বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ০৩:৪৪ অপরাহ্ন

আশাশুনিতে পদ্মা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লি. এর মেয়াদোত্তীর্ণ পলিসির অর্থ না পাওয়ায় বিপাকে শতাধিক পলিসি হোল্ডার

আশাশুনিতে পদ্মা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লি. এর মেয়াদোত্তীর্ণ পলিসির অর্থ না পাওয়ায় বিপাকে শতাধিক পলিসি হোল্ডার

আহসান উল্লাহ বাবলু স্টাফ রিপোর্টার ঃ আশাশুনিতে পদ্মা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লি. এর মেয়াদোত্তীর্ণ পলিসির অর্থ ফেরত না পাওয়ায় বিপাকে পড়েছে শতাধিক পলিসি হোল্ডার। টাকা ফেরত দেবার কথা বলে পলিসির মাসিক জমার পাসবই ও দলিল বাগিয়ে নিয়ে তালবাহানা করছে ইন্স্যুরেন্সের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার আনুলিয়া ইউনিয়নের কাকবাসিয়া গ্রামের মৃত কচিমুদ্দীন সানার ছেলে মাও. আসাদুজ্জামান।
কাকবাসিয়া গ্রামের আবু মুছা সরদারের স্ত্রী হালিম খাতুন জানান- মাও. আসাদুজ্জামানের পরামর্শে পদ্মা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সে সঞ্চয়ী বীমা প্রকল্পে (পলিসি নং- ১২৬৪০৩৭৬-৫, মাসিক-১০০ টাকা কিস্তি, ১০ বছর মেয়াদী) গ্রাহক হয়েছিলাম। আমার পলিসির মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় আমি মাও. আসাদুজ্জামানের কাছে টাকা চাইতে গেলে তিনি বলেন- বীমাবই ও চুক্তিনামা নিয়ে এসো। আমি সরল বিশ্বাসে তাকে সেগুলি হসআন্তর করি। এরপর তিনি আজ-কাল করে তালবাহানা শুরু করেন। তিন বছর ঘোরার পর আমি তার বাড়ী গেলে তিনি টাকা দিতে পারবেন না, টাকা অফিস থেকে নিতে বলে আমাকে বাড়ী থেকে বের করে দেন। আমার তিল তিল করে জমানো টাকা আমি ফেরত চাই।
একইভাবে চেচুনিয়া গ্রামের রফিকুল সরদারের স্ত্রী রাবেয়া খাতুন (পলিসি নং ১২৬৪০৪১৪-৪), আনুলিয়া গ্রামের আব্দুল্যার স্ত্রী আছমা খাতুন (পলিসি নং ১৪১১১১০৮০৭-৩), মোসলেমা খাতুনসহ আরও ভুক্তভোগী বীমাকারীরা মাওলানা আসাদুজ্জামান বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন- মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার পর আমাদের কাছ থেকে বীমা বই ও জমা রশিদ হাতিয়ে নিয়ে সে আমাদের চোখ রাঙাচ্ছে। আমাদের টাকা কৌশলে তুলে নিয়ে সে নিজে জমি-জমা কিনে ও মৎস্যঘের করে ঢাকা-খুলনা করে বেড়াচ্ছে। এছাড়া এইমওয়ে কর্পোরেশনের নামে তিনি এলাকা থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা তুলেছেন। যে টাকার কোন হদিস পাওয়া যাচ্ছে না।
এ ব্যাপারে মাও. আসাদুজ্জামানের সাথে কথা বললে তিনি জানান- আমি কাউকে হুমকি দেয়নি, আমার সাড়ে ৫শ পলিসির মধ্যে ৪শ গ্রাহক তাদের টাকা ফেরৎ পেয়েছেন। অভিযোগকারীদের মধ্যে ৬৭ গ্রাহকের নির্বাহী রশিদ এসে গেছে। অফিসিয়াল কিছু কার্যক্রমের একটু দেরি হচ্ছে। বাকী গুলোর মেয়াদ শেষ হলে তারা পাবেন। এইমওয়ে কপোর্রেশনের চেয়ারম্যান বর্তমানে কারাগারে থাকায় টাকা ফেরৎ দিতে ঝামেলা হচ্ছে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved by barishalobserver.Com
Design & Developed BY AMS IT BD