শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:০৫ পূর্বাহ্ন

banner728x90

বরগুনা-১ আসন: আওয়ামী লীগে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে দেলোয়ার হোসেন

বরগুনা-১ আসন: আওয়ামী লীগে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে দেলোয়ার হোসেন

banner728x90

আরিফ রহমান: আওয়ামী লীগের আভ্যন্তরীণ কোন্দলে জর্জরিত বরগুনা সদর, আমতলী এবং তালতলী উপজেলা নিয়ে গঠিত ১০৯ বরগুনা-১ আসন। ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগ পর্যন্ত বরগুনা সদর এবং বেতাগী নিয়ে গঠিত ছিল বরগুনা-১ আসন।
স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে এরশাদের শাসনামল এবং ১৯৯৬ সালে বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন অবস্থায় নির্বাচন ব্যতীত প্রতিটি সংসদ নির্বাচনেই এ আসন থেকে জয় লাভ করেছে আওয়ামী লীগ। আর এ কারণেই দ্বিতীয় গোপালগঞ্জ হিসেবে আখ্যা পেয়েছে বরগুনা-১ আসন। এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চারবারের নির্বাচিত এ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু। তিনি ২০০১ সালের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজ দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থী দেলোয়ার হোসেনের কাছে পরাজিত হন। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত বরগুনা-১ আসন আবারও রেকর্ড গড়েছে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র ক্রয়ে। দেশের ৩০০টি সংসদীয় আসনের মধ্যে বরগুনা-১ আসনে আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ সংখ্যক ৫২ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী মনোনয়নপত্র ক্রয় করেছেন। বরগুনা-১ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আ.লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর কবীর, এ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও বর্তমান বরগুনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. দেলোয়ার হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি ২০০১ সালের উপ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী গোলাম সরোয়ার ফোরকান, জেলা আ. লীগের সহ-সভাপতি হুমায়ূন কবীর ও গোলাম মোস্তফা, বরগুনা সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আ.লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্বাস হোসেন মন্টু, জেলা যুবলীগের সভাপতি ও জেলা আ.লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মহারাজ, জেলা আ.লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোতালেব মৃধা, আ.লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির কৃষিবিষয়ক সহ-সম্পাদক মশিউর রহমান শিহাব, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম সরোয়ার টুকু, রইসুল আলম রিপন, বরগুনা-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম মো. সিদ্দিকুর রহমানের জ্যেষ্ঠ কন্যা সোহেলী পারভিন মনি, আ.লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক ও সাবেক ছাত্র নেতা খলিলুর রহমান, বরগুনা সদর উপজেলা আ.লীগ সভাপতি ও বরগুনা সদর উপজেলা বুড়িরচর ইউপি চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক শাহ মোহাম্মাদ ওলি উল্লাহ ওলি এবং জেলা আ.লীগ সদস্য মনিরুজ্জামান নসা, বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইমরান হোসেন রাসেল ফরায়েজী প্রমুখ।
আমতলী পৌরসভার মেয়র মো. মতিয়ার রহমান, আমতলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিএম দেলোয়ার হোসেন, বরগুনা-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য নিজাম তালুকদারের স্ত্রী জাকিয়া এলিচ প্রমুখ। তালতলী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মনিরুজ্জামান মিন্টু ও তালতলী উপজেলা আ.লীগ নেতা ফজলুল হক জোমাদ্দার।
এছাড়াও বরগুনা-১ আসনে আ.লীগের মনোনয়ন ক্রয়কারীদের মধ্যে রয়েছেন, ঢাকায় বসবাসরত সাবেক ছাত্রলীগ ও যুব নেতাদের মধ্যে মিজানুর রহমান মিজান, আবদুস সোবাহান খান, আবদুস সোবাহান লিটন, মামুদুর রহমান নিরু প্রমুখ। আভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারনে বর্তমান সংসদ সদস্য চারবারের এমপি ধীরেন্দ্রনাথ শম্ভু এবার কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে এ আসনের মনোনায়ন প্রত্যাশী প্রায় সকল নেতাই তার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। দীর্ঘ সময় সংসদ সদস্য থাকার পরও এলাকায় তেমন উন্নয়ন না হওয়া, দূর্নীতি, সন্ত্রাস, মাদক ব্যবসায় তার পরিবারের যুক্ত থাকার অভিযোগ থাকায় তাকে নিয়ে সমস্যায় পরেছে হাইকমান্ড। অন্যদিকে এ আসনে বর্তমান সাংসদ ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর জনপ্রিয়তা শূন্যের কোঠায় নেমে এসেছে। সাবেক সাংসদ, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন এছাড়া কারও নির্বাচনী বৈতরণি পার হওয়ার মত জনপ্রিয়তা নাই। আবার ধীরেন্দ্র নাথ শম্ভুকে মনোনয়ন দিলে ভোটের মাঠের বিরোধীতা করবে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সহ সিংহভাগ নেতাকর্মি।সেই দিক থেকে দুই গ্রুপের কাছেই গ্রহন যোগ্য জনপ্রিয়তা সব দিক দিয়ে এগিয়ে দেলোয়ার হোসেন। তাছাড়া বিএনপির যদি সাবেক সংসদ মতিয়ার রহমান তালুকদার মনোনায়ন দেয় তাহলে ভোটের মাঠে কঠিন সমস্যায় পরতে হবে আওয়ামী লীগকে। বিএনপির অবস্থান ভাল আমতলী ও তালতলী উপজেলায় কিন্তু আওয়ামী লীগের প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন মনোনয়ন পেলে সে হিসাব পাল্টে যাবে। ‘আমতলী তালতলী,বরগুনার দল মত নির্বিশেষে শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ দেলোয়ার হোসেন এর পক্ষে।দক্ষিনের এই জেলা দীর্ঘদিন উন্নয়ন বঞ্চিত সেক্ষেত্রে বড় দুই জোটের যে প্রার্থী হবে তাকেই ভোট দেবে সাধারণ মানুষ। তাছাড়া ২০০১-২০০৬ সালের জাতীয় নির্বাচনের দোলায়ার হোসেন বিপুল ভোটে জয় লাভ করে।যখন আওয়ামীলীগের চরম কঠিন সময় পার করতেছিলো।তাছাড়া পচাত্তর পরবর্তী সময়ে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে যে আন্দোলন হয়েছিলো তাতে মুখ্য ভূমিকা রেখেছেন দেলোয়ার হোসেন।দেলোয়ার হোসেন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, উপজেলা চেয়ারম্যান, জেলা চেয়ারম্যান ও এক বার এম.পি হিসেবে জনপ্রতিনিধি থাকলেও তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির কোন আচড় লাগাতে পারেন নি।সারা বাংলাদেশেই মুজিবাদার্শের মূর্ত প্রতীক হিসেবে পরিচিত এই দেলোয়ার হোসেন।জনমত জরিপেও এগিয়ে রয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছে সরকারি, বেসরকারি কয়েকটি সংস্থা।সব দিক বিবেচনায় নৌকার মাঝি হওয়ার ক্ষেত্রে সর্বাধিক এগিয়ে দেলোয়ার হোসেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

banner728x90




© All rights reserved by barishalobserver.Com
Design & Developed BY AMS IT BD