বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১০:৫৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ফোন পাবার সাথে সাথে ১৫ পরিবারের খাবার পৌছে দিলেন বরিশাল জেলা প্রশাসক কখন করাবেন করোনা পরিক্ষা? লাপাত্তা তাবলিগ জামাতের নেতা মাওলানা সাদ নলছিটি সিটিজেন ফাউন্ডেনের উদ্যোগে কর্মহীন ও অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম চলমান বানারিপাড়ায় জাসদ নেতা এ্যাড. আনিচুজজামানের দ্বিতীয় দিনের মত অসহায় ও দুঃস্থদের মাঝে ত্রান বিতরন অব্যহত আমতলী থানার ওসি তদন্ত মনোরঞ্জন মিস্ত্রীর বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের বিনামূল্যে বিতরণের জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করলো যুবকরা বাউফলে ত্রান বিতরণ বাকেরগঞ্জে পথে-প্রান্তরে আদালত, তিনজনকে সাজা ‘হোম কোয়ারেন্টিন’ নৌকায়

banner728x90

বরিশালের সব খেয়াঘাট বন্ধ

বরিশালের সব খেয়াঘাট বন্ধ

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বরিশালের সব খেয়াঘাট বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জেলা প্রশাসক জানান, একটি খেয়ায় বহু লোক একসাথে পারাপার হচ্ছে। তাই খেয়া পারাপার বন্ধ করা না হলে গণজমায়েত বন্ধ হবেনা। ফলে সার্বিক দিক বিবেচনা করে জেলার সব খেয়াঘাট বন্ধ করে পুলিশী পাহারা বসানো হয়েছে। জেলাবাসীর প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, স্বাস্থ্য ও প্রশাসন বিভাগে যাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তারা ছাড়া কেউ অযথা ঘর থেকে বের হবেন না। আর নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্য ও ওষুধের দোকান ছাড়া কিছুই খোলা রাখা যাবেনা।

অপরদিকে, সরকারি

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বরিশালের সব খেয়াঘাট বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জেলা প্রশাসক জানান, একটি খেয়ায় বহু লোক একসাথে পারাপার হচ্ছে। তাই খেয়া পারাপার বন্ধ করা না হলে গণজমায়েত বন্ধ হবেনা। ফলে সার্বিক দিক বিবেচনা করে জেলার সব খেয়াঘাট বন্ধ করে পুলিশী পাহারা বসানো হয়েছে। জেলাবাসীর প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, স্বাস্থ্য ও প্রশাসন বিভাগে যাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তারা ছাড়া কেউ অযথা ঘর থেকে বের হবেন না। আর নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্য ও ওষুধের দোকান ছাড়া কিছুই খোলা রাখা যাবেনা।

অপরদিকে, সরকারি ছুটি ও করোনা আতঙ্কে নগরীর রাস্তাঘাট ফাঁকা হয়ে পড়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে প্রতিদিনের ব্যস্ত নগরীর চেহারা অন্য রকম। নগর ও বিভিন্ন উপজেলায় সাধারণ মানুষের আনাগোনা নেই বললেই চলে। নগরীর সড়ক ও জেলার মহাসড়কে গণপরিবহন না থাকায় যানবাহনের সংখ্যা কমে গেছে। নগরীতে কমেছে মোটরসাইকেল ও রিকশা চলাচলও। ফলে শহরের রাস্তাঘাট ফাঁকা হয়ে পরেছে।

এদিকে প্রধান সড়কগুলোতে কোথাও অপ্রয়োজনীয় দোকানপাট খোলা নেই। জেলাজুড়ে পুলিশ, র‌্যাবের পাশাপাশি সেনাবাহিনীর সদস্যরা টহল অব্যাহত রেখেছেন। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রম অব্যাহত রাখার পাশাপাশি জেলার প্রতিটি উপজেলার বিভিন্ন সড়ক ও স্থাপনা ঘিরে জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটানো হয়েছে।

ছুটি ও করোনা আতঙ্কে নগরীর রাস্তাঘাট ফাঁকা হয়ে পড়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে প্রতিদিনের ব্যস্ত নগরীর চেহারা অন্য রকম। নগর ও বিভিন্ন উপজেলায় সাধারণ মানুষের আনাগোনা নেই বললেই চলে। নগরীর সড়ক ও জেলার মহাসড়কে গণপরিবহন না থাকায় যানবাহনের সংখ্যা কমে গেছে। নগরীতে কমেছে মোটরসাইকেল ও রিকশা চলাচলও। ফলে শহরের রাস্তাঘাট ফাঁকা হয়ে পরেছে।

এদিকে প্রধান সড়কগুলোতে কোথাও অপ্রয়োজনীয় দোকানপাট খোলা নেই। জেলাজুড়ে পুলিশ, র‌্যাবের পাশাপাশি সেনাবাহিনীর সদস্যরা টহল অব্যাহত রেখেছেন। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রম অব্যাহত রাখার পাশাপাশি জেলার প্রতিটি উপজেলার বিভিন্ন সড়ক ও স্থাপনা ঘিরে জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটানো হয়েছে।




banner728x90

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

banner728x90




© All rights reserved by barishalobserver.Com
Design & Developed BY AMS IT BD