, বাবর, বিএনপি নেতা মন্টু খানি এবং শামসুল কবির ফরহাদ।

বুধবার (১৯ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় শহরের চৌমাথার সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজ ও সদর রোড থেকে তাদের আটক করা হয়।

বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নুরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ছাত্রদল নেতা-কর্মীরা জানিয়েছে- বেলা ১১ টার দিকে সৈয়দ হাতেম আলী কলেজ ক্যাম্পাসে বিএনপির প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ারের স্ত্রী নাসিমা সরোয়ার গণসংযোগ শুরু করেন। এসময় ছাত্রদল নেত্রী নাসরিনসহ দলীয় নেতাকর্মীরা তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন।

পরে পুলিশ সেখান থেকে নাসরিনসহ ৫ জনকে আটক করে। এছাড়া সদর রোড থেকে বিএনপি নেতা মন্টু খানসহ দুইজনকে আটক করা হয়।’

পটুয়াখালী-২: আ.স.ম ফিরোজ’র নির্বাচনী জনসভা

এম.এ হান্নান,বাউফল: মঙ্গলবার (১৮নভেম্বর) সকাল ১১টার দিকে বাউফল উপজেলার কনকদিয়া ইউনিয়নের
ছিটকা মহসিন মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত মহাজোট প্রার্থী  আলহাজ্ব আ.স.ম ফিরোজ’র পক্ষে  নির্বাচনী জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন,
আ.স. ম ফিরোজ এমপি,
 বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পটুয়াখালী  জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ খলিলুর রহমান মোহন,  বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক রায়হান সাকিব।
এছাড়াও বাউফল উপজেলা ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এসময় বক্তারা বাংলাদেশের চলমান উন্নয়নমুলক কাজের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকা মার্কায় ভোট চান।
তারা বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার বাঙলার মানুষের ভাগ্যের উন্নয়নের জন্য কাজ করে। আগামীতে আবারও এই সরকারকে রাষ্ঠীয় ক্ষমতায় দরকার।

নির্বাচন করার কোন পরিবেশ নাই : মেজর হাফিজ

স্টাফ রিপোর্টার: ভোলা-৩ আসনের বিএনপির প্রার্থী ও কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সভাপতি মেজর হাফিজ উদ্দিন আহমেদ ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে মানুষ ভোট কেন্দ্রে যেতে পারবে না বলে আশংকা করেছেন। নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড সৃষ্টি হয়নি। তিনি অবরুদ্ধ হয়ে আছেন, প্রচারে বের হতে পারছেন না বলে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানান। মেজর হাফিজ বলেন, সেনাবাহিনী ছাড়া এই দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব না। আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশন বসিয়ে দেয়া হয়েছে পছন্দের দলকে বিজয়ী করে দেওয়ার জন্য। তবুও জনগণ যদি ভোট কেন্দ্রে যেতে পারে তাহলে ধানের শীষ জয় লাভ করবে।
নিজ বাসভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মেজর হাফিজ আরো বলেন, আওয়ামী লীগ ভালো করেই জানেন সুষ্ঠ নির্বাচন হলে কি হবে। তাই ক্ষমতায় বসে নির্বাচন দিয়েছেন। সারা পৃথিবীতে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে নির্বাচন হয়। বাংলাদেশেই একমাত্র তার বতিক্রম। পুলিশ তাদের সাথে থাকে। সন্ত্রাসে চেয়ে গেছে বাংলাদেশ। ভোলা-৩ আসনে প্রতিপক্ষ প্রার্থী ২শত সন্ত্রাসী বিভিন্ন এলাকা থেকে নিয়ে এসেছে।
লালমোহন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে ভরপুর। আমি গত ১২ তারিখে লঞ্চে উঠবো, ব্যাগ নিয়ে রওয়ানা হয়েছি। গুলিস্তান এসে শুনলাম লঞ্চ ভাংচুর করে নদীর মাঝে নিয়ে গেছে। ২দিন পর আবার পুলিশ প্রটোকলে এলাকায় আসলাম। আমাকে ৪০ হাজার নেতা-কর্মী, সমর্থক লঞ্চঘাট থেকে অভ্যর্থনা জানায়। আমাকে আনার জন্য গাড়িটিও ভেঙ্গে দিয়েছে। উল্টো পুলিশ গাড়ির ড্রাইভারসহ আমার দুই ভাতিজাকে থানায় নিয়ে যায়। লালমোহন আসার পর কর্মীরা বাড়ি ফেরার সময় পথের মধ্যে কোপানো হয়। রায়চাঁদ, দালাল বাজার আমার সমর্থকের দোকান ভাংচুর করে। মঙ্গলসিকদার চৌকিদার বাড়িতে মহিলাদের নির্যাতন করা হয়েছে। তজুমদ্দিনে খাসেরহাট বাজারে দোকান ভাংচুর করা হয়েছে। কোড়ালমারার সিকদার বাড়ির সবগুলো ঘর ভেঙ্গে দিয়েছে।তিনি বলেন, ২০১০ সালের উপনির্বাচন থেকে লালমোহনে সন্ত্রাস শুরু হয়েছে। ওই নির্বাচনে বিএনপির ৩৫০ নেতা-কর্মীকে রামদা দিয়ে কুপিয়েছে। তারা হাসপাতালে পর্যন্ত যেতে পারেনি। আমার বাড়িই হাসপাতাল হয়েছে। ঢাকা থেকে সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে এসে ব্যাপক ভোট ডাকাতি করেছে। ওই সময় যিনি এমপি হয়েছেন তিনি এলাকার ভোটারও ছিলেন না। ২০১৪ সালে বিনা ভোটে এমপি হয়। এবারো চায় বিএনপি নির্বাচন না করুক।এখানে নির্বাচন করার কোন পরিবেশ নাই। প্রতিপক্ষ আচরন বিধি লঙ্গন করে লালমোহন পৌরসভায় ২৮ টি নির্বাচনি আফিস খুলছে। ইউনিয়নগুলোতে ও একাধিক নির্বাচনী অফিস খুলে প্রচারনা চালাচ্ছে। তিনি আরও বলেন তার নেতা কর্মীদের নামে মিথ্যা মাামলা দেয়া হচ্ছে। গতকাল রাতে কর্তারহাট থেকে তার কর্মী লতিফকে পুলিশ ধরে নিয়ে চালান করে দিয়েছে। তজুমদ্দিনে ও একই ঘটনা ঘটছে।জনগন ভোটকেন্দ্রে যেতে পারবে কিনা আমার সন্দেহ হচ্ছে। যদি ৩০ ভাগ নির্বাচন সুষ্ঠ হয় তাহলে আমি বিপুল ভোটে বিজয়ী হব।

পটুয়াখালী-২: নৌকার সমর্থনে গণজোয়ার

এম.এ হান্নান,বাউফল
১১২পটুয়াখালী-২ বাউফল সংসদীয় আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত মহাজোট প্রার্থী আ.স.ম ফিরোজ ও নৌকা মার্কার পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে।
১৬ই ডিসেম্বর জাতীয় বিজয় দিবস উপলক্ষে বাউফল উপজেলা আওয়ামীলীগ কতৃক আয়োজিত বিজয় র‌্যালীতে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, দলীয় নেতাকর্মীসহ প্রায় ২০হাজার নৌকার সমার্থকরা অংশ নেয়।
হাজারো কন্ঠে নৌকা- ফিরোজ ভাই স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠে পুরো পৌর শহর।
র‌্যালীটি বাউফল উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয় জনতা ভবন থেকে বের হয়ে পৌর শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে এই স্থানে এসে শেষ হয়।
র‌্যালী শেষে দলীয় কার্যালয় এসে পথসভায় মিলিত হয়। এতে আ.স.ম ফিরোজ সহ দলের সিনিয়ার নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।
র‌্যালীতে সকলের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় আর্ন্তজাতিক বিষায়ক উপকমিটির সদস্য , বাউফল উপজেলার নৌকার ভোট রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক রায়হান সাকিব,বাউফল উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন খাঁন, বাউফল উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আবদুল মোতালেব হাওলাদার, বাউফল উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইব্রাহিম ফারুক, বাউফর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সাহজাহান সিরাজ, সাধারন সম্পাদক এস.এম ফয়সাল আহম্মেদ মনির মোলা, স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি হারুন আর রশিদ, সাধারন সম্পাদক রিয়াজ সিকদার, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদ হাসান রুবেল, সাধারন সম্পাদক সামসুল কবির নিশাত প্রমুখ।
#########

বরিশাল সিটি নির্বাচনে আ’লীগ ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে নিজেদের উলঙ্গ করেছে- সরোয়ার

নিজস্ব প্রতিবেদক: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরিশাল(৫) আসনের বিএনপি সহ বিশদলীয় জোট সহ জাতীয়ঐক্যফ্রন্টের মনোনিত প্রার্থী এ্যাড. মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন বরিশাল সিটি নির্বাচনে ধানের শীর্ষের পরাজয় হয়নি।
নির্বাচনে আওয়ামীলীগ বাহির থেকে লোক এনে বরিশাল নগরবাশীর ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে নিজেদের উলঙ্গ করেছে।
তারা রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের মাধ্যমে আর বহিরাগতদের দিয়ে কেন্দ্র দখল করে লুঠ পাঠের ভোটের নির্বাচন করেছে।
কথায় কথায় আওয়ামীলীগ নিজেদের মুক্তিযুদ্বের চিতনার দল বলে দাবী করেন। এদেশে আয়ূব শাহীর স্বৈরাচারী একনায়কতন্ত্র ক্ষমতার হাত থেকে গনতন্ত্র উদ্বার করার জন্য এদেশের জনসাধারন মুক্তিযুদ্বে অংশ গ্রহন করে স্বাধীনতার মাধ্যমে গনতন্ত্র উদ্বার করেছিল।
আজ সেই আওয়ামীলীগ ক্ষমতা কুক্ষিগত করার জন্য সাধারন মানুষের ভোটের অধিকার হরন করে মানুষকে উন্নয়ন দেখান।
তারা যদি এতই উন্নয়ন করে থাকেন তাহলে সাধারন মানুষকে কেন ভোট দিতে দিচ্ছেন কেন?
আজ আওয়ামীলীগ ভোটের জন্য পুলিশ নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে তারা পুলিশের দেয়া ভোটে পুনরায় ক্ষমতায় আসার জন্য বিএনপি সহ বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদেরকে গায়েবী মামলা দিয়ে হয়রানী সহ আমাদের গ্রেপতার করে জেলে রেখে খালী আরেকটি ১৪ই জানুয়ারীর নির্বাচনের স্বপ্ন দেখতে চেয়েছিলেন এবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দিবা স্বপ্ন ভেঙ্গে চুরমার করে দেবে বাংলার জনগন।

আজ বৃহস্পতিবার শহীদ আঃ রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেস ক্লাবে বরিশাল মহানগর বিএনপি আয়োজনে জাতীয় নির্বাচন উপলক্ষে বরিশাল মহানগর ও কোতয়ালী ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা উপলক্ষে এক মতবিনিময় সভার সভাপতিত্বের বক্তৃতায় নেতা-কর্মীদের উদ্যেশে একথা বলেন।
এসময় নির্বাচন উপলক্ষে দিক নির্দেশনামূলক আরো বক্তব্য রাখেন বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাড. বিলকিস জাহান শিরিন,কেন্দ্রীয় সির্বাহী কমিটির সদস্য এ্যাড. আজিজুল হক আক্কাস,বরিশাল মহানগর বিএনপি সাধারন সম্পাদক জিয়া উদ্দিন সিকদার,মহানগর সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান খাঁন ফারুক,এ্যাড. মহসিন মন্টু,মহানগর আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. আবুল কালাম আজাদ, জেলা বিএনপি সাধারন সম্পাদক এ্যাড. আবুল কালাম শাহিন,জেলা মহানগর শ্রমীকদল সাধারন সম্পাদক ফয়েজ আহমেদ,জেলা শ্রমীকদল সাধারন সম্পাদক বসির আহমেদ,কোতয়ালী ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আনোয়ার হোসেন লাবু, জেলা বিএনপি নেতা এ্যাড. নাজিম উদ্দিন আহমেদ পান্না,মহানগর যুবদল সাধারন সম্পাদক মাসুদ হাসান মামুন,মহানগর যুবদল সহ-সভাপতি জাহিদুল ইসলাম সমির,মহানগর স্বেচ্ছাসেবকদল সভাপতি মাহবুবুর রহমান পিন্টু।
মতবিনিময় সভায় অরো উপস্থিত ছিলেন বরিশাল মহানগর বিএনপি উপদেষ্টা ও মুক্তিযুদ্বা নুরুল আলম ফরিদ,সাবেক মহানগর বিএনপি নেতা সুপ্রিমকোর্ট বার সদস্য এ্যাড. আলি হায়দার বাবুল,বরিশাল মহানগর বিএনপি যুগ্ম সম্পাদক আনায়রুল হক তারিন,দপ্তর সম্পাদক শাহেদ আকন সম্্রাট্
ধারেন শীর্ষের প্রাথী সরোয়ার আরো বলেন বর্তমান সরকারের বড় উন্নয়ন হচ্ছে ২কোটি ৩০লক্ষ শিক্ষিত যুবক বেকার জীবন যাপন করা।
আজ দেশনেন্ত্রী সাবেক প্রধান মন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় দন্ডিত করে নির্বাচনের বাহিরে রেখে তারা পরিবারতন্ত্র শাষন ব্যবস্থা কায়েম করার কাজে লিপ্ত হয়ে পড়েছে।
আওয়ামীলীগ গনতন্ত্রকামী দল হতে পারে না তারা গনতন্ত্র ধ্বংশকারী একটি দল স্বাধীনতার পর থেকেই তারা ক্ষমতা আগলে রাখার জন্যই মানুষের ভোটের অধিকার হরন করার কাজে জড়িয়ে পড়েছিল।
সরোয়ার আরো বলেন আগামী ৩০ই ডিসেম্বর জন সাধারনের ভোট বিপ্লবের মাধ্যমে ঐক্যফ্রন্টের প্রতিক ধানের শীর্ষের বিজয়ের মাধ্যমে এদেশের মানুষের ভোটের অধিকার ফিড়িয়ে দেয়ার বাস্তবায়ন করা হবে।
এর পূর্বে তিনি সদররোডে ধানের শীর্ষে গন সংযোগ কালে মিডিয়া কর্মূদের বলেন বর্তমান নির্বাচন কমিশনার পুলিশের হাতে বন্দি হয়ে পড়েছে।
নির্বাচন কমিশনারের কোন কথাই পুলিশ পার্তা দিচ্ছে না। প্রধান নির্বাচন কমিশনার এখন পর্যন্ত মাঠের আইন শৃঙখলার পরিবেশ ফিড়িয়ে আনতে পারেনি।
তাই জনগনের মধ্যে নির্বাচন একটি শংসয় রয়েে গেছে জনগন বলছে আমরা কি এবার নিজের ভোটটি দিতে পারব ?

অন্যদিকে আওয়ামীলীগ সহ মহাজোটের নৌকা প্রতিকের মনোনিত প্রার্থী কর্ণেল (অবঃ জাহিদ ফারুক শামীম সকালে নগরীর কেন্দ্রীয় নথুল্লাবাদ বাস টারমিনাল এলাকায় নৌকা প্রতিকের জন্য ভোট প্রার্থনা করে গন সংযোগ করেন।

 

পটুয়াখালী-৪: আ’লীগ-বিএনপির পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক: পটুয়াখালী-৪ আসনে আ’লীগ ও বিএনপি একে অপরের বিরুদ্ধে পাল্টা পাল্টি সংবাদ সম্মেলন।। আচরন বিধি লঙ্গনের অভিযোগ।।
কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি, ১২ ডিসেম্বর।। পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী) আসনের রাঙ্গাবালী উপজেলায় মঙ্গলবার বিকালে নির্বাচনী প্রচারণাকালে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি কর্মীদের মধ্যে সশস্ত্র সংঘর্ষের ঘটনায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছে আ’লীগ ও বিএনপি। দু’দলই হামলায় জড়িত সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন। বুধবার সকাল ১১টায় কলাপাড়া উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ও কেন্দ্রীয় বিএনপির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ হোসেন লিখিত বক্তব্যে বলেন, মঙ্গলবার রাঙ্গাবালী উপজেলার খালগোড়া বাজারে পথসভা করার আগেই যুবলীগ নেতা রিয়াজ মৃধা,রেসাদ ও চেয়ারম্যান মামুন খানের নেতৃত্বে হামলা করে দলীয় অন্তত ১৫০ নেতাকর্মীকে আহত ও জখম করে। চর মোন্তাজ ইউনিয়নের বশির ফকিরের পা কেটে দেয়। এছাড়া কাওসার আহম্মেদ, সাহজুল মীর, আলাউদ্দিন প্যাদা, সাইদুল গাজী, মন্নান মীর, খোকন, মোকলেছ মীর, রেশাদ, রিয়াদ আকন, রাব্বি, জাকির মোমিন হাওলাদার, মোকলেছুর হাওলাদার, মোশারফ লাহেরী, বেলাল খলিফা ও রহিম খলিফা রক্তাক্ত জখম হয। এরা বরিশাল, কলাপাড়া ও গলাচিপা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তিঁনি অভিযোগ করেণ, ধুলাসারের চিহ্নিত সন্ত্রাসী ইউনুচ দালাল, শাকিল, এমদাদ মৃধা, হাবিবের নেতৃত্বে মঙ্গলবার চাপলী বাজারের বিএনপির নির্বাচনী কার্যালয়ের চেয়ার টেবিল লুট করে নেয়। ডালবুগঞ্জ ইউনিয়নে প্রচার মাইক ভাংচুর করা হয়। একইদিন কুয়াকাটায় আওয়ামীলীগের চিহ্নিত সন্ত্রাসী মজিবর, মিলন পাহলান, খালেক খান ও মহিবুল্লাহ চৌকিদারের নেতৃত্বে প্রচার মাইক ভাংচুর করা হয়। মহিপুর বাজারে নির্বাচনী প্রচারে বাঁধা দেয়। এ ঘটনায় নির্বাচন কমিশনে লিখিত অভিযোগ দেয়া হলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। এছাড়াও মোশাররফ হোসেন তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, মঙ্গলবার বেলা ১১টায় নির্বাচনী সভা কওেছে আ’লীগ প্রার্থী এবং সেখানে ১৫ হাজার খিচুরি প্যাকেট বিলি করা হয়েছে। যা আচরন বিধির পরিপন্তি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক হাজী হুমায়ূন শিকদার, পৌর বিএনপির সভাপতি উপাধ্যক্ষ নুর বাহাদুর তালুকদার, সাধারন সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাফিজুর রহমান, সহসভাপতি মিজানুর রহমান টুটু বিশ্বাস, উপজেলা বিএনপি যুগ্ন সাধারন সম্পাদক গাজী মো: ফারুক, অ্যাড: শাহজাহান পারভেজ, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড: খন্দকার নাসির উদ্দিন, যুবদল সভাপতি গাজী মো: আক্কাস প্রমূখ।
বেলা ১২টায় কলাপাড়া প্রেসক্লাবে অপর সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামীলীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম রাকিবুল আহসান লিখিত বক্তব্যে আওয়ামীগের বিরুদ্ধে করা অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে বলেন, রাঙ্গাবালীতে আ’লীগের নির্ধারিত পথসভা চলছিল। তার পাশের ধানের শীষ প্রতিকের পথসভার আয়োজন করে। বিএনপি প্রার্থী এবিএম মোশাররফ হোসেন পথ সভায় উপস্থিত হওয়ার সাথে সাথে জামায়াত ও বিএনপির চিহ্নিত সন্ত্রাসী কবির তালুকদার, রহমান মাষ্টার, সাবু মিয়া, সোহাগ আকন, জাকির, নিয়াজ, বিপু, ইব্রাহীম, রহমান ফরাজী, মোতালেব হাওলাদার, মামুন হাওলাদার ও রাকিব হাওলাদারের নেতৃত্বে অতর্কিত হামলা চালায় আ’লীগ কর্মী সমর্থকদের ওপর। হামলায় রাঙ্গাবালী উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক লিটু, হাবিবুল বসার তোতা, শাহারুল হাওলাদার, কালাম হাওলাদার, রাহাত, ইউপি সদস্য শিমুল , সাদ্দাম, সোহেল মীর, মহাসীন, বিপ্লব, আতিকুর, কামাল, সোহেল মিয়াসহ অর্ধশত আহত হয়। এরা বর্তমানে কলাপাড়া, গলাচিপা ও বরিশালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তিঁনি বলেন, ধুলাসার, মহীপুর ও কুয়াকাটায় যে ঘটনার উল্লেখ করা হয়েছেঁ এবং যাদের নাম বলা হয়েছে তারা আ’লীগের কেউ নয়। এ হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের সাথে আ’লীগের কেউ জড়িত নয়।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত কলাপাড়ান উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব তালুকদার বলেন, এ আসনটি আ’লীগের ঘাটি। নৌকা এখানে নিশ্চিত বিজয়ী হবে। বিএনপি নিশ্চিত পরাজয় হবে বুঝতে পেরে এখন হামলা ও লুটপাটের মিথ্যা গল্প বানিয়ে প্রচার করছে।
শহর আ’লীগ সভাপতি ও পৌরসভার মেয়র বিপুল চন্দ্র হাওলাদার বলেন, বিএনপি যেসব আহতদের নাম উল্লেখস করেছে তারা স্থানীয় কেউ না, বহিরাগত। এই বহিরাগত সন্ত্রাসীরা এ অনাকাঙ্খিত পরিবেশ সৃষ্টির জন্যই জড়ো হয়েছিলো। যাদের কয়েকজনকে পুলিশ ট্রলারসহ আটক করেছে। এয়াড়া মঙ্গলবার তারা কোন সভা করেনি। ওাঁ ছিল মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠান এবং সেখানে কোন খাবার পরিবেশন করা হয়নি। যা সম্পূর্ন মিথ্যা ও কাল্পনিক। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, নৌকা মার্কার প্রার্থী মহিব্বুর রহমান মহিবের ভাই সিআইপি মাসুদ রহমান, আ’লীগ নেতা অধ্যক্ষ শহীদুল ইসলাম বিশ্বাস, বিমল সমদ্দার, ছাত্রলীগ কেন্দ্রিয় কমিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদুল আলম টিটো, উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারন সম্পাদক ও কাউন্সিলর নাসির উদ্দিন সোহাগ প্রমূখ।
সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি নেতারা নির্বাচনের আগে চিহ্নিত ও বহিরাগত সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও অস্ত্র উদ্ধারের দাবি জানান।

বরিশালে গণসংযোগ ও উঠান বৈঠকে ব্যস্ত প্রার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: বরিশালের তৃতীয় দিনের প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পাড় করছেন প্রার্থীরা। গতকাল বুধবার সকালে নগরের নবগ্রাম রোডে (এমএ জলিল সড়ক) গণসংযোগ সহ নৌকার প্রতীকের পক্ষে লিফলেট বিতরণ করেন বরিশাল সদর আসনে আ’লীগের প্রার্থী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম। পরে তিনি সদর উপজেলার জাগুয়া এলাকায় গণসংযোগ এবং উঠান বৈঠক করে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকা প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করেন। এ সময় আ’লীগ প্রার্থী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম গণমাধ্যমকে বলেন, তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী (মজিবর রহমান সরোয়ার) ২৫ বছর ধরে বরিশালে ক্ষমতায় ছিলেন। কিন্তু তার সময়ে বরিশালে তেমন কোন উন্নয়ন হয়নি। এবার নৌকায় ভোট দিয়ে তাকে নির্বাচিত করার মাধ্যমে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার পাশাপাশি আগামী ৫ বছর বরিশালে উন্নয়নের জোয়ার বইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। বরিশালে নির্বাচনের পরিবেশ অত্যন্ত ভালো উল্লেখ করে কর্নেল (অব) জাহিদ ফারুক বলেন, বিএনপি প্রচারণা চালাচ্ছে, আ’লীগও প্রচারনা চালাচ্ছে। জয় নিশ্চিত করবে বরিশালের জনগণ। অন্য দিকে সকাল ১১টায় নগরের মতাসার এলাকায় গণসংযোগ সহ ধানের শীষের পক্ষে লিফলেট বিতরণ করেন সদর আসনে বিএনপি প্রার্থী এ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার। পরে তিনি সদর উপজেলার চরবাড়িয়া এলাকায় গণসংযোগ সহ উঠোন বৈঠক করে বরিশালের উন্নয়ন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য ধানের শীষে ভোট দেওয়ার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান। গণসংযোগকালে বিএনপি প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ার গণমাধ্যমকে বলেন, তারা গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং বরিশালের উন্নয়নের জন্য ধানের শীষ প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করছেন। এ সময় তিনি অভিযোগ করেন, এখানে সরকারী দল নির্বাচনী আচরনবিধি মানছে না। বিএনপি’র প্রচারনায় নানাভাবে বাঁধার সৃষ্টির অভিযোগ করে সরোয়ার বলেন, বরিশালের প্রশাসন বিগত সিটি নির্বাচনে পক্ষপাতমূলক আচরনের জন্য অভিযুক্ত। অভিযুক্ত প্রশাসন আবারও পক্ষপাতমূলক আচরন করছে বলে অভিযোগ তার। উল্লেখ্য, বরিশাল জেলার ৬টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন ৩৯জন প্রার্থী। তারাও সকাল থেকে রাত পর্যন্ত প্রচার-প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে।