শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:০৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বরিশালে বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস উপলক্ষে র‌্যালি বরিশালে পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহ উপলক্ষে বিভাগীয় ও জেলা এ্যাডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত বরিশালে কারেন্ট জাল বিক্রি করার অপরাধে ১ বছরের কারাদণ্ড আওয়ামী লীগের সম্মেলনে খাবার প্যাকেট নিয়ে চেয়ার ছোড়াছুড়ি বরিশালে নিখোঁজ যুবকের কঙ্কাল উদ্ধার বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্ব মৃত্তিকা দিবসে ব্যাতিক্রমী প্রদর্শনীর আয়োজন বরিশালের আগৈলঝাড়ায় রিপোর্টার্স ইউনিটির সম্পত্তি হস্তান্তর রাজাপুর আ.লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি সরফরাজ, সম্পাদক লিটন বরিশালে আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস পালন পিরোজপুরে বিদ্যুতায়িত হয়ে দুইজন দিনমজুরের মৃত্যু

banner728x90

মেঘার প্রেমিক মাহিবী কারাগারে

মেঘার প্রেমিক মাহিবী কারাগারে

banner728x90

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ইডেন কলেজছাত্রী সায়মা কালাম মেঘা ধর্ষণ ও আত্মহত্যায় বাধ্য করার মামলায় প্রেমিক মাহিবী হাসানকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

বুধবার ঢাকা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ০৭ এ আত্মসমর্পন করে জামিন আবেদন করে মাহিবী হাসান, তার মা সেলিনা নাফিজ ও বোন নওরীন বন্যা। ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. খাদেম উল কায়েস মাহিবী হাসানের জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন এবং তার মা ও বোনের জামিন মঞ্জুর করেন।

গত ২১ এপ্রিল সন্ধ্যায় ঢাকার কাঠালবাগান এলাকার ৭৪/১ ফ্রি স্কুল স্ট্রীট এর চারতলা বাড়ির চতুর্থ তলার একটি কক্ষ থেকে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ইডেন কলেজের সমাজ কল্যাণ বিভাগের ছাত্রী ঝালকাঠির পূর্ব চাদকাঠি এলাকার আবুল কালাম আজাদের মেয়ে সায়মা কালাম মেঘার লাশ উদ্ধার করে কলাবাগান থানা পুলিশ। ওইদিন রাতেই কলাবাগান থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করে নিহতের চাচা আবুল বাশার।

২২ এপ্রিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে মেঘার লাশের ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের সদস্যদের কাছে লাশ হস্তান্তর করে পুলিশ। মেঘার মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে মেঘার বাবা আবুল কালাম আজাদ (৫৫) অভিযোগ করেন, ঝালকাঠি সরকারি মহিলা কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক পড়ার সময় শহরের পূর্বচাদকাঠি এলাকার মৃত. মো. নফিজুর রহমানের ছেলে বরিশাল হাতেম আলী কলেজেরছাত্র মাহিবী হাসানের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে মেঘার।

২০১৭ সালে মেঘা ঢাকা ইডেন কলেজে ভর্তি হয়। কাঠালবাগান এলাকায় এক বাড়িতে পেয়িং গেস্ট হিসেবে থাকতো মেঘা। ঢাকায় গিয়ে মাহিবী হাসান প্রায়ই মেঘার সাথে দেখা করতো। মাস ছয়েক আগে মেঘা এবং মাহিবী বিয়ের ব্যাপারে একমত হলেও বাধঁ সাধেন মাহিবীর মা ঝালকাঠি কির্ত্তীপাশা হাসপাতালের নার্স সেলিনা বেগম। ঘটনার প্রায় আড়াই মাস পর গত ৪ জুলাই সায়মা কালাম মেঘার মা রুবিনা বেগম বাদী হয়ে ঢাকা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ০৭ এ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(ক) ও ৩০ ধারায় একটি নালিশি মামলা দায়ের করেন।

মামলায় মাহিবী হাসান, তার মা সেলিনা নফিজ ও বোন নওরীন বন্যাকে আসামি করা হয়। মামলায় অভিযোগ করা হয় মাহিবী হাসান মেঘার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে এবং এক পর্যায় বিয়ে করতে অস্বীকার ও আত্মহত্যায় বাধ্য করে। মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় পিবিআইকে। তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইর ঢাকা মেট্রোর পরিদর্শক মো. নাসির উদ্দিন মৃত্যুর পূর্বে মেঘার লেখা চিঠি, মাহিবী হাসান ও মেঘার বিভিন্ন সময়ে তোলা ২৮ কপি ছবি, তাদের ম্যাসেঞ্জার ও ইমুতে হওয়া চ্যাটের ২৫ পাতা কাগজ এবং মাহিবী ও মেঘার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ১২ টি ভিডিও পর্যালোচনা করে গত ৬ অক্টোবর আদালতে আসামিদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

গত ২৮ অক্টোবর বিচারক মো. খাদেম উল কায়েস প্রধান আসামি মাহিবী হাসান, তার মা সেলিনা নফিজ ও বোন নওরীন বন্যার নামে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

২৭ নভেম্বর তিনজন ট্রাইবুনালে আত্মসমর্পন করে জামিন আবেদন করলে বিচারক মাহিবীর জামিন আবেদন বাতিল করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। বাদী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. মকবুল হোসেন।

মেঘার বাবা গত বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, মাহিবী হাসানের আত্মীয় ঝালকাঠিতে কর্মরত ট্রাফিক পুলিশের একজন পরিদর্শক মামলা তুলে নেয়ার জন্য অথবা আপোষ হওয়ার জন্য তাকে নানাভাবে হুমকি দিচ্ছেন। ওই পুলিশ পরিদর্শক মামলা তুলে না নিলে আবুল কালামের দুই ছেলেকে মাদক মামলায় জড়ানোর ভয় দেখান বলেও অভিযোগ করা হয়।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

banner728x90




© All rights reserved by barishalobserver.Com
Design & Developed BY AMS IT BD